নতুন রঙে বাজারে এল Bajaj Pulsar NS200 এবং NS160 মোটরবাইক

bajaj-pulsar-ns200-and-ns160-get-new-colour-and-graphics-update

পুজোর মরসুমে বাজারে ক্রমবর্ধমান চাহিদার কথা মাথায় রেখে Bajaj তাদের জনপ্রিয় Pulsar সিরিজের NS200 এবং NS160 বাইকদুটিকে নতুন কালার এবং গ্রাফিক্সে আপডেট করলো। বাইকদুটি এখন নতুন বার্ট রেড (ম্যাট ফিনিশ), মেটালিক পার্ল হোয়াইট, পিউটার গ্রে এবং প্লাজমা স্যাটিন ব্লু রঙের বিকল্পে পাওয়া যাবে। এরই সাথে বাইকের অ্যালয় হুইল এবং পেরিমিটার ফ্রেমে সাদা রঙের উপস্থিতি রাখা হয়েছে। এছাড়া বাইকের সামনের এবং পেছনের ফেন্ডারে কার্বন ফাইভার টেক্সচার দেওয়া হয়েছে৷ পাশাপাশি Bajaj Pulsar NS200 এবং NS160 বাইকদুটির সিটের ওপর থাকছে হট স্ট্যাম্পিং প্যাটার্ন।

সম্প্রতি বাজাজ এই মডেলদুটির মূল্যবৃদ্ধি করেছিল। জানিয়ে রাখি, পরিবর্তিত হওয়া সেই একই দামে নতুন কালার অপশানে পালসারের NS (Naked Sport) সিরিজের এই দুটি বাইক বাজারে উপলব্ধ হবে। অর্থাৎ দাম না বাড়িয়েই বাইকে নতুন রঙ সংযুক্ত করা হয়েছে। Pulsar NS 200 বাইক কিনতে চাইলে পকেট থেকে খসাতে হবে ১,৩১,২১৯ টাকা। অপরদিকে Pulsar NS 160 মডেলটির দাম ১,০৮,৫৮৯ টাকা। (এক্স-শোরুম,দিল্লি)।

নতুন কালার এবং গ্রাফিক্স সংযুক্ত হওয়া ব্যতীত NS 200 ও NS 160 বাইকে কোনোরূপ পরিবর্তন আনা হয়নি। NS 200-এর প্রসঙ্গে আসলে আপনি এতে আছে ১৯৯.৫ সিসির ডিটিএসআই ইঞ্জিন। যা সর্বোচ্চ ২৪.৫ পিএস (১৮ কিলোওয়াট) পাওয়ার এবং ১৮.৫ এনএম টর্ক উৎপন্ন করতে পারে। এতে বাজাজের পেটেন্ট নেওয়া ট্রিপল স্পার্ক প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে যা বাইকটিকে আরও বেশী শক্তি, থ্রটল রেসপন্স ও পিক-আপ দেয়। এছাড়া উন্নত কুলিং সিস্টেম থাকার কারণে এর ইঞ্জিন অত্যন্ত উচ্চ তাপমাত্রায় সর্বোত্তম কার্যকারিতা সরবরাহ করতে সক্ষম।

বাইকের অগ্রভাগে দেওয়া হয়েছে টেলিস্কোপিক ফোর্ক সাসপেনশন এবং পশ্চাৎে রাখা হয়েছে নাইট্রোক্স মনোশক অ্যাবজর্বার। এছাড়া বাইকটির সামনে আছে ৩০০ মিমির ডিস্ক ব্রেক এবং পিছনে ২৩০ মিমির ডিস্ক ব্রেক। সাথে থাকছে সিঙ্গল চ্যানেল এবিএস। ১৫৬ কেজির এই বাইকে ফুয়েল ট্যাঙ্কের ক্যাপাসিটি ১২ লিটার।

অপরদিকে NS160 মডেলে বাজাজ দিয়েছে ১৬০.৩ সিসির অয়েল কুলড ইঞ্জিন। এর সর্বোচ্চ পাওয়ার এবং টর্ক আউটপুট যথাক্রমে ১৭.২ পিএস (১২.৭ কিলোওয়াট) এবং ১৪.৬ এনএম। এছাড়া আপনি পাচ্ছেন ২৬০ এমএম ফ্রন্ট এবং ২৩০ এমএম-এর ডিস্ক ব্রেক।