অনলাইন জালিয়াতি এড়াতে মেনে চলুন এই কয়েকটি নিয়ম, সাবধান করলো গুগল

করোনা ভাইরাস লকডাউনের সময় অনলাইনে বেশকিছু জালিয়াতির মামলা আমাদের সামনে আসছে। এই ধরনের অনলাইন জালিয়াতিগুলির থেকে বাঁচার জন্য পৃথিবীর সবথেকে বড় সার্চ ইঞ্জিন গুগল হাজির হয়েছে বেশকিছু টিপস নিয়ে। গুগলের রিপোর্ট অনুযায়ী এইসময় করোনা ভাইরাসকে কেন্দ্র করে পাঁচটি পদ্ধতি অবলম্বন করে অনলাইন জালিয়াতি করা হচ্ছে। এরমধ্যে জিনিসপত্র এবং সার্ভিসেসের ভুয়ো অফার, পার্সোনাল ডেটা লিক করে দেওয়া, ভুয়ো আধিকারিক সেজে জালিয়াতি জাতীয় বেশ কিছু ঘটনা রয়েছে। তাই এই ধরনের জালিয়াতি থেকে নিজেদেরকে সুরক্ষিত রাখার জন্য গুগলের তরফ থেকে নিয়ে আসা টিপসগুলির ব্যাপারে আমরা এখানে জেনে নেব।

• জেনে নিন কিভাবে আপনাকে খুঁজে পায় জালিয়াত-

করোনা ভাইরাস লক ডাউনের সময়ে জালিয়াতরা কমিউনিকেশনের বিভিন্ন পদ্ধতির অপব্যবহার করছে। এরমধ্যে সবথেকে বেশি ব্যবহার করা হচ্ছে ইমেইল এবং এসএমএস। এছাড়াও করোনাভাইরাসের নাম নিয়ে বেশ কিছু ওয়েবসাইটও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে রয়েছে।

• নিজে চেক করে নিন সোর্স-

জালিয়াতরা সাধারণত প্রতিষ্ঠা এবং বিশ্বাসযোগ্য সংস্থা সেজে থাকার ভান করে। তাই যদি কোন করোনা ভাইরাস জড়িত ইমেইল আপনার কাছে আসে তাহলে আগে দেখে নিন কোথা থেকে ইমেইলটি এসেছে। এবং তারপরে সেই মেইলের সত্যতা যাচাই করার জন্য আপনারা স্বাস্থ্য এবং পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে পারেন।

ব্যক্তিগত অথবা আর্থিক তথ্য যারা জানতে চাইছে তাদের থেকে দূরে থাকুন-

যদি কোন ভুয়ো ইমেইলে আপনার কাছ থেকে কোন ব্যক্তিগত তথ্য অথবা আর্থিক তথ্য জানতে চাওয়া হয় তাহলে তৎক্ষণাৎ সেই মেইল অ্যাড্রেসটিকে ব্লক করে দিন। এবং পরবর্তীকালে সেইরকম ইমেইল থেকে দূরে থাকুন।

• সরাসরি যদি টাকা দান করার ইচ্ছা হয় তাহলে নন- প্রফিট অর্গানাইজেশনে দান করুন-

এই সময় যদি এরকম কোন মেসেজ আপনার কাছে আসে যেকোনো একটি সংস্থাতে টাকা দান করুন। তাহলে সেই রকম মেসেজের থেকে দূরে থাকা শ্রেয়। কারণ হয়তো সেই মেসেজটি কোন এরকম সংস্থা থেকে করাই হয়নি, জালিয়াতরা আপনাকে ঠকানোর জন্য এই মেসেজটি পাঠিয়েছে। আর যদি আপনার টাকা দান করার ইচ্ছা থাকে তাহলে সরাসরি সেই সংস্থার ওয়েবসাইটে গিয়ে দান করুন অথবা তাদের সাথে যোগাযোগ করুন।

• যে কোন লিঙ্কে ক্লিক করার আগে ভালভাবে দেখে নিন-

সম্পূর্ণরূপে চেক করে নেওয়ার আগে কখনোই কোন লিংক ওপেন করবেন না। কারণ অনেক সময় বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে ভুয়ো লিংক জনগণের কাছে পাঠানো হয়।

• গুগলে সার্চ করে নিন-

যদি আপনার কাছে কোন ভুয়া ম্যাসেজ আসে তাহলে আপনি এটা নিশ্চিত থাকুন যে এই মেসেজটি আপনাকে ছাড়াও আরো বহু লোককে পাঠানো হয়েছে। তাই আগেভাগেই গুগলে সার্চ করে দেখে নিন যে এই মেসেজটি আদৌ সত্য নাকি জালিয়াতি করার জন্য পাঠানো হয়েছে।

• অ্যাকাউন্টকে রাখুন সুরক্ষিত-

আপনি নিজের অ্যাকাউন্টে টু-স্টেপ ভেরিফিকেশন চালু করে রাখুন। এই ভেরিফিকেশন চালু করে রাখলে যখনই অন্য কোন ডিভাইস থেকে আপনার অ্যাকাউন্ট চালু করা হবে তখন আপনার কাছে বার্তা পৌঁছে যাবে। এবং আপনি প্রয়োজনীয় সতর্কতা গ্রহণ করতে পারবেন।

WhatsApp এ সব খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন।