15 হাজার টাকার কমে সেরা মোবাইল ফোন, পাবেন 50 মেগাপিক্সেল ক্যামেরা সহ 6000mAh পর্যন্ত ব্যাটারি

১৫,০০০ টাকার নিচে উপলব্ধ ৪টি সেরা স্মার্টফোনের তালিকা দেখে নিন, পাবেন ৫০ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা সহ ৬,০০০ এমএএইচ ব্যাটারি

best-50mp-camera-6000mah-battery-phone-under-15000

ভারতের বাজারে বিভিন্ন ধরনের স্মার্টফোনের সম্ভার মজুত রয়েছে। মূলত গ্রাহকদের চাহিদার উপর ভিত্তি করেই বিভিন্ন প্রকারের স্মার্টফোন লঞ্চ করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে একটি নতুন স্মার্টফোন কেনার ক্ষেত্রে আপনার চাহিদা যদি উন্নত ক্যামেরা ফ্রন্ট এবং শক্তিশালী ব্যাটারি হয়, তাহলে এই প্রতিবেদন আপনার জন্যই। কারণ, আজ আমরা এখানে এমন কয়েকটি স্মার্টফোনের খোঁজ দেব, যাতে ৫০ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ এবং ৬,০০০ এমএএইচ পর্যন্ত ব্যাটারি পেয়ে যাবেন আপনারা। আর, এগুলির দাম ১৫,০০০ টাকার মধ্যেই থাকবে। আসুন তাহলে এই তালিকায় কোন কোন মডেল সামিল আছে, তা দেখে নেওয়া যাক এবার।

১৫,০০০ টাকার নিচে উপলব্ধ ৪টি সেরা স্মার্টফোনের তালিকা (Top 4 Best smartphones available under Rs 15,000)

Redmi 10 Prime: ১২,৪৯৯ টাকা

রেডমি ১০ প্রাইম স্মার্টফোনে রয়েছে একটি ৬.৫ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস ডিসপ্লে। উন্নত পারফরম্যান্সের জন্য এতে মিডিয়াটেক হেলিও জি৮৮ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। আর অপারেটিং সিস্টেম হিসাবে ফোনে অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক এমআইইউআই ১২.৫ কাস্টম স্কিন পাওয়া যাবে। এতে কোয়াড রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ বর্তমান। এই ক্যামেরাগুলি হল, ৫০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ৮ মেগাপিক্সেল আল্ট্রা-ওয়াইড অ্যাঙ্গেল সেন্সর, ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো লেন্স, এবং ২ মেগাপিক্সেল ডেপ্থ সেন্সর। আর ডিসপ্লের উপরিভাগে থাকছে ৮ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা। এতে ৬,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে, যা ৯ ওয়াট রিভার্স চার্জিং এবং ১৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং টেকনোলজি সাপোর্ট করে।

Realme 8i: ১৪,৯৯৯ টাকা

রিয়েলমি ৮আই স্মার্টফোনে রয়েছে ১২০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট ও ১৮০ হার্টজ টাচ স্যাম্পলিং রেট সহ একটি ৬.৬ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস LCD ডিসপ্লে। সাথে থাকছে মিডিয়াটেক হেলিও জি৯৬ প্রসেসর। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক রিয়েলমি ইউআই ২.০ কাস্টম স্কিন চালিত। ক্যামেরা ফ্রন্টের কথা বললে, এই ফোনের রিয়ার প্যানেলে ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ দেওয়া হয়েছে। যার প্রাইমারি সেন্সর ৫০ মেগাপিক্সেলের, সেকেন্ডারি সেন্সর হিসাবে থাকছে ২ মেগাপিক্সেলের মনোক্রোম পোট্রেট সেন্সর এবং তৃতীয়টি হল ২ মেগাপিক্সেলের ম্যাক্রো লেন্স। একই সাথে, সেলফি ও ভিডিও কলিংয়ের জন্য এতে ১৬ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট-ফেসিং ক্যামেরা উপলব্ধ। পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য রিয়েলমির এই ফোনে ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে, যা ১৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট করে।

Infinix Note 11: ১২,৪৯৯ টাকা

অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক এক্সওএস কাস্টম ওএস চালিত ইনফিনিক্স নোট ১১ ফোনে আছে ৬.৭ ইঞ্চি ফুল এইচডি প্লাস (১,০৮০x২,৪০০ পিক্সেল) অ্যামোলেড ডিসপ্লে। এই ডিসপ্লে ১৮০হার্টজ টাচ স্যাম্পলিং রেট অফার করবে। এই ফোনে ব্যবহার করা হয়েছে ২ গিগাহার্টজ ক্লক রেটের অক্টা-কোর মিডিয়াটেক হেলিও জি৮৮ প্রসেসর। ফটোগ্রাফির জন্য নোট ১১ সিরিজের এই ফোনে ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ বর্তমান। এই ক্যামেরাগুলি হল, ৫০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ২ মেগাপিক্সেল বোকেহ লেন্স ও একটি এআই লেন্স। সিকিউরিটির জন্য এতে সাইড মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর ও ফেস আনলক ফিচার উপলব্ধ। পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য ডুয়েল সিমের এই ফোনে পাওয়া যাবে ৩৩ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট সহ ৫,০০০ এমএএইচ ব্যাটারি।

Realme Narzo 50A: ১১,৪৯৯ টাকা

রিয়েলমি নারজো ৫০এ ফোনে একটি ৬.৫ ইঞ্চির এইচডি প্লাস (৭২০x১,৬০০ পিক্সেল) ডিসপ্লে দেওয়া হয়েছে, যার এসপেক্ট রেশিও ২০:৯ এবং স্ক্রিন-টু-বডি রেশিও ৮৮.৭%। এই ডিসপ্লের ডিজাইন ওয়াটার ড্রপ নচ, যার কাটআউটের মধ্যে ৮ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা দেওয়া হয়েছে। আবার, ফোনের রিয়ার প্যানেলে ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ দেখা যাবে। এই ক্যামেরাগুলি হল, ৫০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ২ মেগাপিক্সেল ব্ল্যাক এন্ড হোয়াইট সেন্সর ও ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো সেন্সর। উন্নত পারফরম্যান্স ও মাল্টিটাস্কিংয়ের জন্য নারজো ৫০এ ফোনে, আর্ম মালি জি৫২ জিপিইউ সহ মিডিয়াটেক হেলিও জি৮৫ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। এটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক রিয়েলমি ইউআই ২.০ কাস্টম ওএস ভার্সন চালিত। পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য এতে, ১৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট সহ ৬,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি দেওয়া হয়েছে। এই ব্যাটারি ৫৩ দিন স্ট্যান্ডবাই, ৪৮ ঘন্টা কলিং, ২৭ ঘন্টা ইউটিউব ও ৮ ঘন্টা গেমিং টাইম অফার করবে বলে রিয়েলমি দাবি করেছে।

শুভেচ্ছা বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী। তিনি একদিকে যেমন ফটোগ্রাফার, তেমনি পাশাপাশি লেখিকাও। এছাড়াও তার শখের মধ্যে আছে বই পড়া, গান গাওয়া, ছবি আঁকা এবং ওয়েব ডিজাইন। শুভেচ্ছা আমাদের টেকগাপ পরিবারের একজন নতুন সদস্য।