খরচের চেয়ে দ্বিগুন দামে বিক্রি হচ্ছে iPhone 12, জেনে নিন ফোনটির উৎপাদন মূল্য

আমেরিকার জনপ্রিয় টেক কোম্পানি Apple অক্টোবরে নিয়ে এসেছে তাদের এবছরের iPhone 12 সিরিজ। বরাবরই আইফোন প্রিমিয়াম রেঞ্জে আসে। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। তবে আপনি যদি মনে করেন, দামি কম্পোনেন্ট ব্যবহারের কারণেই আইফোনের দাম বেশি হয়, তবে আপনি ভুল। সম্প্রতি জাপানের Fomalhaut Techno Solutions-এর কিছু বিশেষজ্ঞ iPhone 12 এবং iPhone 12 Pro-এর নির্মাণ মূল্য নির্ধারণ করে একটি রিপোর্ট বের করেছেন। এমনিতে iPhone 12 ও iPhone 12 Pro-এর বিক্রয়মূল্য যথাক্রমে ৬৯৯ ডলার এবং ৯৯৯ ডলার। কিন্তু আলোচ্য রিপোর্ট অনুযায়ী তাদের নির্মাণ মূল্য অনেকটাই কম।

উল্লিখিত সংস্থার রিপোর্ট অনুযায়ী iPhone 12-এর জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশগুলি পাওয়া সম্ভব মাত্র ৩৭৩ মার্কিন ডলারে। অন্য দিকে iPhone 12 Pro-এর ক্ষেত্রে এই কম্পোনেন্টগুলির দাম মোট ৪০৬ মার্কিন ডলার। অর্থাৎ নির্মাণ মূল্যের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ দাম ধার্য করেছে Apple। এবছরের আইফোনের সবচেয়ে দামি দুটি কম্পোনেন্ট হল Samsung এর OLED ডিসপ্লে এবং Qualcomm-এর X55 5G মোডেম। স্যামসাং ডিসপ্লের প্রতি ইউনিটের দাম ৭০ ডলার আর কোয়ালকমের মোডেমের দাম ৯০ ডলার। এছাড়া A14 Bionic-এর নির্মাণ মূল্য ৪০ ডলার। আবার এই দুটি আইফোনের র‌্যামের জন্য খরচ ১২.৮ ডলার। সেই সঙ্গে প্রতি ইউনিট ফ্ল্যাশ মেমোরির দাম ১৯.২ ডলার। পাশাপাশি Sony-র ক্যামেরা সেন্সরগুলির দাম ৭.৪ ডলার থেকে ৭.৯ ডলারের মধ্যে হতে পারে।

রিপোর্ট অনুযায়ী, iPhone 12 Pro-এর ২৬.৮% উপাদানই দক্ষিণ কোরিয়া থেকে আমদানি করা হয়। বাকি ২১.৯% উপাদান আসে আমেরিকা থেকে, ১৩.৬% জাপান থেকে, ১১.১% তাইওয়ান থেকে, ৪.৬% চিন থেকে এবং বাকিটা ইউরোপ এবং অন্যান্য দেশ থেকে। সব মিলিয়ে বেশ একটা বহুজাতিক প্রোডাক্ট বলা যায় আইফোনকে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, iPhone 12 ও iPhone 12 Pro-এর বিক্রয়মূল্য নির্মাণ মূল্যের চেয়ে অনেকটা বেশি হলেও এর সবটা কিন্তু অ্যাপেলের পকেটে যায় না। প্রোডাক্টের মার্কেটিং, ট্রান্সপোর্ট, ট্যাক্স, সার্টিফিকেশন ইত্যাদি আরো বিভিন্ন কাজে অনেক অর্থ খরচ হয়। তারপর যেটুকু থাকে তাকে আমরা Apple-এর ব্র্যান্ডভ্যালু বলে ধরে নিতে পারি।