ভুলেও ডাউনলোড করবেন না হোয়াটসঅ্যাপ ভিডিও! কোম্পানির তরফে জারি সতর্কতা

বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ, হোয়াটসঅ্যাপ এর জন্য সময়টা মোটেও সুখের নয়। কিছুদিন আগে ঘটা পেগাসাস অ্যাটাক থেকে নিজেদেরকে সামলানোর সুযোগ পাওয়ার আগেই, ফের একটি নতুন সমস্যায় হোয়াটসঅ্যাপ। এবার ভিডিও ফাইল পাঠিয়ে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীদের ফোন হ্যাক করছে হ্যাকাররা। কোম্পানির তরফে বলা হয়েছে তাদের একটি ভুলে হ্যাকাররা MP4 ফরম্যাটে ভিডিও পাঠিয়ে অ্যাকাউন্ট হ্যাক করার চেষ্টা করছে। প্রসঙ্গত পেগাসাস অ্যাটাকে হোয়াটসঅ্যাপে কল করে ফোন হ্যাক করা যাচ্ছিল।

নতুন এইভাবে হ্যাক হতে পারে ফোন :

হ্যাকাররা আপনাকে বিপজ্জনক ভিডিও ফাইল ফাইল পাঠিয়ে ফোন হ্যাক করতে পারে। এই ভিডিও ফরম্যাট MP4 হবে। যদি আপনি এই ভিডিও ডাউনলোড করে প্লে করেন তবে হ্যাকার আপনার ফোনের কন্ট্রোল পেয়ে যাবে।

কিভাবে বাঁচবেন :

কোম্পানির তরফে বলা হয়েছে এই সমস্যা থেকে রেহাই পেতে ব্যবহারকারীদের হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাপটিকে আপডেট করতে হবে। কারণ এই সমস্যা অ্যান্ড্রয়েডের জন্য হোয়াটসঅ্যাপের ২.১৯.২৭৪ ভার্সনের আগের ভার্সন গুলোতে দেখা দিয়েছে। আবার আইওএস এর জন্য ২.২৫.৩ ভার্সনের আগের গুলোতে দেখা দিয়েছে।

এর আগে পেগাসাসের মাধ্যমে হোয়াটসঅ্যাপ হ্যাক করছিল হ্যাকাররা। এই সফটওয়্যারটি কোন সাধারণ সফটওয়্যার নয় । বিশ্বে সর্বাধিক ব্যবহৃত এই হ্যাকিং এবং স্পাইং সফটওয়ারটি তৈরি করেছে ইসরাইলের একটি স্পেশালাইজড সার্ভিলেন্স টেকনোলজি সফটওয়্যার কোম্পানি এন এস ও গ্রুপ। ২০০৯ সালে শুরু হওয়া এই কোম্পানির বর্তমান কর্মচারীর সংখ্যা ৫০০ জন এবং কোম্পানিটির ২০১৭ সালে মূল্য ছিল ১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

এই পেগাসাস সফটওয়্যারটি হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে যেকোনো মানুষের স্মার্টফোন হাইজ্যাক করে নেয়। যদি কোন মানুষ পেগাসাসের মাধ্যমে কোন ব্যক্তির স্মার্টফোন হ্যাক করার চেষ্টা করেন তাহলে তাকে এই সফটওয়্যারটি ব্যবহার করে সেই ব্যক্তির হোয়াটসঅ্যাপে শুধুমাত্র একটি “মিসড্ কল” করতে হবে। শুধুমাত্র দু’বার হোয়াটসঅ্যাপে রিং হলেই সেই ব্যক্তির ফোনে পেগাসাস এজেন্ট ইন্সটল হয়ে যায়। ২০০৯ সালে হোয়াটসঅ্যাপে ভিডিও কল ফিচারটি আসার সঙ্গে সঙ্গেই পেগাসাস ব্যবহার করে হ্যাকিং এর ঘটনা সামনে আসতে থাকে। তারপরেই হোয়াটসঅ্যাপ কর্তৃপক্ষ পেগাসাসের নির্মাতা কোম্পানির বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করে।

সমস্ত খবরের আপডেট পেতে এখানে লাইক দিন!