Nitin Gadkari: বৈদ্যুতিক ক্ষেত্রে জোর বাড়ালেও ভারতে নিষিদ্ধ হচ্ছে না পেট্রোল-ডিজেল চালিত গাড়ি

পেট্রোল-ডিজেল চালিত গাড়ির মালিকদের জন্য স্বস্তির বার্তা শোনালো কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিতিন গডকড়ী

ev-adoption-in-india-push-but-will-not-stop-registration-of-ices-nitin-gadkari

দেশের যানবাহন সম্পর্কিত নতুন পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করল কেন্দ্রীয় সরকার। এখনই পেট্রোল ও ডিজেল গাড়ি বন্ধ করা হচ্ছে না বলে জানিয়েছে কেন্দ্র। সম্প্রতি একটি ভার্চুয়াল বৈঠক থেকে কেন্দ্রীয় সড়ক ও পরিবহণ মন্ত্রী নিতিন গডকড়ী (Nitin Gadkari) জানিয়েছেন, দেশে বৈদ্যুতিক ক্ষেত্রে গতিশীলতা ত্বরান্বিত করতে জোর দেওয়া হলেও এখনই ইন্টার্নাল কম্বাশান ইঞ্জিন (ICE) বা জীবাশ্ম জ্বালানি চালিত গাড়ির রেজিস্ট্রেশন নেওয়া বন্ধ করার আপাতত কোনো পরিকল্পনা নেই সরকারের। স্বভাবতই এই ঘোষণায় স্বস্তি মিলল পেট্রোল-ডিজেল চালিত গাড়ির মালিকদের।

একই সাথে কেন্দ্রীয় পরিবহণ মন্ত্রী জৈব জ্বালানি বা বায়ো-ফুয়েল চালিত গাড়ির উপর বিশেষ জোর দেওয়ার বার্তাও দিয়েছেন। সেই প্রসঙ্গে একটি ভার্চুয়াল বৈঠক থেকে তিনি স্পষ্ট জানিয়েছেন, “আমরা বৈদ্যুতিক যানবাহন ব্যবহারের জন্য মানুষকে উৎসাহিত করছি এবং বিকল্প জ্বালানি যেমন ইথানল, বায়ো-এলএনজি, সবুজ হাইড্রোজেনের ব্যবহার বাড়াতে চাইছি। কিন্তু আমরা জীবাশ্ম জ্বালানি চালিত বা আইসিই গাড়ি বন্ধ করছি না।” দেশের পরিবেশের স্বাস্থ্য উন্নত করতে এবং সবুজায়নের প্রতি বদ্ধপরিকর গডকড়ী বৈদ্যুতিক গাড়ি যানবাহনের বিক্রির সংখ্যা বৃদ্ধির বিষয়ে বলেছেন, “আমি অনুভব করেছি যে ইলেকট্রিক গাড়ির ব্যবহারের জন্য কোনো কিছু অত্যাবশ্যক করার প্রয়োজন নেই।” তিনি উল্লেখ করেছেন দেশে প্রায় ২৫০টি স্টার্টআপ সংস্থা বৈদ্যুতিক গাড়ি তৈরি করে এবং এর ফলে আগামী দিনে এর দাম আরও কমবে।

প্রসঙ্গত আগামী দু’বছরের মধ্যে দেশের বৈদ্যুতিক যানবাহনের দাম পেট্রোল ও ডিজেল গাড়ির সমান হবে বলে গডকড়ী কয়েকদিন আগেই জানিয়েছিলেন। কারণ হিসেবে ইলেকট্রিক গাড়ির উপর প্রযোজ্য প্রোডাকশন লিঙ্কড ইন্সেন্টিভের কথা উল্লেখ করেছিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। পাশাপাশি দেশে বৈদ্যুতিক এবং জৈব জ্বালানি চালিত গাড়িকে জনপ্রিয় করে তোলার লক্ষ্যে দেশের সমস্ত পেট্রলপাম্প ও গুরুত্বপূর্ণ হাইওয়েগুলিতে বৈদ্যুতিক চার্জিং পয়েন্ট বসানোর বার্তা দিয়েছিলেন। এমনকি দেশের সমস্ত পেট্রলপাম্পগুলিকে বায়ো-ফুয়েল বা ইথানল পাম্পে পরিবর্তিত করার ডাক দিয়েছিলেন মন্ত্রী। এছাড়াও বিমানগুলিতেও এই ইথানল জ্বালানি ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

পাশাপাশি নিতিন গডকড়ী (Nitin Gadkari) সবুজ হাইড্রোজেনের বিষয়ে আলোকপাত করেছেন। তিনি জানিয়েছেন যে, আগামী মাসেই একটি হাইড্রোজেন ফুয়েল কার কিনতে চলেছেন। প্রসঙ্গত, বিগত সময়ে প্রচলিত জ্বালানির পরিবর্তে ইথানল জ্বালানি ব্যবহারের বিষয়ে একাধিকবার সোচ্চার হয়েছেন সড়ক মন্ত্রী। এই ইথানলের দাম যেমন কম, তেমনি এটি দূষণমুক্ত। ইথানল জ্বালানি ব্যবহারের জন্য তৈরি যানবাহনের বিশেষ ইঞ্জিন বা ফ্লেক্স-ফুয়েল ইঞ্জিনকে আগামী দিনে বাধ্যতামূলক করা হবে বলেও জানিয়েছিলেন তিনি।

টেকগাপের মেম্বাররা ও সদ্য যোগ দেওয়া লেখকরা এই প্রোফাইলের মাধ্যমে টেকনোলজির সমস্ত রকম খুঁটিনাটি আপনাদের সামনে আনে।