অ্যান্ড্রয়েড ফোন ব্যবহার করেন ? এই শর্টকাটগুলো এক্ষুনি জেনে নিন

আমরা ৭টি এমনই শর্টকাট অথবা কাস্টমাইজেশন ফিচারের কথা আলোচনা করব যা আপনাদের কাজে লাগতে পারে

বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় মোবাইল অপারেটিং সিস্টেম হল গুগলের অ্যান্ড্রয়েড। এই সিস্টেমটি পরিচিত তার অসংখ্য কাস্টমাইজেশন ফিচারের জন্য। এই অপারেটিং সিস্টেমের বিভিন্ন স্পেশাল শর্টকাটের অপশনও রয়েছে। তবে এত কাস্টমাইজেশন ফিচারের মধ্যে হয়তো সবের ব্যাপারে আপনারা অবগত নন। এখানে আমরা ৭টি এমনই শর্টকাট অথবা কাস্টমাইজেশন ফিচারের কথা আলোচনা করব যা আপনাদের কাজে লাগতে পারে।

১. নোটিফিকেশন হিস্ট্রি চেক করা : যদি কোনদিন হঠাৎ করে কোনো গুরুত্বপূর্ণ নোটিফিকেশন আপনি স্ট্যাটাস বার থেকে ডিলিট করে দিয়ে থাকেন তাহলে আপনি সেটিকে আবার ফিরে পেতে পারবেন। এরই জন্য আপনাকে ‘উইজেট’ অপশনে গিয়ে সেখান থেকে ‘সেটিংস’ শর্টকাট খুঁজতে হবে। তারপর নতুন উইন্ডো থেকে ‘নোটিফিকেশন লগ’ অপশনে ট্যাপ করলে আপনার হোমস্ক্রীনে একটি শর্টকাট এসে যাবে যার মাধ্যমে আপনি সব পুরনো নোটিফিকেশন দেখতে পারবেন।

২. প্রত্যেকটি কাজের জন্য আলাদা আলাদা শর্টকাট তৈরী করা : আপনি আপনার প্রত্যেকটি অ্যাক্টিভিটির জন্য আলাদা আলাদা শর্টকাট তৈরি করতে পারবেন যার মাধ্যমে একটি ট্যাপেই আপনার সেই মেনুটি ওপেন হয়ে যাবে। এটি আপনারা করতে পারেন অ্যাক্টিভিটি লঞ্চারের মাধ্যমে। প্লে স্টোরে এরকম অনেক অ্যাক্টিভিটি লঞ্চার আপনারা পেয়ে যাবেন। এই লঞ্চারের মাধ্যমে কোন একটি অ্যাক্টিভিটি যেটির জন্য অনেকগুলি স্টেপ ফলো করতে হয় সেগুলিতে একটি স্টেপেই পৌঁছে যাবেন। সেই মেনুতে সরাসরি পৌঁছানোর একটি স্টেপ আইকন আপনার হোমস্ক্রীনে এসে যাবে এবং সেটিকে ট্যাপ করলেই নির্দিষ্ট জায়গায় পৌঁছে যাবেন আপনি। নোভা বা অ্যাপেক্স লঞ্চার যদি আপনি ব্যবহার করেন তাহলে আপনি এরকম অ্যাক্টিভিটি শর্টকাট ওই লঞ্চারের মাধ্যমেই তৈরি করতে পারবেন। আলাদা করে অ্যাক্টিভিটি লঞ্চার নামানোর দরকার হবে না।

৩. গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট : নাম থেকেই বোঝা যাচ্ছে এটিকে আপনার বিভিন্ন কাজে সাহায্যের জন্য তৈরি করা হয়েছে। আপনার গুগল অ্যাসিস্ট্যান্টকে ব্যবহার করার জন্য আপনাকে ফোনের হোম বাটনটি কিছুক্ষণ চেপে রাখতে হবে  অথবা আপনাকে মুখে বলতে হবে ‘ওকে গুগল’। তারপর আপনার গুগল অ্যাসিস্টেন্ট চালু হয়ে গেলে আপনি তাকে যা কাজ করতে বলবেন তা সে করে দেবে।

৪. নোটিফিকেশন প্যানেল থেকে মেসেজের রিপ্লাই দেওয়া : অ্যান্ড্রয়েড ৭.০ নোগাট থেকে অ্যান্ড্রয়েডে একটি নতুন ফিচার এসেছে যার মাধ্যমে আপনি নোটিফিকেশন প্যানেল থেকেই হোয়াটসঅ্যাপ, মেসেঞ্জার সহ অন্যান্য মেসেজিং অ্যাপের মেসেজের রিপ্লাই দিতে পারবেন। স্ট্যাটাস বারটি নিচে স্ক্রল করে রিপ্লাই অপশনে ক্লিক করলেই আপনার স্ক্রিনে কিবোর্ড খুলে যাবে ও আপনি রিপ্লাই টাইপ করতে পারবেন।

৫. সহজে স্ক্রিনশট নেওয়া : স্ক্রিনশট নেওয়ার জন্য ভলিউম ডাউন এবং পাওয়ার বাটনটি একসঙ্গে চেপে রাখতে হয় কিছুক্ষণ। তবে অ্যান্ড্রয়েড ৯.০ পাই এর সাথে গুগল একটি নতুন ফিচার এনেছে যাতে আপনাকে শুধুমাত্র পাওয়ার বাটনটি কিছুক্ষণ চেপে রাখতে হয়। তারপর নতুন পপ-আপ উইন্ডোতে স্ক্রিনশট অপশনে ট্যাপ করলেই স্ক্রিনশট তুলে নেবে আপনার ফোন। এছাড়া তিনটি ফিঙ্গারপ্রিন্ট একসঙ্গে স্ক্রিনের উপর থেকে নিচের দিকে টানলেও স্ক্রিনশট নেওয়া যায় তবে এই ফিচারটি শুধুমাত্র কিছু কিছু ফোনের মধ্যেই সীমিত। এটি ছাড়াও আপনারা যদি কাউকে পাঠানোর জন্য স্ক্রিনশট তুলতে চান তাহলে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্টের সাহায্যও নিতে পারেন। এটির জন্য আপনাকে গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট চালু করে তারপর বলতে হবে ‘টেক এ স্ক্রিনশট’। আপনার গুগল অ্যাসিস্ট্যান্ট স্ক্রিনশট নিয়ে নেবে তারপর আপনি সেটিকে শেয়ার করতে পারবেন।

৬. অ্যাসিস্টিভ টাচ : কোনো কারনে আপনার ফোনের সফটওয়্যার যদি খারাপ হয়ে যায় বা অন্যান্য কোন সমস্যা দেখা দেয় তাহলে আপনি অ্যাসিস্টিভ টাচ ব্যবহার করে বিভিন্ন সেটিংসের অপশনগুলিকে অন্যভাবে ব্যবহার করতে পারবেন। নেভিগেশন বার খারাপ হয়ে গেলে প্লে স্টোর থেকে যেকোনো নেভিগেশন বার অ্যাপ ডাউনলোড করে কাজ চালিয়ে নিতে পারেন।

৭. নোটিফিকেশনস স্নুজ : কোন গুরুত্বপূর্ণ কাজে ব্যস্ত থাকার সময় যদি কোন এমন নোটিফিকেশন আসে যেটিকে আপনি কিছুক্ষণ পরে পেতে চান তাহলে আপনি সেটিকে কিছুক্ষণের জন্য স্নুজ করে দিতে পারেন। এই নতুন ফিচারটি অ্যান্ড্রয়েড ৮.০ থেকে এসেছে। এটিকে ব্যবহার করার জন্য আপনাকে সেই নোটিফিকেশনটিকে ডানদিকে বা বাঁদিকে হালকা সরাতে হবে। তারপর ঘড়ির আইকনে ক্লিক করে আপনার পছন্দমত সময়ের জন্য সেই নোটিফিকেশনটিকে স্নুজ করে দিতে পারেন।

পড়ুন : ৫০শতাংশ ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ভুয়ো ? জোরালো দাবি জুকারবার্গের বন্ধুর