Bitcoin: নিয়ন্ত্রণ চাইলেও ভারতে ক্রিপ্টোকারেন্সি ব্যানে সায় নেই বিশেষজ্ঞদের

ক্রিপ্টোকারেন্সির বহুল মাত্রায় জনপ্রিয়তা ও বিনিয়োগক্ষেত্রে সুদুরপ্রসারি প্রভাব কে ছাপিয়ে দেশে ক্রিপ্টো ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা জারি যে মোটেই যুক্তিসম্মত হবে না, সে বিষয়েই আগেই স্থির সিদ্ধান্তে পৌঁছেছিল কেন্দ্র

cant-stop-cryptocurrency-but-must-be-regulated-finance-panel-and-industry-agree

শনিবার, নয়াদিল্লীতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর (Narendra Modi) সভাপতিত্বে ডিজিটাল মুদ্রা সম্পর্কিত একটি উচ্চস্তরের বৈঠক আয়োজিত হওয়ার পর, ফের একবার ক্রিপ্টো নিয়ে সংসদীয় কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হল। এটি সম্ভবত ক্রিপ্টোৈ-অর্থনীতি নিয়ে পার্লামেন্টারি সংসদীয় কমিটির তরফে আয়োজিত সর্বপ্রথম বৈঠক।

বিজেপি নেতা তথা প্রাক্তন কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী শ্রী জয়ন্ত সিনহার ( jayanta Sinha) নেতৃত্বাধীন পার্লামেন্টের অর্থনীতি বিষয়ক স্ট্যান্ডিং কমিটি এদিন বিভিন্ন ক্রিপ্টো এক্সচেঞ্জ প্ল্যার্টফর্মের প্রতিনিধি, ব্লকচেন অ্যান্ড ক্রিপ্টো অ্যাসেট কাউন্সিল (BACC), বিভিন্ন শিল্পসংস্থা ও অন্যান্য স্টেকহোল্ডারদের সাথে দেশে ক্রিপ্টো মুদ্রার বাড়বাড়ন্ত ও নিয়ন্ত্রণ বিষয়ে দীর্ঘক্ষণ আলোচনায় বসে। দেশে ক্রিপ্টো বিনিয়োগ ক্ষেত্রে ভবিষ্যত সম্ভাবনা ও ঝুঁকির প্রশ্নে নানা গুরুত্বপূর্ণ মতামত রাখেন সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রের বিশেষজ্ঞরা।

ক্রিপ্টোকারেন্সির বহুল মাত্রায় জনপ্রিয়তা ও বিনিয়োগক্ষেত্রে সুদুরপ্রসারি প্রভাব কে ছাপিয়ে দেশে ক্রিপ্টো ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা জারি যে মোটেই যুক্তিসম্মত হবে না, সে বিষয়েই আগেই স্থির সিদ্ধান্তে পৌঁছেছিল কেন্দ্র। তবে, অনিয়ন্ত্রিত মাধ্যমে ক্রিপ্টোর লেনদেনে বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ কতটা সুরক্ষিত সে বিষয়ে প্রয়োজন কড়া নজরদারির। এছাড়া ব্যাং এর ছাতার মতো রাতারাতি গজিয়ে ওঠা বিজ্ঞাপনস্বর্বস্ব ক্রিপ্টো প্ল্যার্টফর্ম গুলিকেও অবিলম্বে নিয়ন্ত্রণে আনা দরকার। তাই সরাসরি নিষেধাজ্ঞার পথে না হেঁটে আপাতত কৌশলী নিয়ন্ত্রণেই ভরসা রাখতে চাইছেন বৈঠকে উপস্থিত সংসদীয় কমিটির অধিকাংশ সদস্য। যদিও, নিয়ন্ত্রণের পদ্ধতি নিয়ে এখনও রয়ে গেছে ধোঁয়াশা।

সমাজে বিনিয়োগক্ষেত্রে বিভিন্ন স্তরের মানুষদের নিয়ে আয়োজিত ক্রিপ্টো সম্পর্কিত এই বৈঠকের মূল তাতপর্যপূর্ণ বিষয় ছিল বিনিয়োগকারীদের সুরক্ষা। এদিনের বৈঠকের আগে, সংবাদ সংস্থা, PTI- কে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে বিজেপি নেতা জয়ন্ত সিনহা (Jayanta Sinha) জানান, ‘আমরা নামীদামী ক্রিপ্টো এক্সচেঞ্জগুলির প্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রের বিভিন্ন স্টেকহোল্ডারদের এদিনের মিটিংয়ে আমন্ত্রণ জানিয়েছি। পাশাপাশি উপস্থিত থাকবেন সি আই আই ও আই আই এম এর কিছু অভিজ্ঞ শিক্ষাবিদও, যাঁরা ক্রিপ্টো অর্থনীতি বিষয়ে বিশদে গবেষণা করেছেন’।

সূত্রের খবর অনুযায়ী, আসন্ন বাজেটে ক্রিপ্টো সংক্রান্ত একটি বিল পার্লামেন্টের সামনে পেশ করার পরিকল্পনা করছে সরকার। অতীতে একবার রিজার্ভ ব্যাংক ক্রিপ্টোকারেন্সি নিষিদ্ধকরণে উদ্যোগী হলেও, সুপ্রিমকোর্টের হস্তক্ষেপে তা পরে খারিজ হয়ে যায়। কিছুদিন পূর্বে, রিজার্ভ ব্যাংক অফ্ ইন্ডিয়া ও সেবির তরফেও ক্রিপ্টো মুদ্রার বিপজ্জনক প্রভাব সম্পর্কে মানুষকে সতর্ক করা হয়েছে। তবে এ সবকিছুর পরেও, দেশজুড়ে কার্যত অবাধে চলেছে ক্রিপ্টো লেনদেন। তবে, বিপুল জনপ্রিয়তা সত্ত্বেও অনিয়ন্ত্রিত চলাচলের কারণে ঝুঁকির আশঙ্কাও বাড়ছে পাল্লা দিয়ে। পাশাপাশি জালিয়াতি, সন্ত্রাস তহবিলের মতো অপরাধের সম্ভাবনাও মাথাচাড়া দিয়ে বসছে। বিশেষজ্ঞ মহলের মতে শীঘ্রই ডিজিটাল কারেন্সির এই বাড়বাড়ন্তে নিয়ন্ত্রণের প্রতিরোধ গড়ে তোলা প্রয়োজন।

এদিনের বৈঠকে উপস্থিত সমস্ত প্রতিনিধিরা বিভিন্ন বিষয়ে ফলপ্রসূ সিদ্ধান্তে পৌঁছালেও, ক্রিপ্টো মুদ্রা নিয়ন্ত্রণের সম্ভাব্য পদ্ধতি সম্পর্কে তারা কিছুই স্পষ্ট করে জানাননি, এমনটাই জানা যাচ্ছে।

টেকগাপের মেম্বাররা ও সদ্য যোগ দেওয়া লেখকরা এই প্রোফাইলের মাধ্যমে টেকনোলজির সমস্ত রকম খুঁটিনাটি আপনাদের সামনে আনে।