Cryptocurrency: ছিলেন ‘কোটিপতি’, ছোট্ট ভুলে ‘দেউলিয়া’ হলেন এই ব্যক্তি

প্রাথমিক ভাবে এই ব্যবহারকারীটি $ ২০,০০০ (ডলার) ক্রিপ্টোতে বিনিয়োগ করেছিলেন

british-men-lose-2-7-million-cryptocurrency-share-reddit-after-a-simple-mistake

ক্রিপ্টোকারেন্সি নিয়ে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক স্তরে চলতে থাকা অস্থিরতার মধ্যেই প্রকাশ্যে উঠে এলো ক্রিপ্টো তে ভরাডুবির ঘটনা। সম্প্রতি, কিছু ব্রিটিশ ট্রেডার, রেডিট (Reddit) অ্যাপে পাঠকদের সাথে ভাগ করে নিয়েছেন ক্রিপ্টো বিনিয়োগে তাদের দুর্ভাগ্যজনক পরিণতির কথা।

টোমোকো স্লেনকার্ড (Tomoko Slankard) নামে এক ব্রিটিশ ট্রেডার লেখেন, যেই সিড ফ্রেজের (Seed phrase) মধ্যে তিনি তার বিটকয়েন সঞ্চয় সুরক্ষিত রাখতেন, সেটি চুরি হয়ে যায়। তিনি আরও জানান, দুষ্কৃতিরা তার সার্ভারটি হ্যাক করে ৩৩টি বিটকয়েন নিয়ে পালিয়ে যায়, বর্তমান সময়ের হিসেবে, যার মোট মূল্য $ ১.৮ মিলিয়ন (ডলার)।

পাসওয়ার্ড কিভাবে চুরি হল, সেই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তার ব্যাক আপ সার্ভার টি হ্যাক করা হয়। দুর্ভাগ্যের শিকার এই ট্রেডারটি অ্যাপের সংশ্লিষ্ট অংশটিতে লেখেন, ‘সবার ক্রিপ্টো লাভের গল্প শোনার বদলে আমি এবার ক্রিপ্টো- ত্রাসের একটি ঘটনা ভাগ করে নিতে চাই (যদিও এমনটা একেবারেই নয় যে আমি লাভ করতে পছন্দ করি না)।’

প্রাথমিক ভাবে এই ব্যবহারকারীটি $ ২০,০০০ (ডলার) ক্রিপ্টোতে বিনিয়োগ করেছিলেন। যদি চুরির ঘটনা না ঘটতো তবে তিনিও সম্ভবত আজ মিলিওয়ানিদের তালিকায় থাকতেন, এমনই আক্ষেপ ফুটে ওঠে স্লেনকার্ডের বক্তব্যে।

চলতি বছরের শুরুতে ক্রিপ্টো কারেন্সি সাবরেডিট (Subreddit) ব্যবহারকারী, কাপোজুইস (Cupojuice), অ্যাপের একটি বিভাগে ‘আপনার ক্রিপ্টো সম্পর্কে সবচেয়ে ভীতিজনক অভিজ্ঞতা কি?’ এই শিরোনামে ১৩ কোটি ব্যবহারকারীদের কাছে তাদের ক্রিপ্টো সম্পর্কিত দুর্ভাগ্যের কাহিনী জানতে চেয়ে পোস্ট করেন। প্রসঙ্গত, তিনি নিজেও ২০১৪ নাগাদ ১ মিলিয়ন সংখ্যক ডোজকয়েন ($ ১৭০,০০০) হারিয়েছিলেন। যদিও তা ছিল স্লেনকার্ডের ক্ষতির তুলনায় সামান্য।

Bks১৯৮১ নামের আর এক ব্যবহারকারীও একদিনের ব্যবধানে পোর্টফোলিওর ৮০% হারানোর অভিজ্ঞতা ভাগ করে নেন।

স্লেনকার্ডের নেতিবাচক কাহিনীতে ব্যবহারকারীদের মিশ্র প্রতিক্রিয়া উঠে এসেছে। বেশীরভাগ ব্যবহারকরীরা সহানুভূতি প্রকাশ করলেও, কেউ কেউ তার দায়িত্বজ্ঞানহীনতাকেও এই ক্ষতির জন্য দায়ী করেছেন।

ক্রিপ্টো মার্কেটের বর্তমান অস্থিতিশীল পরিস্থিতির মধ্যেই ব্রিটিশ ট্রেডারদের মধ্যে ঘটে যাওয়া ক্রিপ্টো সম্পর্কিত এই সব নেতিবাচক ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছে। সূত্রের খবর অনুযায়ী, বিটকয়েনের বাজার মূল্য সাম্প্রতিক কালে ৬৯,০০০ ডলারের সর্বকালীন সর্বোচ্চ রেকর্ড থেকে সরে এসে ৫৭,০০০ ডলারের গন্ডিতে নেমে গেছে।

চূড়ান্ত অস্থিতিশীল ও অনিয়ন্ত্রিত মাধ্যমে নিজের সমস্ত সঞ্চয় বিনিয়োগ করলে পরিণতি কি হতে পারে, তার জলজ্যান্ত উদাহরণ হিসেবে উপরের ঘটনাগুলি নেওয়া যেতে পারে। ক্রিপ্টোগ্রাফি বিনিয়োগ ক্ষেত্রে একটি অত্যন্ত ঝুঁকিজনক মাধ্যম যার গতিবিধি অনেক ক্ষেত্রেই আগে থেকে আঁচ করা যায় না। এই কারণেই, বিশেষজ্ঞরা ক্রিপ্টো বিনিয়োগের আগে ব্যবহারকারীদের বিনিয়োগকৃত টাকার নিরাপত্তা সম্পর্কে যথেষ্ট সতর্কবার্তা শুনিয়ে থাকেন।

AG Bell-এর বিনিয়োগ বিভাগের প্রধান লইত খালাফ (Laith Khalaf) এই প্রসঙ্গে বলেন, যদি কোনো বিনিয়োগ মাধ্যম রাতারাতি ১০০% এরও বেশী লাভ দিতে পারে, তবে রাতারাতি সেই একই হারে ক্ষতির সম্মুখীন করানোটাও খুব একটা আশ্চর্যজনক নয়। সুতরাং, সবসময় ক্রিপ্টো বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সবচেয়ে নিরাপদ ও বুদ্ধিমান পদক্ষেপ হল স্বল্প ও সীমিত পরিমাণ টাকা বিনিয়োগ করা যা চোট হলে বিনিয়োগকারীকে সর্বশান্ত হতে হবে না।

টেকগাপের মেম্বাররা ও সদ্য যোগ দেওয়া লেখকরা এই প্রোফাইলের মাধ্যমে টেকনোলজির সমস্ত রকম খুঁটিনাটি আপনাদের সামনে আনে।