কাজের চাপে বোতলে মূত্রত্যাগ কর্মচারীদের, অভিযোগ ওড়ালেও অস্বস্তিতে Amazon

amazon-denies-urine-bottle-stories-from-workers-on-twitter

বিশ্বজুড়ে দীর্ঘ সময় ধরে অ্যামাজন (Amazon) জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকলেও, মাঝে মাঝেই তাদের সুনামের পেছনে লুকিয়ে থাকা কালো ছবিটি সবার সামনে উঠে এসেছে; আর বেশির ভাগ সময়েই অ্যামাজনের অচেনা রূপটির কথা জানা গিয়েছে তার কর্মীদের অভিযোগ থেকেই। কখনো অনলাইন শপিং কোম্পানিটির স্টোরের মাত্রাতিরিক্ত উত্তাপে কর্মীদের অজ্ঞান হওয়ার ঘটনা শোনা গেছে তো, কখনো আবার সংস্থার বিরুদ্ধে ক্যামেরা ব্যবহার করে কর্মীদের ওপর নজর রাখা অথবা যাতায়াতের ব্যয় বহন না করে শ্রমিকদের শীতের মধ্যে বাইরের শিবিরে রাখার মতো বহু অমানবিক অভিযোগ উঠেছে। তবে এবার নেটদুনিয়ায় অ্যামাজন সম্পর্কিত এরকম আরেকটি তথ্য ফাঁস হয়েছে যার ফলে ই-কমার্স জায়ান্ট কোম্পানিটির প্রতি প্রচুর মানুষ নিজেদের ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন।

আসলে সম্প্রতি টুইটারের মাধ্যমে জানা গিয়েছে যে Amazon, তার ওয়্যার হাউজ, ডেলিভারি ইউনিট বা অন্যান্য সহায়ক বিভাগগুলিতে এতটাই কাজের চাপ সৃষ্টি করে যে এই সমস্ত বিভাগের কর্মচারীরা বাথরুম বিরতি পর্যন্ত পান না। ফলত কাজের ফাঁকে প্রাকৃতিক কাজ সারতে তাদের জল বা সোডার বোতলের ওপর ভরসা করতে হয়; সোজা ভাষায় বললে তারা বোতলে মূত্রত্যাগ করতে বাধ্য হন! সেক্ষেত্রে বিগত কয়েক বছর ধরে কর্মীরা এই শোষণমূলক ব্যবহারকে মেনে নিলেও, এবার সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে বিশ্ববাসীর কাছে তাদের এই ‘নিপীড়ন’-এর ছবি তুলে ধরা হয়েছে। যদিও এই অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছে অ্যামাজন।

রিপোর্ট অনুযায়ী সম্প্রতি মার্কিনি রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব মার্ক পোকান, টুইট পোস্টের মাধ্যমে অ্যামাজনের এই নিকৃষ্ট ব্যবহারের নিন্দা করে বলেন যে, কর্মীদের ১৫ ডলার প্রতি ঘন্টায় বেতন দিয়ে তাদের স্বাস্থ্যের প্রতি নজর না দেওয়াটা কোনো কৃতিত্ব নয় এবং এতে সংস্থার কর্মক্ষেত্রকে কোনভাবেই প্রগতিশীল বলা যায় না। সেক্ষেত্রে Amazon তাদের বিরুদ্ধে আনা সমস্ত অভিযোগকে উড়িয়ে দিয়ে পোকানের ওই টুইটের রিপ্লাই থুড়ি সাফাই দিয়ে বলেছে যে, এই বিষয়টি একেবারেই বিশ্বাসযোগ্য নয়, কারণ এই ঘটনা সত্যি হলে এত বছর ধরে এত মানুষ তাদের হয়ে কাজ করত না। তাছাড়া সংস্থাটি তার বিশ্বব্যাপী এক মিলিয়ন কর্মচারীদের নিয়ে গর্বিত এবং এটি সমস্ত কর্মচারীদের বেতন ও স্বাস্থ্যসেবা সংক্রান্ত বিষয়গুলির দিকে বিশেষ খেয়াল রাখে বলেও ওই টুইট পোস্টে জানিয়েছে।

কিন্তু এতেও বিতর্ক থামেনি! অ্যামাজনের এই টুইটের পরেই সাংবাদিক, শ্রমিক ও সর্বসাধারণের মধ্যে যারা সংস্থার এই কর্ম পরিস্থিতি সম্পর্কে অবগত, তারা তৎক্ষণাৎ টুইটারে ‘Urine Bottle’ অর্থাৎ প্রস্রাব ভরা ছবি পোস্ট করে সংস্থাটির বিরুদ্ধে পুনরায় আঙুল তোলে। যেমন বাজফিড (Buzzfeed)-এর সংবাদদাতা কেন বেনসিঞ্জার, অ্যামাজনে কর্মরত চালকের থেকে প্রাপ্ত একটি ইন্সট্রাকশন শিটের ছবির উল্লেখ করেছেন, যেখানে তাদের শিফট শেষ হওয়ার পর ডেলিভারি ভ্যান থেকে ট্র্যাশ নিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি প্রস্রাবের বোতলের নিষ্পত্তি করারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এমনকি, বর্তমান পরিস্থিতি এতটাই খারাপের দিকে গেছে যে, সংস্থার কর্মচারীরা কর্মসময়ে প্রাকৃতিক কাজ সারার ন্যূনতম বিরতিটুকু না পাওয়ায় তাদের মধ্যে অনেকেই মূত্রনালীর সংক্রমণের মতো গুরুতর রোগে আক্রান্ত হয়েছে বলে দাবি করেছে। তাই এই বিতর্ক যে ক্রমশ জলঘোলা হচ্ছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না! তবে দেখার বিষয় এটাই যে, অ্যামাজনের বিরুদ্ধে ওঠা এই অভিযোগের আর কোন দিক আগামী দিনে সামনে আসে কিনা এবং এসব দেখে-শুনে সংস্থার প্রতি গ্রাহকদের ভালবাসা কতটা অক্ষুণ্ণ থাকে…

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন