বাজেট রেঞ্জে লঞ্চ হবে HTC Wildfire E3, থাকবে মিডিয়াটেক হেলিও প্রসেসর

htc-wildfire-e3-spotted-on-google-play-console-with-mediatek-mt6762d

বিগত কয়েক মাস ধরে স্মার্টফোন বাজার থেকে দূরে থাকার পর, নতুন বছরে ফের গ্রাহকদের আকর্ষিত করতে তৎপর হয়ে উঠেছে জনপ্রিয় স্মার্টফোন নির্মাতা HTC। গতকাল এই তাইওয়ানের কোম্পানিটি Desire 21 Pro 5G নামের একটি স্মার্টফোন লঞ্চ করেছে, যাতে অ্যান্ড্রয়েড ১০ অপারেটিং সিস্টেম, রিয়ার কোয়াড ক্যামেরা সেটআপ, দীর্ঘ ব্যাটারি এবং র‌্যাম, সাইড মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর ইত্যাদি ফিচার দেখা গেছে। কিন্তু সাম্প্রতিক রিপোর্ট বলছে শুধু Desire 21 Pro 5G লঞ্চ করেই থেমে থাকছে না HTC; সংস্থাটি কাজ করছে Wildfire E3 নামের একটি বাজেট ফোনের ওপরেও। এই নতুন বাজেট ফোনটি, গতবছর আগস্টে বাজারে আসা Wildfire E2 হ্যান্ডসেটটির আপগ্রেডেড সংস্করণ হতে চলেছে। সম্প্রতি, গুগল প্লে কনসোলে HTC Wildfire E3-কে তালিকাভুক্ত অবস্থায় দেখা গেছে। উল্লিখিত সাইট থেকে এইচটিসি ওয়াইল্ডফায়ার ই৩ ফোনটির সম্ভাব্য ছবি এবং কিছু মূল ফিচার সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। আসুন ফোনটি সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিই।

গুগল প্লে কনসোল ওয়েবসাইট অনুযায়ী, HTC Wildfire E3 স্মার্টফোনটি এইচডি+ ডিসপ্লেসহ আসবে। ফোনটির ডিসপ্লে রেজোলিউশন হতে পারে ৭২০×১,৬০০ পিক্সেল। সেক্ষেত্রে ডিভাইসটির ডিসপ্লের ঠিক ওপরে একটি ছোট ওয়াটার-ড্রপ নচ ডিজাইন দেখা যাবে। ওই নচের মধ্যেই থাকবে ফোনের ফ্রন্ট ক্যামেরা। অন্যান্য ফিচারের কথা বললে, মনে হচ্ছে বাজেট ফোনটিতে MediaTek MT6762d চিপসেট থাকবে। এই প্রসঙ্গে বলে রাখি, MT6762d হল মিডিয়াটেক হেলিও পি ২২ প্রসেসরের কোডনেম।

এছাড়া, HTC Wildfire E3-এ ৩ জিবি র‌্যাম এবং অ্যান্ড্রয়েড ১০ অপারেটিং সিস্টেম থাকবে। তবে লঞ্চের সময় ফোনটি আরও কয়েকটি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্ট সহ আসবে বলেই আমাদের ধারণা। ফোনটিতে ১.৮ গিগা হার্টজ ক্লকিং স্পিড যুক্ত চারটি ARM Cortex A53 কোর থাকবে এবং চারটি এফিসিয়েন্সি কোর থাকবে যাতে ১.৫ গিগা হার্টজ ক্লক স্পিডের সুবিধা থাকবে।

আপাতত, এইচটিসি-র এই আসন্ন ফোনটি সম্পর্কে এই কয়েকটি তথ্যই পাওয়া গেছে। তবে আশা করছি, আগামী দিনে আমরা এই ফোনটির স্পেসিফিকেশন, দাম ইত্যাদি আরও তথ্য জানতে পারব। এই মুহুর্তে ফোনটির লঞ্চ বা লভ্যতা সম্পর্কেও কোনো সুস্পষ্ট তথ্য পাওয়া যায়নি। কিন্তু যেহেতু এই Wildfire E3 ফোনটি গুগল প্লে কনসোলে প্রদর্শিত হয়েছে তাই ফোনটি যে খুব শীঘ্রই বাজারে পা রাখতে পারে – এমনটাও আশা করাই যায়।