সাবধান! কোভিড ভ্যাকসিনের জন্য ফোনে কল এলে ভুলেও শেয়ার করবেন না ওটিপি

covid-vaccination-otp-scam-dont-share-otp-aadhaar-card-details-pib-fact-check

প্রযুক্তি যত উন্নত হচ্ছে ততই বাড়ছে জালিয়াতির ফন্দি-ফিকির! প্রায়ই নতুন পন্থা বের করে সাধারণ মানুষকে ফাঁদে ফেলার চেষ্টা করছে দুরাভিসন্ধীরা। সামান্য অসাবধান হলেই অযথা হয়রানির এমনকি সর্বস্বান্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকছে। এমনিতে ব্যাংকের কার্ড সংক্রান্ত ইস্যু কিংবা মোবাইল টাওয়ার বসানোর কথা বলে বোকা বানানো হচ্ছে এমন কথা আমরা আকছার শুনে থাকি। কিন্তু যদি বলি এবার করোনার টিকাকরণকে কেন্দ্র করে পাতা হচ্ছে জালিয়াতির ফাঁদ, তাহলে হয়তো আপনাদের কপালেও চিন্তার পুরু ভাঁজ পড়বে। সেক্ষেত্রে যদি আপনার ফোনে কোভিড ভ্যাকসিনের জন্য আধার নম্বর এবং ওটিপি যাচাইয়ের কল আসে, তবে সাবধান!

পিআইবি (প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরো) ফ্যাক্টচেক-এর সাম্প্রতিক টুইট পোস্ট অনুযায়ী, নিরীহ নাগরিকদের ফাঁদে ফেলতে এমনই একটি নতুন কৌশল গ্রহণ করেছে স্ক্যামাররা। এই নতুন স্ক্যামে জালিয়াতরা নিজেদের ভারতের ড্রাগ কর্তৃপক্ষের অংশ হিসেবে পরিচয় দিয়ে ফোন করছে। ওই ফোন কলে, প্রবীণ নাগরিকদের কোভিড ভ্যাকসিন বরাদ্দের জন্য তাদের ব্যক্তিগত বিবরণ জানাতে এবং আধার কার্ড নম্বর নিশ্চিত করতে বলা হচ্ছে। সাধারণ মানুষ উল্লিখিত ব্যক্তিগত তথ্য শেয়ার করার পর, ভিক্টিমদের মোবাইল নম্বরে প্রাপ্ত ওটিপি কোড শেয়ার করার অনুরোধ করছে ওই স্ক্যামাররা।

তদুপরি, প্রতারকরা ভিক্টিমদের কিছু টাকা দিয়ে রেজিস্ট্রেশন (পে অ্যান্ড রেজিস্টার) করালেই করোনার ভ্যাকসিন অগ্রাধিকার মিলবে এমন টোপ দিচ্ছে বলেও জানা গিয়েছে। পিআইবি ফ্যাক্টচেক, তার অফিসিয়াল টুইটার হ্যান্ডেলের মাধ্যমে স্পষ্ট করে জানিয়েছে যে এই ধরণের ফোন কল সম্পূর্ণ ভুয়ো। তাই নাগরিকদের কোনো অপরিচিত ফোন কলে ব্যক্তিগত তথ্য বা ওটিপি শেয়ার করার ক্ষেত্রেও সতর্ক করেছে সংস্থাটি।

জানিয়ে রাখি ‘ড্রাগ অথরিটি অফ ইন্ডিয়া’ নামে কোনো অনুমোদিত বা লাইসেন্স প্রাপ্ত সংস্থা নেই। এক্ষেত্রে ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া (DCGI) নামক অনুমোদিত সংস্থাটি, দেশে ওষুধ ও চিকিৎসা ডিভাইসগুলিকে ছাড়পত্র এবং লাইসেন্স দেয়। তাই কোনোভাবেই এই ধরণের ভুয়ো ফোন কলের বার্তায় বিশ্বাস করবেন না। কোভিড-১৯ টিকাকরণ সম্পর্কে তথ্য পেতে সরকারি নির্দেশিকাগুলি অনুসরণ করুন।