বাইকের চাহিদা কমছে, তাই এবার ইলেকট্রিক স্কুটারের আলাদা শোরুম খুলতে চলেছে Bajaj

Bajaj open exclusive showrooms for Chetak E-Scooter

ভারতে বৈদ্যুতিক যানবাহনের চাহিদা বাড়ার সাথে সাথে এদের গুরুত্বও বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে তটস্থ স্টার্টআপ থেকে মেইনস্ট্রিম সকল সংস্থা। এই যেমন বাজাজ (Bajaj) তাদের একমাত্র বৈদ্যুতিক স্কুটার Bajaj Chetak-এর চাহিদা বাড়তে দেখে সম্প্রতি আলাদা সাব ব্র্যান্ড গঠনের কথা ঘোষণা করেছে। নয়া সংস্থার নামকরণ করা হয়েছে – চেতক টেকনোলজি লিমিটেড বা সিটিএল (CTL)। বাজাজের এই নয়া পদক্ষেপ গ্রহণের নেপথ্যে রয়েছে চেতক ইভি-কে সম্পূর্ণ আলাদা ও বিশেষ ভাবে গুরুত্ব দেওয়ার অভিপ্রায়।

ওই সহযোগী সংস্থার আওতায় কেবলমাত্র Chetak বিক্রি করবে Bajaj। আগামী বছর থেকে শুধু ই-স্কুটারের জন্য আলাদা আউটলেট খুলবে তারা। এক্সক্লুসিভ শোরুমগুলিতে স্কুটারটি ডিসপ্লে করা থাকবে। এখান থেকে টেস্ট রাইড, বুকিং এমনকি চেতকের ডেলিভারি পাওয়া যাবে। ২০২৩-এর মার্চ অথবা এপ্রিল থেকে এক্সক্লুসিভ রিটেল স্টোরের সম্প্রসারণ ঘটানোর কাজ শুরু করবে বাজাজ। আবার ডিলারশিপগুলি চেতকের জন্য আলাদা সার্ভিস সেন্টার চালু করবে। যেখান থেকে রক্ষণাবেক্ষণ ও মেরামতের পরিষেবা পাওয়া যাবে।

প্রসঙ্গত, বর্তমানে ভারতের বেশ কিছু জায়গায় চেতকের পৃথক এক্সক্লুসিভ শোরুম রয়েছে। যেগুলি পুণে এবং থানেতে অবস্থিত। তবে মুম্বাইয়ের মতো কয়েকটি শহরে চেতক স্কুটারটি কেটিএম (KTM)-এর শোরুম থেকে বিক্রি করা হয়। ফলে বাজাজ এবং কেটিএম – উভয় সংস্থাকেই অসুবিধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এই হয়রানি দূর করতেই বাজাজের এই পদক্ষেপ।

উল্লেখ্য, ভারতে Bajaj Chetak কেবলমাত্র একটি ভ্যারিয়েন্টেই উপলব্ধ। যার মূল্য ১,৫১,৯৫৮ টাকা (এক্স-শোরুম)। এটি সিঙ্গেল ভ্যারিয়েন্টটি সম্পূর্ণ চার্জে ৯০ কিলোমিটার পথ দৌড়য়। এর সর্বোচ্চ গতিবেগ ৭০ কিমি প্রতি ঘন্টায়। ব্যাটারিটি সম্পূর্ণ চার্জ হতে প্রায় ৪ ঘন্টা সময় নেয়।