Honda NX200 শীঘ্রই এন্ট্রি নেবে, বাজেটের মধ্যে হবে অ্যাডভেঞ্চার বাইক কেনার স্বপ্ন পূরণ

honda-nx200-launching-soon-in-india-based-on-hornet-2-0-based-adventure-bike

আগস্টে নতুন বাইক লঞ্চ করবে Honda। সর্বভারতীয় সাংবাদ মাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী, যা Hornet 2.0-এর উপর ভিত্তি করে তৈরি করা কোনও স্মল-ক্যাপাসিটির অ্যাডভেঞ্চার বাইক হতে পারে। গত এপ্রিলে ট্রেডমার্ক করা NX200 নামে এই অ্যাডভেঞ্চার বাইকটি আসতে পারে। Hornet 2.0-এর চেয়ে এর দাম ১৫,০০০ টাকা বেশি হতে পারে। সুতরাং Honda NX200-এর এক্স-শোরুম দাম ১.৪৬ লক্ষ টাকার কাছাকাছি হওয়ার সম্ভাবনা আছে।

Hero Xpulse 200-এর মতো Honda NX200 হার্ডকোর অ্যাডভেঞ্চার অবতারে আসবে না। এটির ডিজাইন এমনভাবে করা হবে যাতে প্রতিদিন সফর করা যায় আবার সপ্তাহান্তে লং রাইডিংয়ের বেরোনোর জন্য উপযুক্ত সঙ্গী হয়ে উঠতে পারে। গত বছর চীনে লঞ্চ হওয়া Honda CBF 190X-এর সাথে আপকামিং NX200-এর মিল থাকতে পারে। সুতরাং, এই বাইকে থাকবে লম্বা ট্রাভেলের সাসপেনশন, আরও লম্বা হ্যান্ডেলবার, মিড-সেট ফুটপেগ, এবং দীর্ঘ যাত্রার জন্য আরামদায়ক সিট। Honda CBF 190X-এর দু’দিকেই ১৭ ইঞ্চি চাকা দেওয়া হয়েছিল। NX200-এর ক্ষেত্রেও একইরকম কিছু আশা করা যায়।

আবার স্টাইলের দিক থেকে Honda CBF 190-এর থেকে এটি ভিন্ন হতে পারে। ২০১৬ সালের অটো-এক্সপো ইভেন্টে প্রদর্শিত CX-02 কনসেপ্ট মডেলের ডিজাইন থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে NX200-এর ডিজাইন চূড়ান্ত হওয়ার সম্ভাবনা আছে। সেক্ষেত্রে, এর সামনের অংশ কিছুটা ভারী হবে। সামগ্রিকভাবে, এতে স্পোর্টি বডিওয়ার্ক এবং ট্যুরিং ওরিয়েন্টেড আর্গোনমিক্স থাকবে।

Hornet 2.0-এর ইঞ্জিন থাকতে Honda NX200-এর জন্য আলাদা ইঞ্জিন ডেভেলপ করার কথা হয়তো ভাববে না। সেক্ষেত্রে, ১৭.২ পিএস পাওয়ার ও ১৬.১ এমএম টর্ক উৎপাদনের ক্ষমতাসম্পন্ন Hornet 2.0-এর ১৮৪.৪ সিসি ইঞ্জিন NX200 অ্যাডভেঞ্চার ট্যুরারে দেখা যেতে পারে।

আসলে অত্যাধিক দামের জন্য Honda Africa Twin বা Honda CB500X প্রত্যেক অ্যাডভেঞ্চারপ্রেমীদের বাজেটে কুলিয়ে উঠে না। কিন্তু দেশে অ্যাডভেঞ্চার ট্যুরার বাইকের ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তা দেখে Honda হাত গুটিয়ে বসে থাকার পাত্র নয়। তাই স্মল-ক্যাপাসিটির অ্যাডভেঞ্চার বাইক লঞ্চ করে এই বাজার ধরার পরিকল্পনা করছে তারা।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন

টেকগাপে শুভ্রর প্রথম প্রযুক্তি বিষয়ক লেখায় হাতেখরি৷ স্নাতক স্তরের পড়াশোনার পাশাপাশি এখানেই চলতে থাকে শুভ্রর লেখালেখি৷ কলেজের অধ্যায় শেষ হওয়ার পর শুভ্র এখন টেকগাপের কনটেন্ট টিমের একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য৷