আরও সস্তায় আসবে HTC Wildfire E Lite, থাকবে ২ জিবি র‌্যাম

গুগল প্লে কনসোল এ HTC Wildfire E Lite নামে একটি ফোনকে দেখা গেছে।

HTC Wildfire E Lite
HTC Wildfire E Lite with MediaTek Helio A20 processor

তাইওয়ানের সংস্থা HTC গত সপ্তাহে রাশিয়াতে HTC Wildfire E2 স্মার্টফোনটি লঞ্চ করেছিল। এবার কোম্পানি এর সস্তা ভ্যারিয়েন্ট আনার প্রস্তুতি নিচ্ছে। সম্প্রতি গুগল প্লে কনসোল এ HTC Wildfire E Lite নামে একটি ফোনকে দেখা গেছে। নাম দেখেই বুঝতে পারছেন ফোনটি এইচটিসি ওয়াইল্ডফায়ার ই২ এর ডাউনগ্রেড ভার্সন হবে। গুগল প্লে কনসোল থেকে Wildfire E Lite এর স্পেসিফিকেশনও সামনে এসেছে। আসুন ফোনটি সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিই।

HTC Wildfire E Lite স্পেসিফিকেশন:

টিপ্সটার মুকুল শর্মা প্লে কনসালে Wildfire E Lite ফোনটিকে দেখতে পেয়েছেন। এখানে ফোনটির স্পেসিফিকেশনও সামনে এসেছে। যেমন – ফোনটিতে মিডিয়াটেক হেলিও এ২০ চিপসেট ব্যবহার করা হয়েছে, ফোনটির স্ক্রিন রেজুলেশান ৭২০x১৪৪০ পিক্সেল। ডিসপ্লের আসপেক্ট রেশিও ১৮:৯ এবং স্ক্রিন ডেনসিটি ৩২০ ডিপিআই। এছাড়া ফোনটিতে ২ জিবি র‌্যাম থাকছে। ফোনটি চলবে অ্যান্ড্রয়েড ১০ অপারেটিং সিস্টেমে। সুতারাং বোঝাই যাচ্ছে এটি বাজেট সেগমেন্টের স্মার্টফোন হতে চলেছে। প্লে কনসালে ফোনটির ছবি দেখে মনে করা হচ্ছে এর ডিসপ্লের ওপরে ও নীচে সরু বেজেল থাকতে পারে।

এগুলি ছাড়া ফোনের বাকি স্পেসিফিকেশন সম্পর্কে কোনো তথ্য জানা যায় নি। তবে মনে করা হচ্ছে, ফোনটি ১৬ জিবি ও ৩২ জিবির দুটি ইন্টারনাল স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্টে আসতে পারে। ফোনের হার্ডওয়ার থেকে ডিজাইন যেহেতু খুব সাধারণ রাখা হয়েছে, তাই ফোনটিতে ডুয়াল ক্যামেরা সেটআপ থাকতে পারে। কিন্তু স্পেস-শীটটি দেখে মনে করা হচ্ছে এটিতে সিঙ্গল ক্যামেরাই থাকবে। যদিও এগুলি শুধুমাত্র জল্পনার অংশ মাত্র। ফোনটি কবে এবং কোথায় প্রথম লঞ্চ করা হবে, এর দাম এবং অন্যান্য স্পেসিফিকেশান সম্পর্কে জানার জন্য কোম্পানির অফিসিয়াল টিজারের অপেক্ষায় থাকতে হবে আমাদের।

HTC Wildfire E2 স্পেসিফিকেশন:

এইচটিসি ওয়াইল্ডফায়ার ই২ ফোনে ৬.২১ ইঞ্চি এইচডি প্লাস আইপিএস প্যানেল আছে। এর পিক্সেল রেজুলেশন ৭২০x১৫৬০ এবং আসপেক্ট রেশিও ১৯.৫:৯। এই ডিসপ্লের ডিজাইন ওয়াটারড্রপ নচ। এর মধ্যে ৮ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা পাবেন। যার অ্যাপারচার এফ/২.২। এই ফোনে মিডিয়াটেক হেলিও পি২২ প্রসেসর দেওয়া হয়েছে। এই ফোনে পাবেন hybrid ডুয়েল সিম স্লট। অর্থাৎ মাইক্রোএসডি কার্ডের মাধ্যমে এর স্টোরেজ বাড়ানো যাবে।

ফোনের পিছনের ক্যামেরার কথা বললে এতে ডুয়েল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ উপলব্ধ। যার প্রাইমারি ক্যামেরা ১৬ মেগাপিক্সেল এবং সেকেন্ডারি ক্যামেরা ২ মেগাপিক্সেল ডেপ্থ সেন্সর। এই ক্যামেরা অটোফোকাস ও এলইডি ফ্ল্যাশের সাথে এসেছে এই ফোনে আছে ৪,০০০ এমএএইচ ব্যাটারি। চার্জিংয়ের জন্য এতে ইউএসবি টাইপ সি পোর্ট দেওয়া হয়েছে। সিকিউরিটির জন্য ফোনের পিছনে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর আছে। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১০ অপারেটিং সিস্টেমে চলে।