Royal Enfield এর ইতিহাসে কিন্তু প্রথমবার! Super Meteor 650 সম্পর্কে এই তথ্যগুলি জানা ছিল?

Royal Enfield Super Meteor 650 Top 5 Things

ইতালির মিলানে আয়োজিত EICMA 2022-র অনুষ্ঠানে আত্মপ্রকাশ করেছে রয়্যাল এনফিল্ড (Royal Enfield) এর বহু চর্চিত ত্রুজার বাইক সুপার মিটিওর ৬৫০(Super Meteor 650)। বেশ কয়েক মাস ধরেই মডেলটির টেস্টিং করার ছবি ধরা পড়েছিল স্পাই ক্যামেরায়। তবে ভারতের মাটিতে লঞ্চ হতে আরো কয়েকটা দিন অপেক্ষা করতে হবে। আগামী ১৮ নভেম্বর আরব সাগরের তীরে ছোট রাজ্য গোয়াতে আয়োজিত হবে রাইডার ম্যানিয়া (Rider Mania)। যেখানে প্রথমবার উন্মোচিত হবে ৬৫০ সিসির এই বাইকটি। এই প্রতিবেদনে সুপার মিটিওরের কয়েকটি অজানা দিক তুলে ধরা হল।

অতিরিক্ত ওজন, নিচু সিট

সম্পূর্ণ ক্রুজার ফ্যামিলির অন্তর্গত মিটিওর ৬৫০-এর সিটের উচ্চতা যথেষ্টই কম, মাত্র ৭৪০ মিমি। সব রকম উচ্চতার চালকদের কথা মাথায় রেখেই এই পথে হেঁটেছে তারা। তাছাড়াও বেশি ওজনের বাইকের উচ্চতা সাধারণত কমই থাকে। রয়্যাল এনফিল্ড-র এই মডেলটির ওজন ২৪১ কেজি, যা সাম্প্রতিককালে তৈরি সংস্থার সমস্ত মডেলের মধ্যেই সর্বাধিক। এর ফুটপেগের অবস্থান খানিকটা সামনে থাকায় রাইডার দীর্ঘ সময় আরামদায়ক ভঙ্গিতে যাত্রা করতে পারবেন। তবে প্রধান সমস্যা হল এর অত্যাধিক কম গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স। মাত্র ১৩৫ মিমি গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স ভারতবর্ষের মতো রাস্তার জন্য যথেষ্ট ঝুঁকিপূর্ণ।

দুটি ভ্যারিয়েন্ট

সদ্য লঞ্চ হওয়া সুপার মিটিওর ৬৫০ স্ট্যান্ডার্ড ও ট্যুরার এই দুটি সংস্করণে মিলবে। স্ট্যান্ডার্ড সংস্করণে রয়েছে অ্যাস্ট্রাল ও ইন্টারস্টিলার এই দুটি রঙের কম্বিনেশন। অন্যদিকে ট্যুরার সংস্করণটিতে মিলবে সেলেশ্চিয়াল রংয়ের প্রলেপ। এছাড়াও এতে রয়েছে বড় এবং স্বচ্ছ উইন্ডস্ক্রিন ও পিলিয়ন ব্যাকরেস্ট। অ্যাস্ট্রালের মধ্যে রয়েছে তিনটি পেইন্ট স্কিম, আর বাকি দুটির প্রত্যেকটিতে রয়েছে দুটি করে রঙের কম্বিনেশন। এই ভ্যারিয়েন্ট অনুযায়ী দাম ৪ লাখ টাকার আশেপাশে হতে পারে।

নতুন প্ল্যাটফর্ম

চেন্নাইয়ের এই নির্মাতার দাবি তাদের সুপার মিটিওর ৬৫০ বাইকটি সম্পূর্ণ নতুন ধরনের প্লাটফর্মের উপর নির্মিত, যা Interceptor 650 ও Continental GT650 এর চেয়ে খানিক বড়। এমনকি এতে রয়েছে লম্বা হুইলবেস। বাইকটির সামনে ১৯ ইঞ্চির চাকার সঙ্গে ১০০/৯০ সেকশনের টায়ার ও পিছনে ১৬ ইঞ্চির চাকার সঙ্গে ১৫০/৮০ সেকশনের টায়ার উপলব্ধ থাকবে। এছাড়াও এতে রয়েছে ৩০০ মিমি ডিস্ক ব্রেক।

ইতিহাসে প্রথমবার

সুপার মিটিওর ৬৫০-র সামনে রয়েছে শোয়া কোম্পানির ৪৩ মিমি ইউএসডি ফর্ক যা রয়্যাল এনফিল্ড-র ইতিহাসে প্রথমবার। সামনে দেওয়া হয়েছে এলইডি হেডলাইট। এছাড়াও মডেলটির স্ট্যান্ডার্ড সংস্করণে রয়েছে অ্যালুমিনিয়াম কাস্টিং যুক্ত সুইচ ক্লাস্টার এবং ট্রিপার নেভিগেশন সিস্টেম, যা সংস্থার ৬৫০ সিসির বাইকে প্রথম। এর উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্যগুলির মধ্যে রয়েছে স্লিপার ক্লাচ, ডুয়েল চ্যানেল এবিএস ও সেমি ডিজিটাল কনসোল।

ইঞ্জিন স্পেসিফিকেশন

সুপার মিটিওর ৬৫০-র ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়েছে রয়্যাল এনফিল্ড-র অতি জনপ্রিয় ৬৪৮ সিসির প্যারালাল টুইন এয়ার/অয়েল কুল্ড ইঞ্জিন। সর্বোচ্চ ৪৭ এইচপি শক্তি এবং ৫২ এনএম টর্ক উৎপন্ন হবে এতে। রয়্যাল এনফিল্ড-র দাবি, ২৫০০ আরপিএম গতিতেই সর্বোচ্চ ৮০ শতাংশ পর্যন্ত টর্ক মিলবে।