Hero Electric: ভারতের সবচেয়ে পছন্দের ইলেকট্রিক টু-হুইলার ব্র্যান্ড হিরো, জানাল সমীক্ষা

হিরো ইলেকট্রিক আগামী ২০২৫ সালের মধ্যে নিজেদের বার্ষিক উৎপাদনের সংখ্যা ১০ লক্ষ পার করবে

hero-electric-most-preferred-ev-brand-in-india-suggests-study

ভারতের বাজারে ইলেকট্রিক স্কুটারের বিক্রিতে সর্বোচ্চ স্থানটি ধরেই রাখলো Hero Electric। এমনিতেই দেশের বৃহত্তম বৈদ্যুতিক টু-হুইলার নির্মাতা সংস্থা হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে সংস্থাটি। এবার JMK Research and Analytics-এর সমীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী, দেশের ‘সবচেয়ে পছন্দের ব্র্যান্ড’ (বা ‘most preferred brand’) হিসেবে পরিচিতি পেল Hero Electric। এখনো পর্যন্ত ৪ লক্ষেরও অধিক ইলেকট্রিক যানবাহন বিক্রি করেছে তাঁরা। ক্রমশ বিক্রি বেড়ে চলা সংস্থাটির দেশের বৈদ্যুতিক গাড়ির (EV) বাজারে বর্তমানে ৩৬% শেয়ার রয়েছে।

২০২১ শেষ হতে এখনো এক মাস বাকি রয়েছে, এরইমধ্যে এবছর মোট ৬৫,০০০ ই-স্কুটার বিক্রির কথা জানিয়েছে হিরো ইলেকট্রিক। করোনা মহামারী চললেও এবছর নিজেদের এখনো পর্যন্ত সর্বোচ্চ টু-হুইলার বিক্রি করেছে সংস্থাটি। এই প্রসঙ্গে হিরো ইলেকট্রিকের পরিচালন অধিকর্তা নবীন মুঞ্জল (Naveen Munjal) বলেছেন, “আমাদের হরেক পণ্যের অফার এবং সরকারের সহায়তায় কারণে আমরা দেশের অটোমোটিভ টু-হুইলারের বাজারে পরিবর্তন আনতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছি।”

মুঞ্জল আরো যোগ করেছেন, “আমরা ভীষণ উচ্ছ্বসিত যে ভারতের ১ নম্বর ইলেকট্রিক টু-হুইলার ব্র্যান্ড হতে পেরেছি, সেজন্য আমি প্রত্যেককে ধন্যবাদ জানাই। মানুষ ক্রমশ সবুজায়নের প্রতি সচেতন হচ্ছেন, যা আমাদের বৈদ্যুতিক ক্ষেত্রে গতিশীলতা আনতে অধিক অনুপ্রাণিত করছে। গত কয়েক বছরে আমাদের ইলেকট্রিক ভেহিকেল (ইভি)-র চাহিদা ক্রমশই বেড়েছে, আর তাই আজ আমরা ভারতের বৃহত্তম বৈদ্যুতিক টু-হুইলার ব্র্যান্ড হতে পেরেছি।”

সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, তাঁদের বিদ্যমান ২,০০০ এবং তৈরি হতে চলা ২০,০০০-এর বেশি চার্জিং স্টেশনের কারণে তাঁরা বৈদ্যুতিক ক্ষেত্রে বলিষ্ঠ হচ্ছে। পাশাপাশি সংস্থাটি সম্প্রতি ঘোষণা করেছে, আগামী ২০২৫ সালের মধ্যে নিজেদের বার্ষিক উৎপাদনের সংখ্যা ১০ লক্ষ পার করবে। আর তাই তাঁরা নতুন উৎপাদন কেন্দ্র তৈরীর কথাও পরিকল্পনা করছে। উল্লেখ্য, বর্তমানে ৪ লাখের বেশি গ্রাহক ও ৭০০-র অধিক ডিলারশিপ রয়েছে Hero Electric-এর।

শুভদীপ টেকগাপে অটোকার বিষয়ক লেখালিখি করে। এর আগে বিভিন্ন পোর্টালের সাথে যুক্ত থাকলেও, অটোকার নিয়ে টেকগাপে তার হাতেখড়ি। দিনকে দিন সে টেকগাপের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হয়ে উঠেছে।