মহাকাশে ঘুরতে যাবেন? গরম খাবারের সাথে বিনামূল্যে Wi-Fi পরিষেবা দেবে এলন মাস্ক

মহাকাশযাত্রীদের বিনোদনের কথা ভেবে Wi-Fi ব্যবস্থা করতে মাস্ক বিশেষ উদ্যোগী হয়েছেন

elon-mask-assures-hot-food-free-wifi-next-spacex-flight

তিনদিন পৃথিবীর কক্ষপথে অবস্থানের পর স্পেসএক্স ইনস্পিরেশন৪ মিশনের (SpaceX Inspiration4 Mission) প্রতিটি সদস্য অক্ষতভাবেই তাদের ‘জগতে’ ফিরে এলেন। সদস্যদের নিয়ে ক্যাপসুল ড্রাগন (Dragon) ফ্লোরিডার উপকূলবর্তী আটলান্টিক মহাসাগরে আছড়ে পড়লেও সেখানে শারীরিকভাবে কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হননি। ফলে স্পেসএক্স ইনস্পিরেশন৪ মিশনের সাফল্য নিয়ে বিভিন্ন মহলে আর কোন দ্বিমত নেই। তাছাড়া সাম্প্রতিক এই উদ্যোগ আমাদের সামনে অন্তরীক্ষ-পর্যটনের এক নতুন দিগন্তকে উন্মোচিত করে দিয়েছে বলেও সকলে একবাক্যে স্বীকার করছেন।

নিজের সংস্থার সাফল্যে স্পেসএক্স (SpaceX) সিইও (CEO) এলন মাস্ক স্বভাবতই বেশ খুশি। উৎসাহের প্রাবল্যে তিনি মহাকাশ-যাত্রা সম্পর্কে তার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা ব্যক্ত করেছেন। সেক্ষেত্রে আগামীদিনে স্পেসএক্সের অভিযানে শামিল মহাকাশযাত্রীদের জন্য গরম খাবার এবং ওয়াইফাই (Wi-Fi) পরিষেবা সরবরাহের বিশেষ বন্দোবস্ত করা হবে বলে মাস্কের আশ্বাস।

আসলে সাম্প্রতিক অভিযানে স্পেসএক্স ইনস্পিরেশন৪ মিশনের (SpaceX Inspiration4 Mission) সদস্যেরা বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রী সঙ্গে নিয়েই মহাকাশের উদ্দেশ্যে পাড়ি জমান। সেখানে পৌঁছে প্রাথমিক বিস্ময় ও মুগ্ধতা কেটে যাওয়ার পরে তারা খাওয়া-দাওয়ার কথা ভাবেন। সেই মতো মহাকাশে তাদের প্রথম খাদ্য ছিলো পিৎজ়া! আজ্ঞে হ্যাঁ, পৃথিবীর কক্ষপথে অবস্থানকালে পিৎজ়ার টুকরোয় কামড় বসানোর অভিজ্ঞতা যে কতটা রোমাঞ্চকর হতে পারে অভিযাত্রীদের সকলেই সেটা অনুভব করার সুযোগ পেয়েছেন। এক্ষেত্রে পিৎজ়াটি ঠাণ্ডা হলেও সেজন্য তার মহিমা বিন্দুমাত্র কমে যায়নি!

অভিযান থেকে ফেরার পর যাত্রীদলের একজন সদস্য তার টুইটার পোস্টে মহাকাশে বসে ঠান্ডা পিৎজ়া ভক্ষণের ব্যাপারটি প্রকাশ করেন! সেখানেই স্পেসএক্স (SpaceX) কর্ণধার পিৎজ়া ঠান্ডা থাকার জন্য দুঃখপ্রকাশ করেন। একইসাথে আগামী প্রতিটি অভিযানে সদস্যদের জন্য গরম খাবারের ব্যবস্থা করা হবে বলেও তিনি জানিয়ে দেন।

এছাড়া মহাকাশযাত্রীদের বিনোদনের কথা ভেবে তাদের জন্য ওয়াইফাইয়ের (Wi-Fi) ব্যবস্থা করতেও মাস্ক বিশেষ উদ্যোগী হয়েছেন। এক্ষেত্রে তার সংস্থা স্টারলিঙ্ক (Starlink) প্রযুক্তিকে কাজে লাগাতে পারে বলে শোনা গিয়েছে।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন

One of the newest members of the Techgup Family. Soumo grew his liking for gadgets almost a decade back while searching for his first smartphone, and started writing about tech recently in 2020