FBI Hack: বাঘের ঘরে ঘোগের বাসা! গোয়েন্দা বিভাগের সিস্টেমে হ্যাক করল হ্যাকাররা

ব্লু ভয়ান্ট-এর কর্মকর্তা অস্টিন বার্গলাসের মতে, এফবিআইয়ের একাধিক ইমেল সিস্টেম রয়েছে, যার মধ্যে একটি শনিবার হ্যাকিংয়ের শিকার হয়েছে

fbi-email-system-hacked-cyberattacks-threatened

আজকালকার সময়ে অর্থাৎ ইন্টারনেট এবং আধুনিক প্রযুক্তি নির্ভর এই জীবনে হ্যাকিংয়ের ঘটনা কোনো নতুন বিষয় নয়। তবে খোদ গোয়েন্দা সংস্থা তথা সিকিউরিটি এজেন্সিই যদি এই জাতীয় আক্রমণের শিকার হয়, তাহলে কি ‘বাঘের ঘরে ঘোগের বাসা’ প্রবাদটি এই ঘটনার সাথে জুড়ে দিতে দুবার ভাববেন? হ্যাঁ শুনে কিছুটা হতভম্ব লাগলেও, সম্প্রতি এমনই ঘটনার সাক্ষী হয়েছে গোটা বিশ্ব! আসলে গতকাল মানে শনিবার ফেডারেল ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (FBI)-এর এক্সটার্নাল ইমেল সিস্টেমকে করায়ত্ত করে নিজেদের শক্তি জাহির করেছে কিছু হ্যাকার। আর এই সাইবার কেলেঙ্কারির দরুন, হ্যাকাররা মার্কিনি এজেন্সিটির ইমেল অ্যাকাউন্ট থেকে কয়েক হাজার স্প্যাম ইমেল পাঠিয়েছে বলে জানা গিয়েছে। হামলার পরে, FBI (এফবিআই) এই বিষয়ে একটি বিবৃতি প্রকাশ করে ইমেল অ্যাকাউন্ট থেকে ভুয়ো মেল ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। সংস্থার মতে, এই মেলগুলি সাইবার আক্রমণ চালাতে হ্যাকারদের দ্বারা পাঠানো হয়েছে।

FBI এজেন্সির ইমেইল সিস্টেম হ্যাক

এফবিআই এই মুহূর্তে সাইবার হামলার ঘটনাটি সম্পর্কে কোনো অতিরিক্ত তথ্য দিতে রাজি হয়নি। তবে সাইবার সিকিউরিটি কোম্পানি ব্লু ভয়ান্ট (BlueVoyant)-এর কর্মকর্তা অস্টিন বার্গলাসের মতে, এফবিআইয়ের একাধিক ইমেল সিস্টেম রয়েছে, যার মধ্যে একটি শনিবার হ্যাকিংয়ের শিকার হয়েছে।

তবে স্বস্তির বিষয় এটাই যে, এটি একটি পাবলিক ফেসিং মেল যা এজেন্ট এবং কর্মচারীরা ব্যবহার করে থাকে। সোজা ভাষায় বললে এই মেলটির মাধ্যমে সংস্থার ‘আনক্লাসিফায়েড’ বা সাধারণ তথ্য শেয়ার করা হয়, কোনো গুরুত্বপূর্ণ ইনফরমেশন এতে থাকে না। তাই এই মুহূর্তে তেমন দুশ্চিন্তার কারণ নেই।

কীভাবে হ্যাক হল FBI-এর ইমেইল সিস্টেম

স্পামহাউসের মতে, উক্ত ইমেলের সাথে কোনো ম্যালওয়্যার অ্যাটাচ ছিল না। হ্যাকাররা, সম্ভবত ট্রোয়াকে (সাইবার সিকিউরিটি এক্সপার্ট) অপমান করার চেষ্টায় এবং এফবিআইকে অস্বস্তিতে ফেলার জন্য শনিবার মধ্যরাতে এই কাজ করে। এদিকে এই ঘটনার দরুন কমপক্ষে ১ লক্ষ মেইলবক্সে স্প্যাম মেসেজ পৌঁছায় বলে জানা গেছে। সেক্ষেত্রে এফবিআই বিষয়টি নিয়ে সবাইকে সতর্ক থাকতে বললেও, ট্রোয়া কোনোরকম মন্তব্য করেনি।

A person who enjoys creating, buying, testing, evaluating and learning about new technology.