Homeঅ্যাপ্লিকেশনব্যান হতে পারে Rummy, Junglee সহ একাধিক বেটিং অ্যাপ, মোবাইলে গেম খেলে আয়ের দিন শেষ?

ব্যান হতে পারে Rummy, Junglee সহ একাধিক বেটিং অ্যাপ, মোবাইলে গেম খেলে আয়ের দিন শেষ?

দেশের যুবসমাজকে অনলাইন জুয়ার নেশামুক্ত করতে এবার এক বড়োসড়ো পদক্ষেপ নিতে চলেছে দক্ষিণ ভারতের এই রাজ্য।

বিগত কয়েক বছরে বিভিন্ন অ্যাপের মাধ্যমে অনলাইন জুয়া খেলা ভারতে বিপুল জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এর মধ্যে কিছু খেলা শুধুই মজা ও সময় কাটানোর জন্য হলেও চলতি সময়ে অনেকেই এই ধরনের গেম খেলে ঘরে বসে হাজার হাজার টাকা রোজগার করছেন। আর অনলাইনে খুব সহজেই উপলব্ধ হওয়ার পাশাপাশি মোবাইল এবং কম্পিউটারে অতি অনায়াসে খেলা যাওয়ায় তরুণ প্রজন্ম বর্তমানে এই ধরনের খেলাগুলির প্রতি চরমভাবে আসক্ত হয়ে পড়ছে। তাই দেশের যুবসমাজকে জুয়ার নেশামুক্ত করতে এবার এক বড়োসড়ো পদক্ষেপ নিতে চলেছে তামিলনাড়ু সরকার।

Rummy, Junglee সহ একাধিক বেটিং অ্যাপ বন্ধ করতে চলেছে তামিলনাড়ু সরকার

সম্প্রতি এক রিপোর্ট থেকে জানা গিয়েছে যে, অনলাইন জুয়া খেলা অর্থাৎ অনলাইন বেটিং গেম নিষিদ্ধ করার জন্য গত সোমবার তামিলনাড়ু মন্ত্রিসভায় একটি অধ্যাদেশ পাস করা হয়েছে। এখন তামিলনাড়ুর রাজ্যপালের অনুমোদন পেলেই (অর্থাৎ এই অধ্যাদেশটি গভর্নর দ্বারা স্বাক্ষরিত হলে) এটি একটি আইনে পরিণত হবে, যার সুবাদে সেখানে অনলাইন জুয়া খেলা সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ হয়ে যাবে। উল্লেখ্য যে, এই নিয়ে দ্বিতীয়বার অনলাইন গেম নিষিদ্ধ করার চেষ্টা করল তামিলনাড়ু সরকার। এর আগে ওই রাজ্যের সরকার অনলাইন গেম নিষিদ্ধ করার জন্য আবেদন করলেও মাদ্রাজ হাইকোর্ট সেটিকে প্রত্যাখ্যান করেছিল।

অবসরপ্রাপ্ত এক বিচারকের সুদীর্ঘ রিপোর্টের সুযোগ্য ব্যাখ্যায় টনক নড়েছে সরকারের

রিপোর্ট অনুযায়ী, উচ্চ আদালতের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতির তৈরি করা রিপোর্টের ভিত্তিতে চলতি সময়ে এই অর্ডিন্যান্স তৈরি করে পাস করিয়েছে তামিলনাড়ু সরকার। ৭১ বছর বয়সী হাইকোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি কে চন্দ্রু (K Chandru) ২০২২ সালের জুন মাসে সরকারের কাছে একটি রিপোর্ট জমা দেন। কীভাবে অনলাইন জুয়া খেলার তীব্র খারাপ প্রভাব পড়ছে ভারতের শিশু ও যুবকদের উপর, সে সম্পর্কে বিশদে তার ৭১ পৃষ্ঠার ওই রিপোর্টটিতে ব্যাখ্যা করেছিলেন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি মহাশয়।

অবসরপ্রাপ্ত বিচারকের সুদীর্ঘ রিপোর্টে করা আবেদন পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পড়ে অবশেষে বিষয়টির গুরুত্ব সম্পর্কে সরকারের টনক নড়ে। প্রকৃতপক্ষেই অনলাইন গেমগুলি সমাজকে কতটা খারাপভাবে প্রভাবিত করছে এবং ভবিষ্যতেও করবে, তা খুঁটিয়ে যাচাই করে দেখার জন্য সরকার বিভিন্ন স্কুল, শিক্ষা বিভাগ ও ই-মেইলের মাধ্যমে একাধিক সার্ভে করে এ সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য সংগ্রহ করে। এবং সবশেষে বিষয়টি যে প্রকৃতপক্ষেই যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ, তা অনুধাবন করে সরকার হালফিলে অবসরপ্রাপ্ত ওই বিচারপতির অনুরোধকে স্বীকৃতি দিয়ে বেশ কিছু অনলাইন গেম নিষিদ্ধ করার পরিকল্পনা করছে, যার মধ্যে রয়েছে Rummy Culture, Junglee Games, এবং Play Games24x7।

সমাজের সার্বিক উন্নতির লক্ষ্যে আগামী দিনে ব্যান হতে পারে আরও অনেক অ্যাপ

তবে এখানেই শেষ নয়, এছাড়াও এমন আরও অনেক গেম রয়েছে যেগুলি সরকার আগামী দিনে নিষিদ্ধ করতে পারে। অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতির রিপোর্টের ভিত্তিতে সরকারের করা সমীক্ষায় একথা স্পষ্টভাবে জানা গিয়েছে যে, ব্যাপক মাত্রায় অনলাইন জুয়া খেলার কারণে তরুণ-তরুণী ও শিশুদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা বাড়ছে। সবচেয়ে খারাপ ব্যাপার হল, শিশুদের মধ্যে এই ধরনের গেম খেলার নেশা এতটাই উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে যে, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এর জেরে তাদের বাবা-মাকে ঋণে জর্জরিত হয়ে যেতে হচ্ছে, যার ফলে শিশুদের পাশাপাশি তাদের অভিভাবকদের মনের ওপরেও ব্যাপক কুপ্রভাব পড়ছে। সেক্ষেত্রে তামিলনাড়ু সরকারের তরফে নেওয়া এই সাম্প্রতিক পদক্ষেপ যে সমাজের ব্যাপক কল্যাণসাধন করবে, সেকথা নিঃসন্দেহে বলাই বাহুল্য।

আরও পড়ুন