মোবাইল নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ভিডিও কলের ক্ষেত্রে পিছনের সারির দেশগুলির মধ্যে ভারত

আনলিমিটেড ডেটার হাতছানি থাকলেও ইন্টারনেট স্পিডের ক্ষেত্রে ভারত যে তার প্রতিবেশী দেশগুলির তুলনায় অনেকটাই পিছিয়ে, তা বারবার সামনে উঠে এসেছে। যদিও গত মাসে তারা এদিক থেকে খানিকটা উন্নতি করতে পেরেছিল। কিন্তু ক্ষতে মলম পড়তে না পড়তেই সামনে আসা আরেকটি পরিসংখ্যান টেলিকম সংস্থাগুলির পক্ষে অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়ালো। পরিসংখ্যানটি পেশ করেছে মোবাইল অ্যানালিটিক্স সংস্থা Opensignal। এক্ষেত্রে তারা মোবাইল নেটওয়ার্ক নির্ভর ভিডিও কলিং (Video Calls on Mobile Networks) অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে ৭৫টি দেশের তালিকা প্রস্তুত করেছে। এই তালিকায় আমাদের দেশ রয়েছে একেবারে নীচের দিকে, ৬৬ নম্বর স্থানে!

ওপেনসিগন্যাল (Opensignal) -এর এই তালিকায় ভারতের পরে রয়েছে মাত্র নয়টি দেশ যারা হলো – পেরু, আজারবাইজান, নাইজেরিয়া, শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ, ইকুয়েডর, কাজাখস্থান, পাকিস্তান এবং আলজিরিয়া। তালিকাটি প্রস্তুত করার ক্ষেত্রে তারা পরিষেবার ভিত্তিতে দেশগুলিকে ০ থেকে ১০০ এর মধ্যে পয়েন্ট দিয়েছেন। এই মোট পয়েন্ট বা স্কোরের নিরিখে উপরোক্ত ন’টি দেশ ভারতের থেকে পিছিয়ে রয়েছে।

Opensignal এর তালিকায় যে তিনটি দেশ প্রথম তিনের মধ্যে আছে, তারা হল – জাপান, নেদারল্যান্ড এবং দক্ষিণ কোরিয়া। এই তিনটি দেশের স্কোর যথাক্রমে – ৬৮.৭, ৬৮.৬ এবং ৬৮.২ পয়েন্ট। এই তিন দেশের বাসিন্দারা গ্রূপ ভিডিও কলিংয়ের অভিজ্ঞতার দিক থেকে সবথেকে বেশি পরিমাণে সন্তুষ্ট।

ইউরোপের বড় দেশগুলির পরিসংখ্যান কিন্তু ততটা মন্দ নয়। ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি স্পেন এবং গ্রেট ব্রিটেন প্রথম কুড়িটি দেশের মধ্যে উপরের দিকেই রয়েছে। প্রথম কুড়ির মধ্যে থাকলেও রাশিয়া রয়েছে এদের পরেই।

ওপেনসিগন্যালের পরিসংখ্যানে 5G এবং 4G পরিষেবার মধ্যে তফাতটা কিন্তু সহজেই চোখে পড়ছে। দ্রুতগতির ডেটার কারণে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ৫জি ব্যবহারকারীরা ৪জি গ্রাহকদের তুলনায় উন্নত ভিডিও কলিংয়ের পরিষেবা লাভ করেছেন। ৪জি’র তুলনায় ৫জি ইউজারদের স্কোর প্রায় ১১.৯ শতাংশ থেকে ৪২.৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে তাদের ভিডিও কলিং অভিজ্ঞতা যে ৪জি ব্যবহারকারীদের তুলনায় অনেকটাই ভালো, সেকথা বলার অপেক্ষা রাখে না।