Air One: যানজটে আটকে বিরক্ত? আপনার জন্য আসছে ফ্লাইং কার, প্রয়োজন হবে না পাইলটের

Air One হেলিকপ্টারের মতো যে কোনও জায়গা থেকেই উড়ে যেতে পারবে এবং নীচে নামতে পারবে

air-one-flying-car-sporty-two-seater-evtol-park-garage

যানজটে আটকে গিয়ে প্রয়োজনীয় কাজে যেতে দেরি হয়ে যাচ্ছে? দৈনন্দিন এই ঘটনায় কিন্তু বিরক্ত অনেকেই। যদি আকাশ দিয়ে গাড়ি উড়ে যেতে পারত, সেই সময় এমন ভাবনার উদয় হয় স্বাভাবিক ভাবেই। তবে আর এ সব নিয়ে ভাবতে হবে না। ইজরায়েলি স্টার্টআপ সংস্থা এয়ার (Air) খুব সম্প্রতি তাদের প্রথম বিদ্যুৎচালিত উড়ুন্ত গাড়ি Air One সামনে নিয়ে এসেছে। যা আসলে একটি ই-ভিটল (eVTOL) বা ইলেকট্রিক ভার্টিকল টেক অফ অ্যান্ড ল্যান্ডিং এয়ারক্রাফ্ট। সহজ করে বললে, Air One হেলিকপ্টারের মতো যে কোনও জায়গা থেকেই উড়ে যেতে পারবে এবং নীচে নামতে পারবে। ওঠা-নামার জন্য আলাদা করে রানওয়ের প্রয়োজন নেই।

২০২৩ সালে সংস্থাটি আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল এভিয়েশন অথরিটির কাছ থেকে এয়ার ওয়ান আকাশে ওড়ানোর অনুমোদন পাবে বলে আশা করছে। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে ২০২৪ সালের মধ্যেই তা সরাসরি ক্রেতাদের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে বলে এয়ারের তরফে জানানো হয়েছে।

Air One: খুঁটিনাটি

এয়ার ওয়ানের ওজন ৯৭০ কেজি। আসনের সংখ্যা দুই – একটি পাইলট এবং আরেকটি যাত্রীর জন্য। দু’জনের হাতেই ব্যাটারিচালিত এই উড়ুক্কু যানের নিয়ন্ত্ৰণ থাকবে। প্রাইভেট গাড়ির মতো ব্যক্তিগত কাজে যাতে নিত্যদিন ব্যবহার করা যায়, সে কথা মাথায় রেখেই উড়োযানটি নকশা করা হয়েছে। একটি ক্লিকেই এয়ার ওয়ানের ডানা ভাঁজ করা যাবে। যাতে বাড়ি বা অফিসের গ্যারাজের মধ্যে সহজেই ঢুকে যায়।

এক চার্জে ১৭৭ কিলোমিটারের ফ্লাইং রেঞ্জ দেবে Air One। ব্যাটারিচালিত বলে এতে তেল, পোড়া, ধোঁয়ার কার্বন দূষণ নেই। উড়োগাড়িটি ঘন্টা খানেক আকাশে ভেসে থাকতে পারবে। আকাশে সর্বাধিক ১৭৭ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা গতিবেগে উড়তে পারবে।

Air One: বিশেষত্ব

এয়ার তাদের ফ্লাইং কারের জন্য বিশেষ “ফ্লাই বাই ইনটেন্ট” কন্ট্রোল সিস্টেমের উপর কাজ করছে, যা যানটির বিবিধ জটিল কাজ ও নেভিগেশন পরিচালনা করবে। যাতে এর ব্যবহার শুধুমাত্র দক্ষ পাইলট এবং প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত পেশাদারদের মধ্যে সীমাবদ্ধ না থাকে। এয়ার ওয়ানে এআই বা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স নির্মিত মনিটরিং সিস্টেম রয়েছে, যা গাড়ির নিরাপত্তার সমস্ত দিকগুলি খতিয়ে দেখবে। এই ধরনের যান চালাতে গেলে একই সঙ্গে ড্রাইভিং এবং পাইলট লাইসেন্সের প্রয়োজন। কিন্তু এয়ার ওয়ান চালানোর ক্ষেত্রে ঠিক কী ধরনের লাইসেন্স লাগবে, তা জানা যায়নি।

Air One: দাম

গত বছর ১০ মিলিয়ন ডলারের সিড ফান্ডিং পাওয়ার পর থেকেই চালক ও যাত্রীহীন অবস্থায় এয়ান ওয়ানের পরীক্ষা করা হচ্ছে। সংস্থাটি বেশ কিছু প্রটোটাইপ বা নমুনা মডেলও চূড়ান্ত করে ফেলেছে। বহুমূল্য গাড়ির দামেই এটি বিক্রি করা হবে। এছাড়া এয়ার কর্তৃপক্ষ তাদের উড়ন্ত গাড়ির আর কোনও তথ্য প্রকাশ করেনি।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন

টেকগাপে শুভ্রর প্রথম প্রযুক্তি বিষয়ক লেখায় হাতেখরি৷ স্নাতক স্তরের পড়াশোনার পাশাপাশি এখানেই চলতে থাকে শুভ্রর লেখালেখি৷ কলেজের অধ্যায় শেষ হওয়ার পর শুভ্র এখন টেকগাপের কনটেন্ট টিমের একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য৷