সতর্ক হোন, এই ধরণের মেসেজ আপনাকে সর্বস্বান্ত করতে পারে

icici-bank-warns-customer-about-three-types-messaging-fraud

ভারতে অনলাইনে ব্যাঙ্কিং জালিয়াতির ঘটনা দিন দিন বেড়েই চলেছে! গোটা ইন্টারনেট জুড়েই এমন অসংখ্য গণনাতীত অসাধু চক্র ছড়িয়ে রয়েছে যারা একটু সুযোগ পেলেই আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট ফাঁকা করে দিতে পারে! প্রযুক্তির ব্যাপারে জ্ঞানবিহীন আপাত অনভিজ্ঞ মানুষ থেকে শুরু করে রীতিমতো টেক স্যাভি লোকজনকেও অনলাইন প্রতারণার শিকার হতে দেখা যায়। এসবের ক্রমবর্ধমানতার কারণেই বর্তমানে অনলাইন ব্যাঙ্কিং ও লেনদেন সম্পর্কে বেশ কিছু সতর্কতা গ্রহণের প্রয়োজন রয়েছে। সম্প্রতি আইসিআইসিআই ব্যাঙ্ক (ICICI Bank) আমজনতাকে এমনই কতগুলো সতর্কতামূলক পদক্ষেপের ব্যাপারে সচেতন করেছে যা গ্রহণ করলে উক্ত ব্যক্তি অন্তর্জালের জোচ্চুরি থেকে রেহাই পেতে পারেন।

এই বিষয়ে সকলেই অবগত যে সাধারণ মানুষকে প্রতারিত করতে প্রতারকেরা বিভিন্ন পদ্ধতির আশ্রয় নিয়ে থাকে। আইসিআইসিআই ব্যাঙ্ক এক্ষেত্রে তিন ধরনের জালিয়াতির কথা উল্লেখ করেছে। তাদের বক্তব্য, অসৎ চক্রগুলি সাধারণত ভুঁয়ো মেসেজ পাঠিয়ে আমাদের ঠকানোর ষড়যন্ত্র করে থাকে। এই ধরণের মেসেজে নজরকাড়া কেওয়াইসি (KYC) অফার, বড় অঙ্কের লটারি জেতা বা ইনকাম ট্যাক্স রিফান্ডের লোভ দেখানো হয়। একইসাথে মেসেজে এমন একটি লিঙ্ক জুড়ে দেওয়া হয় যেখানে ক্লিক করলেই ব্যক্তিগত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য থেকে শুরু করে ব্যাঙ্কে আমাদের যাবতীয় সঞ্চয় নিমেষে শূন্য হয়ে যেতে পারে। ফলে এই ধরনের মেসেজ গুলি শনাক্ত করতে পারা অত্যন্ত জরুরী। আইসিআইসিআই ব্যাঙ্ক এ ব্যাপারে ঠিক কি পথনির্দেশ দিচ্ছে আসুন তা জেনে নেওয়া যাক।

প্রথমেই ব্যাঙ্কটির পক্ষ থেকে একটি ব্যাপার স্পষ্ট করে দেয়া হয়েছে। তারা পরিষ্কারভাবেই জানিয়েছে যে কেওয়াইসি দাখিল করার মাধ্যমে কখনোই কোন রিওয়ার্ড বা ক্যাশব্যাক জেতার সুযোগ নেই। ফলে কেওয়াইসি আপডেটের নাম করে যে মেসেজগুলি আমাদের ক্যাশব্যাক প্রাপ্তির লোভ দেখিয়ে থাকে সেগুলিকে ১০০ শতাংশ ভুঁয়ো বলেই ধরে নিতে হবে। সুতরাং এই ধরনের মেসেজ বাহিত লিঙ্কগুলিতে ক্লিক করার কোন প্রশ্নই ওঠেনা।

আবার কিছু কিছু মেসেজ বড় অংকের লটারি জিতে যাওয়ার সংবাদ নিয়ে আসে। এসব মেসেজেও এমন লিঙ্ক থাকে যা শ্রীবৃদ্ধির বদলে আমাদের দুর্দশাকেই বহুগুণে বাড়িয়ে দেয়! অর্থাৎ সচেতন ভাবেই এই মেসেজগুলি এড়িয়ে যাওয়া উচিত। সবকিছুর মধ্যে এটা মনে রাখতে হবে যে কোন সংস্থাই আমাদের দুম করে বড়লোক করে দেওয়ার জন্য বসে নেই!

ফেক মেসেজ চেনার তৃতীয় উপায়টি হল, এই ধরনের মেসেজের বক্তব্য আমাদের অহেতুক ভীষণ তাড়া দিয়ে থাকে! মানে ধরুন কেউ হঠাৎ করেই পাঁচ লক্ষ টাকা জিতে গিয়েছেন এবং সেটা দাবী করার জন্য তার হাতে মাত্র ২৪ ঘন্টা সময় রয়েছে! এভাবে তাড়া দিয়েও প্রতারণাকারী বহু মানুষকে প্রভাবিত এবং শেষাবধি সর্বস্বান্ত করে থাকে।

সুতরাং স্মার্টফোনে যে মেসেজই আসুক না কেন, সর্বাগ্রে জরুরী তাকে ভালোভাবে যাচাই করা। নইলে অলীক সুখের স্বপ্ন দেখতে দেখতে কখন যে সর্বহারা হয়ে যাবেন, ধরতে পারবেন না! তাই সামান্য অসচেতনতার বশে কোন ভুঁয়ো ইউআরএল লিঙ্কে ক্লিক করবেন না। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এই লিঙ্কগুলিতে এমন অনেক ক্যারেক্টার ব্যবহার করা হয় যার ফলে এদের অনেকটা উদ্ভট দেখায়। তাই একটু সতর্ক থাকলে এই ধরণের অনিষ্টকর লিঙ্কগুলি চেনা সম্ভব বলে আইসিআইসিআই ব্যাঙ্কের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।