ক্রিপ্টোকারেন্সিতে মজে বিশ্ব, এই প্রথম মার্কেট ভ্যালু ছাড়ালো ২ লক্ষ কোটি টাকা

ক্রিপ্টোকারেন্সির মার্কেট ভ্যালু তিন ট্রিলিয়নের (প্রায় ২,২২,২৬,৩৮৫ কোটি ) গন্ডি ছাড়িয়েছে

crypto-market-value-touch-usd-3-trillion-for-the-first-time

সোমবার রেকর্ড হারে মূল্য বৃদ্ধি ঘটিয়ে তিন ট্রিলিয়ন ডলারের (প্রায় ২,২২,২৬,৩৮৫ কোটি টাকা) গন্ডি ছাড়ালো ক্রিপ্টোকারেন্সির বাজার, যা এখনও পর্যন্ত ক্রিপ্টো দুনিয়ার ইতিহাসে সর্বোচ্চ। বিনিয়োগকারীদের রাতিরাতি দৃষ্টি আকর্ষণ ক্রিপ্টো মুদ্রার এ ধরনের তাতক্ষণিক মূল্যবৃদ্ধিতে ইন্ধন জুগিয়েছে ,এমনটাই মনে করা হচ্ছে। সম্প্রতি SwissQuote analyst আইপেক ওজকারদেশকায়া, অর্থনৈতিক বাজারে ক্রিপ্টোর ক্রমবর্ধমান উন্নতির কথা বলতে গিয়ে ফ্রান্সের সংবাদসংস্থা ‘AFP’ কে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে জানান, বিশ্ববাজারের চিরাচরিত অর্থনৈতিক কাঠামো তে ধীরে ধীরে জায়গা পাকা করে নিচ্ছে ডিজিটাল মুদ্রা।

গত মাসে ,বিশ্বের সবচেয়ে দামি ক্রিপ্টো মুদ্রা, বিটকয়েন এর মূল্য ৬৬,০০০ ডলারে (প্রায় ৪৮.৮৯ লাখ) পৌঁছায়। সোমবারের হিসেব অনুযায়ী, বিটকয়েনের বর্তমান মূল্য ৫.৫ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ৬৬,৩৩৯ ডলারে চলছে, যা তার পূর্বকৃত রেকর্ড ৬৭,০০০ ডলার এর প্রায় ছুঁইছুঁই। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মূল্যবান মুদ্রা, ইথেরিয়ামও ৩% দাম বাড়িয়ে ৪,৭৬৮ ডলারের নতুন উচ্চতায় এসে পৌঁছেছে। কয়েন গিগকো-র নির্ধারিত মূল্য অনুযায়ী, তৃতীয় এবং চতুর্থ বৃহত্তম ক্রিপ্টো টোকেন বিনান্স ও সোলানার বাজার মূল্যও গত সাত দিনে ২০ শতাংশের বেশি বেড়েছে। সাতটি বৃহত্তম ক্রিপ্টো টোকেনের সবকটিরই মূল্য গত সপ্তাহে বেশ কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে।

অতীতে, ‘এক্সচেঞ্জ ট্রেডেড ফান্ড’ (ETF) নামে বিটকয়েন এর ভবিষ্যত নির্ধারক এক অর্থনৈতিক সরঞ্জাম, ‘নিউ ইয়র্ক স্টক এক্সচেঞ্জে'(NYSE) আত্মপ্রকাশ করে। এই ETF সম্ভবত আরও বেশী সংখ্যক বিনিয়োগকারীর কাছে বিটকয়েন কে সহজলভ্য করে তুলেছে। ক্রিপ্টো এক্সচেঞ্জ এএএক্স এর গবেষণা ও কৌশলের প্রধান, বেন ক্যাসোলিনের মতে, বিটকয়েনের বর্তমান সাফল্য ETF এর মার্কিন ট্রেডিংয়ে আত্মপ্রকাশের সঙ্গে অনেকাংশেই সংযুক্ত।

তবে, স্বল্প মেয়াদী সময়ে মূল্যের ওঠা নামার ওপর ভিত্তি করে কোনো ঘটনা বিচার করা যুক্তিসম্মত নয়। পাশাপাশি, ক্রিপ্টো মুদ্রার মূল্য চূড়ান্ত অস্থিতিশীল। ইতিমধ্যে একাধিকবার বাজার দরে কঠোর উত্থান পতনের সম্মুখীন হতে দেখা গিয়েছে ভার্চুয়াল কারেন্সি কে। তবে তা সত্ত্বেও ,আগামী সপ্তাহেও বিটকয়েন, ইথাররা বাজার মূল্যের ঊর্ধ্বমুখী ট্রেন্ড ধরে রাখতে পারে বলে আশ্বাসবাণী বিশ্নেষকদের।

পরবর্তী সপ্তাহে বিটকয়েনে ট্যাপ রুট নামে একটি সফট্ওয়ার আপডেট যুক্ত হতে চলেছে, যা লেনদেনের ক্ষেত্রে নিরাপত্তা এবং দক্ষতা দুইই বৃদ্ধি করবে, এবং স্মার্ট কনট্রাক্টের দরজাও খুলে দেবে, যা ব্লকচেন প্রযুক্তির একটি অন্যতম প্রধান বৈশিষ্ট্য। অন্য দিকে, ইথেরিয়াম ২.০, ইথেরিয়াম ব্লকচেনের সাথে সম্পর্কিত একগুচ্ছ আপডেট, ইথারের ব্যবহার আরও নিরাপদ, মাপযোগ্য ও মজবুত করেছে। এই প্রযুক্তি কেবল ইথেরিয়াম নেটওয়ার্কের জন্য নয়, গোটা ক্রিপ্টো কমিউনিটির জন্য লাভদায়ক।

কোভিড মহামারীর পরবর্তী সময়ে বিশ্বজুড়ে চলছে অর্থনৈতিক অচলাবস্থা। এই পরিস্থিতিতে ডিজিটাল মুদ্রার লেনদেন কেবল বিনিয়োগ ক্ষেত্রেই নয়, মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণেও রাখতে পারে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা, এমনই মত বিনিয়োগকারীদের একাংশের।

টেকগাপের মেম্বাররা ও সদ্য যোগ দেওয়া লেখকরা এই প্রোফাইলের মাধ্যমে টেকনোলজির সমস্ত রকম খুঁটিনাটি আপনাদের সামনে আনে।