Royal Enfield কে টেক্কা দিতে লঞ্চ হল Honda CB350RS, জেনে নিন দাম

honda-cb350rs-launched-price-in-india-rs-1-96-lakh-engine-specifications.jpg

৩৫০ সিসি সেগমেন্টে Royal Enfield-এর একচ্ছত্র কর্তৃত্বতে ভাগ বসাতে Honda Motorcycle & Scooter India (HMSI) গতবছর সেপ্টেম্বরে CB350 ক্ল্যাসিক রোডস্টার বাইকের ঘোষণা করেছিল। সেগমেন্ট ফার্স্ট ফিচারে সমৃদ্ধ মোটরসাইকেলটি লঞ্চের পর থেকেই দারুণভাবে সমাদৃত হয়েছে। বাজারে তাদের CB রেঞ্জের পোর্টফোলিও আরও প্রসারিত করে Honda এবার CB350 ক্ল্যাসিক রোডস্টারের স্পোর্টিয়ার ভার্সন CB350RS (RS-এর অর্থ Road Sailing) লঞ্চ করেছে।

হোন্ডা সিবি৩৫০ আরএস মোটরবাইকের দাম রাখা হয়েছে ১.৯৬ লক্ষ টাকা (এক্স-শোরুম)। অর্থাৎ এটি কেনার জন্য বেস ভ্যারিয়েন্ট সিবি৩৫০-এর তুলনায় আরও ১০,০০০ টাকা বেশী খরচ করতে হবে। হোন্ডা সিবি৩৫০ আরএস রেডিয়েন্ট রেড মেটালিক এবং ব্ল্যাক উইথ পার্ল স্পোর্টস ইয়েলো কালার অপশনে উপলব্ধ হবে। হোন্ডার দাবি করেছে যে, দীর্ঘ-দূরত্বে যাওয়ার সময় রাইডারের সর্বোত্তম স্বাচ্ছন্দ্যে সুনিশ্চিত করতে বাইকটি তৈরি করা হয়েছে। Honda CB 350-এর মতো একই প্ল্যাটফর্মের ওপর ভিত্তি করে নির্মিত হওয়ায় ইঞ্জিন, হার্ডওয়্যার এবং ফিচারের নিরিখে দুটি মডেলের মধ্যে সাদৃশ্য পাওয়া যাবে।

Honda CB350RS মোটরবাইকে ৩৫০ সিসি, সিঙ্গেল সিলিন্ডার, এয়ার কুল্ড ইঞ্জিন ব্যবহার করা হয়েছে যা ৫,৫০০ আরপিএম গতিতে সর্বোচ্চ ২০.৭ বিএইচপি এবং ৩,০০০ আরপিএম গতিতে সর্বাধিক ৩০ এনএম টর্ক জেনারেট করতে সক্ষম। ফাইভ স্পিড গিয়ারবক্সের সাথে এখানে স্লিপ ও অ্যাসিস্ট ক্ল্যাচ পাওয়া যাবে। তদুপরি, আপনি এইচটিসি (হোন্ডা সিলেক্টবল টর্ক কন্ট্রোল) পাচ্ছেন যা মূলত হোন্ডার ট্রাকশন কন্ট্রোল সিস্টেমের একটি ভার্সন৷ এতে স্যুইচ অফ করার অপশনও পাওয়া যাবে।

মোটরবাইকটির সাসপেনশন সেটআপে সামনের অংশে টেলিস্কোপিক ফোর্ক ও পিছনে টুইন হাইড্রোলিক শক অ্যাবজর্ভার অর্ন্তভুক্ত রয়েছে। ব্রেকিং কার্যকর করার জন্য সামনের চাকায় ৩১০ মিমি ডিস্ক এবং পিছনে ২৪০ মিমি ডিস্ক রয়েছে। স্কিডিও এড়ানোর জন্য বাইকটিতে ডুয়াল চ্যানেল এবিএস স্টান্ডার্ড হিসেবে থাকছে। Honda CB350RS-এর কার্ব ওয়েট ১৭৯ কেজি, গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স ১৬৮ মিমি, এবং জ্বালানী ট্যাঙ্কের ক্যাপাসিটি ১৫ লিটার।

আবার ক্যাফে রেসার বাইকটির বিশেষ ফিচারের মধ্যে রয়েছে ফুল-এলইডি লাইটিং, Y শেপের অ্যালোয় হুইল, স্কিড প্লেট, হোন্ডা স্মার্টফোন ভয়েস কন্ট্রোল সিস্টেম, টার্ন-বাই-নেভিগেশন, হ্যাজার্ড বাটন, ইঞ্জিন স্টার্ট/স্টপ স্যুইচ। বাইকের সেমি-ডিজিটাল ইন্সট্রুমেন্ট কনসোল, গিয়ার পজিশন ইন্ডিকেটর, ব্যাটারি ভোল্টেজ মিটার, এভারেজ মাইলেজ, রিয়েল টাইম মাইলেজ প্রভৃতির রিডআউট দেখাবে।

জনপ্রিয়তার নিরিখে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী Royal Enfield Classic 350-এর তুলনায় পিছিয়ে থাকলেও, Honda CB350 এখনও পর্যন্ত ভালই সাড়া পেয়েছে। সম্প্রতি আবার এটি দশহাজার ইউনিট বিক্রির মাইলস্টোন অর্জন করেছিল। হোন্ডার বিশ্বাস, CB350-এর মতো সদ্য লঞ্চ হওয়া CB350 RS সমান সাফল্য লাভ করবে। প্রাইস পয়েন্টে বাইকটির সাথে এখন Royal Enfield Meteor 350, Jawa 42, এবং Benelli Imperiale 400-এর প্রতিযোগিতা চলবে।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন