মমতা সরকারের উপহার, কেবল টিভির পর ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত ছাড় বিদ্যুতের বিলে

electricity-bill-exempts-till-april-30-after-cable-tv-in-wb

আরও একবার রাজ্যবাসীর জন্য সুখবর দিল মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সরকার। লকডাউন পরিস্থিতিতে গতকালই মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন যে এপ্রিলে কেবল টিভির টাকা জমা না করলেও লাইন কাটা যাবেনা। আর আজ রাজ্যের বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় বিদ্যুৎ বিলে ছাড় দেওয়ার কথা ঘোষণা করলেন। তিনি জানান এপ্রিল মাসে গত ফেব্রুয়ারী মাসের ধার্য বিল না মেটালেও কোনো লাইন কাটা হবেনা। এমনকি ৩০ এপ্রিলের মধ্যে বিল জমা না করলে কোনো অতিরিক্ত সুদ নেবেনা রাজ্য বিদ্যুৎ বন্টন নিগম।

রাজ্যে করোনা ভাইরাসের আক্রান্তদের সংখ্যা ৩৭ ছুঁয়েছে। এই পরিস্থিতিতে রাজ্যের অনেক জেলায় নতুন লোক গ্রামে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছেনা। আর সেকারণেই বাড়ি গিয়ে মিটার চেক করে বিল দিতে অসমর্থ হচ্ছে বিদ্যুৎ দপ্তর। তাই তারা সিদ্ধান্ত নিয়েছে গতবছরের মার্চ মাসের বিলের হিসাবে এবছরের মার্চের বিল পাঠানো হবে। পরে যদি দেখা যায় কোনো গ্রাহকের বিল ব্যবহারের তুলনায় বেশি ধার্য হয়েছে তবে তার সুবিধা পরবর্তী বিলে গ্রাহকটি পেয়ে যাবে।

আপনাদের জানিয়ে রাখি কেবল টিভি নিয়ে গতকাল গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছিল নবান্ন। সাধারণ মানুষের কথা ভেবে মুখ্যমন্ত্রী গতকাল সমস্ত কেবল অপারেটর কে নির্দেশ দিয়েছিলেন যে এই দুঃসময়ে কেউ যদি কেবল টিভির মাসিক চার্জ না মেটাতে পারে, তার লাইন যেন না কাটা হয়।

প্রসঙ্গত রাজ্যের বিরোধী দলনেতা হিসাবে পরিচিত আব্দুল মান্নান, মুখমন্ত্রী কে চিঠি পাঠিয়ে এবারে হস্তক্ষেপের অনুরোধ করেন। তিনি বলেন, দিন আনা দিন খাওয়া মানুষগুলো এই সময় ঘরবন্দি। তারা টিভি রিচার্জ করবে কিভাবে? তাই এইসমস্ত লোকের কথা ভেবে মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় যেন কিছু করেন।

এরপরেই নবান্ন থেকে বলা হয়, এপ্রিল মাসে কেবল টিভির চার্জ না দিতে পারলেও কানেকশন কাটা যাবেনা। এব্যাপারে কেবল সংগঠনগুলিকে নবান্নের তরফে বলা হয়েছে যে, ২০০৫ সালের বিপর্যয় মোকাবিলা আইন অনুযায়ী সারাদেশে লকডাউন চলছে। এহেন পরিস্থিতিতে টাকার জন্য কারো পরিষেবা যেন বন্ধ না করা হয়।