আমেরিকা কে জবাব দিতে নিজস্ব চিপসেট কারখানা তৈরির কথা ভাবছে Huawei

বিগত কয়েক মাসে মার্কিন প্রশাসন, চীনা কোম্পানি Huawei-র ওপর যে সমস্ত চাপ সৃষ্টি করেছে তা প্রায় সকলেরই জানা। মার্কিন সরকারের নিষেধাজ্ঞার কারণে সংস্থাটি, মার্কিন বাজার থেকে প্রোডাক্ট কিনতে বা কোনো মার্কিন কোম্পানির সাথে ব্যবসা করতে পারেনা। তবে এবার ঘুরে দাঁড়াতে প্রস্তুতি নিচ্ছে Huawei। ফিনান্সিয়াল টাইমসের সাম্প্রতিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, চীনের সাংহাইয়ে নিজস্ব চিপসেট কারখানা তৈরির কথা ভাবছে হুয়াওয়ে। এই পরিকল্পনাটি বাস্তবায়িত হলে কোম্পানির ওপর মার্কিন বিধিনিষেধের ততটাও প্রভাব পড়বেনা, পাশাপাশি সংস্থাটি তার হার্ডওয়্যার ব্যবসাটিকে আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে – এমনটাই মনে করা হচ্ছে।

রিপোর্ট অনুযায়ী, নতুন ফ্যাক্টরিটি হুয়াওয়ের পার্টনার সাংহাই আইসি আর অ্যান্ড ডি (IC R&D) সেন্টার কর্তৃক পরিচালিত হবে বলে জানা গেছে। মনে করা হচ্ছে, এখানে চিপসেটের পাশাপাশি সংস্থার টেলিকম হার্ডওয়্যার ব্যবসার জন্যও কিছু কম্পোনেন্ট তৈরি হতে পারে। আপাতত, এই ফ্যাক্টরিটি নিয়ে কিছু পরীক্ষা নিরীক্ষা চলবে ইতিবাচক ইঙ্গিত মিললে এতে প্রোডাক্ট উৎপাদন শুরু হবে।

রিপোর্টে আরো বলা হয়েছে যে, প্রথমে এই ফ্যাক্টরিতে ৪৫ ন্যানোমিটার (nm) চিপসেট তৈরি হবে। তারপর, ২০২১ সালে ২৮ ন্যানোমিটার এবং ২০২২ সালের মধ্যে ২০ ন্যানোমিটার দৈর্ঘ্যের চিপসেট তৈরি করার চেষ্টা করবে Huawei। মনে করা হচ্ছে, এই পরিকল্পনাটি হুয়াওয়ের আদর্শ অগ্রগতির জন্য ততটাও সমীচীন নয়। এতে সংস্থার স্মার্টফোন ব্যবসায় প্রভাব পড়তে পারে।

তবে এই পরিকল্পনার হাত ধরে টেলিকম হার্ডওয়্যার মার্কেটে অন্য প্রতিদ্বন্দ্বীদের কিছুটা পেছনে ফেলতে পারে হুয়াওয়ে। এছাড়া, হুয়াওয়ের সম্ভাব্য চিপগুলি IoT (ইন্টারনেট অফ থিংগস) ডিভাইস এবং 5G নেটওয়ার্ক বিকাশের হার্ডওয়্যারের জন্য ভাল হতে পারে। ইতিমধ্যে কিছু সংস্থা, হুয়াওয়ের কাছে চিপসেটের জন্য তাদের প্রোডাক্ট বিক্রি করার আগ্রহ দেখিয়েছে বলে জানা গিয়েছে, কিন্তু মার্কিন নিষেধাজ্ঞার কারণে ফার্মটি 5G ব্যবসার জন্য প্রয়োজনীয় প্রোডাক্ট কিনতে পারছেনা। আর তাই সংস্থাটি স্বনির্ভর হওয়ার চেষ্টা করছে।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি হুয়াওয়ে, চীনের বাজারে Mate 40 নামে একটি ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন সিরিজ লঞ্চ করেছে, যাতে সংস্থার নিজস্ব 5nm (৫ ন্যানোমিটার) চিপসেট ভিত্তিক কিরিন ৯০০০ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে।

টেকগাপের মেম্বাররা ও সদ্য যোগ দেওয়া লেখকরা এই প্রোফাইলের মাধ্যমে টেকনোলজির সমস্ত রকম খুঁটিনাটি আপনাদের সামনে আনে।