গাড়ি

30টি নতুন ফিচার-সহ লঞ্চ হয়ে গেল Hyundai Grand i10 Nios ফেসলিফ্ট, টেক্কর দেবে Maruti Swift-কে

ক’দিন আগেই Hyundai Motor তাদের অন্যতম জনপ্রিয় হ্যাচব্যাক গাড়ি Grand i10 Nios এর ফেসলিফ্ট সংস্করণ ভার্চুয়াল মাধ্যমে প্রকাশ্যে আনে। সেটি বার ভারতের মাটিতে আনুষ্ঠানিক ভাবে লঞ্চ করল দক্ষিণ কোরিয়ান সংস্থাটি। গাড়িটির নতুন ফেসলিফ্ট সংস্করণের দাম মূল্য শুরু হচ্ছে ৫.৬৮ লক্ষ টাকা থেকে শুরু হয়ে ৮.৪৬ লক্ষ টাকা (এক্স শোরুম) অব্দি গিয়েছে। Grand i10 Nios facelift এ বেশ কিছু ডিজাইনগত পরিবর্তন দেখা গিয়েছে। এছাড়াও ৩০টি নতুন ফিচার-সহ ২০টি নয়া সুরক্ষা বৈশিষ্ট্য স্ট্যান্ডার্ড ফিচার হিসাবে সংযুক্ত হয়েছে।

ডিজাইনের প্রসঙ্গে কথা বলতে গেলে Grand i10 Nios ফেসলিফ্ট মডেলে বসেছে নতুন স্টাইলের ফ্রন্ট বাম্পার এবং তার ঠিক মাঝখানেই রয়েছে ইঞ্জিনের ভেতর বাইরের ঠান্ডা বাতাস গ্রহণ করার ভেন্ট। আপডেটেড মডেলে আরও দেখা যাবে নয়া ডিজাইনের এলইডি ডিআরএল। নতুন ভাবে নকশা করা ১৫ ইঞ্চির ডায়মন্ড কাট অ্যালয় হুইল সহ সার্ক ফিন এন্টেনা এবং অন্য ধরনের টেললাইট লাগানো হয়েছে এতে।

গ্রান্ড আইটেন নিওস ফেসলিফ্ট ভার্সনের কেবিনে বেশ নতুনত্ব নিয়ে এসেছে ব্ল্যাক ও গ্রে রঙের ডুয়েল টোন কম্বিনেশন। স্টার্ট/স্টপ বাটন, উন্নত ইন্সট্রুমেন্ট কনসোল, ৮ ইঞ্চির টাচ স্ক্রিন যুক্ত ইমফোটেনমেন্ট সিস্টেম, অ্যাপেল কার প্লে এবং অ্যান্ড্রয়েড অটো সংযুক্তিকরণ, ফুটওয়েল লাইটিং, ওয়ারলেস ফোন চার্জিং, ইউএসবি টাইপ সি ফাস্ট চার্জার, কুল্ড গ্লাভবক্স, ক্লাইমেট কন্ট্রোল সহ পিছনের এসি ভেন্ট সমস্ত কিছুই দেখা যাবে গাড়িটিতে।

হুন্ডাইয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ফেসলিফ্ট মডেলে অন্তত ২০টির বেশি সেফটি ফিচার অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম প্রধান হল ৪টি এয়ার ব্যাগ। তবে গাড়িটির টপ এন্ড ভ্যারিয়েন্টে ৬টি এয়ার ব্যাগ, টায়ার প্রেসার মনিটরিং সিস্টেম, হিল স্টার্ট অ্যাসিস্ট, আইসোফিক্স(ISOFIX) অ্যাংকার মাউন্ট, অটো হেড ল্যাম্প এবং পার্কিং সেন্সর সহ রিয়ার ভিউ ক্যামেরা দেওয়া হয়েছে।

যদিও গাড়িটির প্রাণভোমরা হিসেবে আগের মতই বিশ্বস্ত ১.২ লিটারের পেট্রল ইঞ্জিন বর্তমান। অবশ্য এই ইঞ্জিন আগামীতে প্রযুক্ত RDE নীতির অনুসারী। এই মোটর ২০ শতাংশ ইথানল যুক্ত পেট্রোলেরক্ষ(E20) দ্বারা চালিত হওয়ার জন্য বিশেষভাবে টিউন করা হয়েছে। ইঞ্জিনটি থেকে ৮২ বিএইচপি এবং ১১৪ এনএম টর্ক উৎপাদিত হয়। সাথে রয়েছে পাঁচ ধাপযুক্ত ম্যানুয়াল এবং অটোমেটিক ট্রান্সমিশন ইউনিট।

অন্যদিকে, গাড়িটির সিএনজি ভার্সনের পাওয়ার ও টর্ক আউটপুট ৬৮ বিএইচপি ও ৯৫ এনএম। এক্ষেত্রে শুধুমাত্র ফাইভ স্পিড ম্যানুয়াল গিয়ার বক্স উপলব্ধ রয়েছে। হুন্ডাই দাবি করেছে, এর ম্যানুয়াল ভার্সনে প্রতি লিটার পেট্রোলে ২০.৭ কিমি পথ চলা সম্ভব। অন্যদিকে অটোমেটিক ট্রান্সমিশনযুক্ত ইঞ্জিনের থেকে ২০.১ কিমি/লিটার মাইলেজ মিলবে। ভারতের বাজারে Grand i10 Nios facelift এর সঙ্গে Suzuki Swift এর প্রতিযোগিতা চলবে।

Back to top button