টিকটকের বিকল্প দেশীয় ‘মিত্রৌ’-র সাথে যোগ আছে পাকিস্তানের? সামনে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য

সম্প্রতি একটি অ্যাপ্লিকেশন বেশ কিছুটা জনপ্রিয়তা লাভ করেছে যার নাম ‘মিত্রৌ’ ইংরেজিতে ‘Mitron’। তবে এই অ্যাপ্লিকেশনটি মোটেও ভারতে তৈরি করা নয় বরং তৈরি করেছে পাকিস্তানের সফটওয়্যার ডেভলপার Qboxus। ভারতে এই অ্যাপ্লিকেশনটি অত্যন্ত প্রচলিত হয়ে উঠেছে এবং বহু লোক ইতিমধ্যেই দিকে ডাউনলোড করে ফেলেছেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে মিত্রৌ শব্দটির যোগাযোগ রয়েছে। তাই মনে করা হচ্ছিল এই অ্যাপ্লিকেশনটি ভারতে তৈরি করা। তবে আজ একটি নতুন রিপোর্টে জানা গিয়েছে যে, এই অ্যাপ্লিকেশনটি Qboxus দ্বারা তৈরি করা অ্যাপ্লিকেশন TicTic-র নতুন একটি ভার্সন।

এই কোম্পানিটির সিইও এবং ফাউন্ডার ইরফান শেখ টিকটিক অ্যাপ্লিকেশনটি বানিয়েছিলেন। ইরফান শেখ একটি প্রেস বিবৃতিতে জানিয়েছেন যে, উনি মিত্রৌ অ্যাপ্লিকেশনের ডেভেলপারকে টিকটিক অ্যাপ্লিকেশনের সোর্সকোড মাত্র ৩৪ ডলারে বিক্রি করে দিয়েছেন।

শেখ জানিয়েছেন যে, ওনার কোম্পানি মূলত সোর্সকোড বিক্রি করার ব্যবসা করে, যার পরে ডেভেলপার সেই সোর্সকোড কাস্টমাইজ করে অ্যাপ্লিকেশন তৈরি করে। তাদের প্রধান ব্যবসা জনপ্রিয় অ্যাপ্লিকেশনের ক্লোন অ্যাপ্লিকেশন বানিয়ে তাকে সস্তা দামে বিক্রি করা। তার মুখ্য উদ্দেশ্য ছোট স্টার্টআপ গুলিকে সাহায্য করা যাদের কাছে বাজেট খুবই সীমিত। আপনাদের জানিয়ে রাখি এই কোম্পানিটি টিকটিক অ্যাপ্লিকেশনের ২৭৭টি ক্লোন কপি ইতিমধ্যেই বিক্রি করে ফেলেছে।

তিনি আরো জানিয়েছেন,” আমাদের এই বিষয়ে কোনো মাথাব্যথা নেই যে ডেভলপার কি কি করছে ওই সোর্সকোড দিয়ে। তারা আমাদেরকে স্ক্রিপ্টের টাকা দিয়ে দেন এবং তারপরে ওই স্ক্রিপ্ট তারা যেকোন ভাবে ব্যবহার করতে পারেন। তবে সমস্যা হল, সকলেই মিত্রৌ অ্যাপ্লিকেশনকে ভারতের অ্যাপ্লিকেশন মনে করে ভুল করছেন। ‘ শেখ জানিয়েছেন যে, তার একজন ক্রেতা টিকটিক অ্যাপ্লিকেশনের সোর্স কোডের মাধ্যমে মিত্রৌ অ্যাপ্লিকেশন তৈরি করেছে। এবং আপনারা যদি চান তাহলে আপনাদের টেকনিক্যাল টিমের সাহায্য নিয়ে এই অ্যাপ্লিকেশন যাচাই করতে পারেন।

আপনাদের জানিয়ে রাখি এই মিত্রৌ অ্যাপ্লিকেশনের ডেভেলপারের নাম এখনো সামনে আসেনি। তবে বেশকিছু রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে যে, এই অ্যাপ্লিকেশনটি তৈরি করেছে আইআইটি রূড়কির একজন ছাত্র। এই অ্যাপ্লিকেশনটির কোন প্রাইভেসি পলিসি নেই, এমনকি ডেভেলপারের ওয়েবসাইটে অবধি কিছু লেখা নেই। যারা এই অ্যাপ্লিকেশনটি ইন্সটল করছেন, তাদের সাইন ইন করার পরে ভিডিও আপলোড করতে হয়। তারা জানতেও পারছেন না যে অজান্তেই তাদের ডেটার সাথে কি করা হচ্ছে। এই অ্যাপ্লিকেশনের পারমিশন তালিকাও খুব একটা ভালো নয়। এই অ্যাপ্লিকেশনটি অনেকগুলি পারমিশন চায়।

পাশাপাশি এই অ্যাপ্লিকেশনটিতে অনেকগুলি বাগ রয়েছে। তা সত্ত্বেও এই অ্যাপ্লিকেশনটির রেটিং গুগল প্লে স্টোরে যথেষ্ট বেশি। এই অ্যাপ্লিকেশনটিতে সমস্যা থাকলেও, মানুষ এটিকে ভারতে তৈরি অ্যাপ্লিকেশন ভেবে ভালো রেটিং দিচ্ছেন। তবে আসল কথা হল এই অ্যাপ্লিকেশনটির সোর্সকোড একজন পাকিস্তানী ডেভেলপারের থেকে কেনা হয়েছে, এবং ভারতের সঙ্গে এই অ্যাপ্লিকেশনটির কোন সম্পর্ক নেই।