বড় সাফল্য, করোনা আক্রান্ত কিনা আগে ভাগেই জানাবে অ্যাপল স্মার্টওয়াচ

before-symptoms-appear-apple-watch-can-detect-covid-19-patient

কোন ব্যক্তি কোভিড আক্রান্ত কিনা তা জানার জন্য ডাক্তারেরা বর্তমানে সোয়্যাব টেস্টের সাহায্য নিয়ে থাকেন। তবে এবার থেকে বোধহয় কোনরকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই শরীরে কোভিড ভাইরাসের উপস্থিতি টের পাওয়া যাবে! না না মস্করা নয়, সাম্প্রতিক দুটি গবেষণার ওপর ভিত্তি করেই আমরা এই আশ্বাসবাণী প্রচার করছি। গবেষণা দুটির দাবী অ্যাপল স্মার্টওয়াচ (Apple Smartwatch) ব্যবহার করে যে কোন ব্যক্তি তার শরীরে কোভিডের পূর্বলক্ষণ গুলি আঁচ করতে পারবেন। এছাড়া পরীক্ষার দ্বারা নিশ্চিত হওয়ার আগে অ্যাপল স্মার্টওয়াচের সাহায্যে কোভিডের উপসর্গহীন রোগীদের শনাক্ত করা সম্ভব হবে।

যে দুটি গবেষণার কথা আমরা এখানে বলেছি তার মধ্যে প্রথমটি নিউ ইয়র্কের মাউন্ট সিনাই হেল্থ সিস্টেম এবং দ্বিতীয়টি ক্যালিফোর্নিয়ার স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটির তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয়েছে। এই দুটি গবেষণাই কোভিড আক্রান্ত রোগীকে চিহ্নিত করতে অ্যাপেল স্মার্টওয়াচের কার্যকারিতার প্রশংসা করেছে।

আসলে কোভিড ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হলে শরীরে বেশ কিছু সূক্ষ্ম পরিবর্তন সাধিত হয়। এই পরিবর্তনগুলি অনেকক্ষেত্রেই কোভিড সংক্রমণের বিষয়টি স্পষ্ট করে দিতে পারে। মাউন্ট সিনাই হেল্থ সিস্টেমের গবেষণা অনুযায়ী, কোভিড আক্রান্ত হলে আমাদের হৃদ কম্পন সাধারণ অবস্থার তুলনায় কিছুটা বেড়ে যায়। কোভিডের সমস্ত লক্ষণ ফুটে ওঠার অন্তত সাত দিন আগে আক্রান্তের হৃদ্ কম্পনে এই ধরনের পরিবর্তন বা বৃদ্ধি লক্ষ্য করা যায় যা অ্যাপল স্মার্টওয়াচ ব্যবহার করে শনাক্ত করা সম্ভব। গবেষণাটিতে স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত প্রায় তিনশো জন কর্মীর হৃদ্ কম্পনের বৈচিত্রকে বিশ্লেষণ করা হয়েছে। এই স্বাস্থ্যকর্মীরা সকলেই ২৯শে এপ্রিল ২০২০ থেকে ২৯শে সেপ্টেম্বর ২০২০ সময়পর্বের মধ্যে অ্যাপলের স্মার্টওয়াচ ব্যবহার করেছেন।

মাউন্ট সিনাই, নিউ ইয়র্ক সিটিতে অবস্থিত আইকান স্কুল অফ মেডিসিনের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর রব হার্টেন বলেছেন – ” যে সমস্ত মানুষ অসুস্থ এবং বিপন্ন বোধ করছেন, অথচ তাদের শরীরে বিশেষ কোন উপসর্গ নেই, তারা অ্যাপলের স্মার্টওয়াচ ব্যবহার করে নিজেদের শরীরে কোভিড সংক্রমণের আভাস পেতে পারেন। সুতরাং সংক্রামক রোগের সঙ্গে লড়াইয়ে এই ডিভাইস অত্যন্ত কার্যকর।”

এবার আসা যাক দ্বিতীয় গবেষণার কথায়। ফিটনেস ডিভাইস নির্মাতা ফিটবিট (Fitbit) এবং গার্মিন (Garmin) এই গবেষণাটিতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছেন। এক্ষেত্রে তারা অ্যাপলের স্মার্টওয়াচ ব্যবহারের পর কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রকাশ্যে এনেছেন। তারা খুব স্পষ্টভাবেই দেখিয়েছেন উপসর্গ প্রকট হয়ে ওঠার অন্তত ৯.৫ দিন আগে থেকে অসুস্থ ব্যক্তির হৃদ্ কম্পনে বিশেষ পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। অ্যাপল স্মার্টওয়াচ রোগীর শরীরের এই পরিবর্তন গুলি চিহ্নিত করতে সক্ষম।

এছাড়া স্ট্যানফোর্ডের গবেষকেরা Apple ডিভাইসের সঙ্গে একটি অ্যালার্ম সিস্টেম যুক্ত করেছেন। রোগীর হৃদ্ কম্পন অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে গেলে এবং দীর্ঘক্ষণ সেই অবস্থা বজায় থাকলে এই অ্যালার্ম রোগীকে সচেতন করবে। হার্ট রেটের সাধারণ ওঠানামায় অবশ্য অ্যালার্মটি কাজ করবেনা। একমাত্র গুরুত্বপূর্ণ এবং অস্বাভাবিক পরিবর্তন হলে তবেই অ্যালার্মটি রোগীকে সচেতন করবে। এর ফলে ঠিক কোন মুহূর্তে একজন অসুস্থ ব্যক্তি অপরের সংস্রব ত্যাগ করে সকলের থেকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখবেন তা বুঝতে পারবেন।