স্কুটারের পর এবার ইলেকট্রিক বাইক, Ola-র সঙ্গে লড়াই জমিয়ে মেগা প্ল্যান Ather এর

Ather Energy Plans Launch Electric Motorcycle

ভারতের প্রথম সারির ইলেকট্রিক টু-হুইলার ব্র্যান্ড এথার এনার্জি (Ather Energy) খুব সম্প্রতি তাদের দ্বিতীয় কারখানার ফিতে কেটেছে। তামিলনাড়ুর হোসুরে ৩,০০,০০০০ বর্গফুট অঞ্চল জুড়ে গড়ে উঠেছে এটি। এসবের নেপথ্যে রয়েছে আগামীদিনে সংস্থার ইলেকট্রিক বাইক লঞ্চের পরিকল্পনা। যার প্রসঙ্গে তারা সর্বসমক্ষে জানিয়েছে। পাশাপাশি উৎপাদনের হার তিনগুণের বেশি বাড়ানোর লক্ষ্যমাত্রা গ্রহণ করেছে এথার।

তৃতীয় প্রজন্মের কারখানাটি এথারের বার্ষিক উৎপাদন ১,২০,০০০ থেকে বাড়িয়ে ৪,২০,০০০ করতে সহায়তা করবে। যেখানে বেঙ্গালুরুর সংস্থাটি বিভিন্ন সেগমেন্টে তাদের প্রোডাক্ট লঞ্চের ইচ্ছা প্রকাশ করেছে, সেখানে সংস্থার প্রধান ব্যবসায়িক আধিকারিক রবনীত সিং ফোকেলা পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন, যে ডেলিভারি এবং বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে মডেল লঞ্চের কোনো পরিকল্পনা তাঁদের নেই। আপাতত একটি ইলেকট্রিক বাইকের মডেলকে পাখির চোখ বানিয়ে এগোচ্ছে তারা। প্রসঙ্গত, আগামী বছরেই ইলেকট্রিক মোটরসাইকেল লঞ্চের ইঙ্গিত দিয়েছে তাদের প্রতিদ্বন্দ্বী ওলা।

নতুন কারখানাটিতে পরিবেশবান্ধব টু-হুইলার তৈরির পাশাপাশি ব্যাটারি উৎপাদনের জন্য আলাদা এসেম্বলি লাইন বানানো হয়েছে। যেখানে বছরে প্রায় ২,০০,০০০ ব্যাটারি উৎপাদন হবে। এই প্রসঙ্গে এথার এনার্জির সহ প্রতিষ্ঠাতা এবং সিটিও স্বপ্নিল জৈন জানিয়েছেন, “বিভিন্ন প্রক্রিয়া এবং যন্ত্রের উপর গভীর উদ্ভাবন এবং বিনিয়োগের মাধ্যমে এই কারখানাটি সেরা মানের যানবাহন তৈরি করে বাজারে আমাদের অবস্থান পাকাপোক্ত করতে সহায়তা করবে।”

হিরো মোটোকর্প এবং টাইগার গ্লোবাল – এই দুই সংস্থার বিনিয়োগপ্রাপ্ত এথারের নতুন কারখানায় ১০০+ বেশি স্মার্ট ডিভাইস, ৪৫টি কানেক্ট মেশিন, ১৫০টি কানেক্টেড ম্যানুয়াল স্টেশন এবং প্রায় ৪,০০০ প্যারামিটার রয়েছে। যাতে উৎপাদনের প্রক্রিয়া উন্নত করা যায়। প্রসঙ্গত, বর্তমানে ভারতের ৫২টি শহরে এথারের উপস্থিতি রয়েছে। ২০১৯ থেকে এখনও পর্যন্ত তারা প্রায় ৬৬,০০০ ইলেকট্রিক স্কুটার বিক্রি করেছে।