ব্ল্যাক হোল বা কৃষ্ণগহ্বর আসলে কি ? সামনে এল প্রথম ছবি

জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা আজ সকালে মহাকাশ বিজ্ঞানের অন্যতম বড় একটি রহস্য ব্ল্যাক হোলের প্রথম ছবিটি ইন্টারনেটে প্রকাশ করলেন। মানব ইতিহাসে এই প্রথমবারের জন্য ব্ল্যাক হোলের ছবি দেখা গেল। বিগত বেশ কিছু বছর ধরে বিজ্ঞানীরা ব্ল্যাক হোলের অস্তিত্ব নিয়ে গবেষণা চালাচ্ছিলেন। বিজ্ঞানীদের কথা অনুযায়ী এটি হল ব্রহ্মান্ডের সবচেয়ে শক্তিশালী বস্তু। আজই প্রথমবার ব্ল্যাকহোলের আসল আকৃতি প্রকাশিত হলো। ব্ল্যাক হোলের যে ছবিটি আজ প্রকাশিত হয়েছে তাতে ব্ল্যাক হোলটির মধ্যবর্তী জায়গায় একটি ধোঁয়া ও ধুলোর চক্রব্যূহ এবং তার চারিদিকে একটি কালো রংয়ের চাকতি দেখা গেছে।

পৃথিবীর থেকে ৫৩ মিলিয়ন আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত Galaxy Messier 87 এরমধ্যে বিজ্ঞানীরা ব্ল্যাক হোলের অস্তিত্ব খুঁজে পেয়েছেন। বিজ্ঞানীদলের আশা ব্ল্যাক হোলটির আকার সূর্যের থেকে প্রায় ৬ বিলিয়ান গুণ বড়।

বৈজ্ঞানিকভাবে আমরা সর্বপ্রথম ব্ল্যাকহোলের সন্ধান পাই আইনস্টাইনের থিওরি অফ রিলেটিভিটি যদিও আইনস্টাইন নিজে ব্ল্যাকহোলের অস্তিতের কোন প্রমাণ দিয়ে যেতে পারেননি। তারপর থেকেই বিজ্ঞানীরা এই ব্ল্যাক হোলের অস্তিত্ব প্রমাণ করতে উঠে পড়ে লাগেন।

এই ব্ল্যাক হোলটিকে পর্যবেক্ষণ করার জন্য ৮ টি বৃহৎ রেডিও অ্যাকটিভ টেলিস্কোপের ক্ষমতাসম্পন্ন Event Horizon Telescope কে ব্যবহার করা হয়েছিল। বিগত ২০১৭ র এপ্রিল মাস থেকে বিশ্বের পাঁচটি মহাদেশের বিভিন্ন বিভিন্ন জায়গায় এই টেলিস্কোপ গুলিকে বসানোর কাজ শুরু হয়। কোন একটি টেলিস্কোপ এর পক্ষে এত বড় জিনিসের ছবি তোলা সম্ভব নয়। তাই দুই বছরের পরিশ্রমের ফল স্বরূপ সবকটি টেলিস্কোপ এর তথ্য একত্রিত করার পরেই আজ M87 এ এই ব্ল্যাক হোলটিকে পর্যবেক্ষণ করা যায়।

পড়ুন : A-SAT বা অ্যান্টি স্যাটেলাইট আসলে কি ? কিভাবে যুদ্ধে কাজে লাগে ? সব জেনে নিন