কেবল অ্যাপ স্টোর নয়, ফেসবুকেরও বিকল্প আনতে মোদীর শরণাপন্ন হচ্ছে স্টার্ট-আপ সংস্থাগুলি

india-startups-asking-help-from-govt-to-break-google-facebook-dominance

গতকালই আমরা জানিয়েছি দেশীয় অ্যাপ নির্মাতা বা উদ্যোক্তা সংস্থাগুলি Google Play Store, Apple App Store -এর বিকল্প অ্যাপ স্টোরের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছেন। একাংশ দেশীয় স্টার্ট-আপ সংস্থাগুলি একত্রিত হয়ে এই বিষয়টি নিয়ে ভাবনা-চিন্তা করছে, আর এই সংস্থাগুলিকে উৎসাহিত করছেন Paytm-এর কো-ফাউন্ডার তথা সিইও বিজয় শেখর শর্মা।

সম্প্রতি রয়টার্সের তরফে আরও জানানো হয়েছে, শুধু গুগল নয়, দেশীয় স্টার্ট-আপ সংস্থাগুলি সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম ফেসবুকের বিকল্প আনার কথাও ভাবছে। সূত্রের খবর, গুগল বা ফেসবুকের মত বৈদেশিক প্রযুক্তি সংস্থাগুলির একাধিপত্যের বিরুদ্ধে কিভাবে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করা যায়, সেই বিষয়ে আলোচনা করতে সপ্তাহের শুরুতেই একটি ভার্চুয়াল কনফারেন্স করেছে এক ঝাঁক ভারতীয় স্টার্টআপ সংস্থা।

গত মঙ্গলবার সন্ধ্যার একটি জুম মিটিংয়ে, ওই স্টার্টআপ সংস্থাগুলির তরফে প্রায় ৫৬ জন প্রতিষ্ঠাতা উপস্থিত ছিলেন, সেখানে দেশীয় ডিজিটাল উদ্যোগের পক্ষে যে লবিবাজি চলছে তা কিভাবে সরকারের কানে তোলা যায় বা দেশের জনগণকে জানানো যায় – এই সংক্রান্ত আলোচনা করা হয়েছে।

পেটিএম কর্ণধার বিজয় শর্মার পাশাপাশি, ওই ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নিয়েছিলেন অনলাইন ইন্স্যুরেন্স অ্যাগ্রিগেটর Policybazaar-এর কর্মকর্তা যশীষ দহিয়া, Razorpay ডিজিটাল পেমেন্টের তরফ থেকে হার্শিল মাথুর এবং স্মার্ট হেলথ স্টার্টআপ GOQii-এর বিশাল গন্ডল। তাঁদের মতে, কোনো বিশ্বব্যাপী সংস্থা দ্বারা ভারতের সমস্ত ডিজিটাল স্বপ্ন নিয়ন্ত্রিত হতে পারেনা।

ইতিমধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও একইভাবে Google এবং Apple Inc. এর মত সংস্থাগুলির আধিপত্য বা স্বেচ্ছাচারের প্রতিবাদ করা হচ্ছে। ভারতের মত সেখানেও, প্লে স্টোর বা অ্যাপ স্টোরে অ্যাপ্লিকেশন উপলব্ধ রাখতে অ্যাপ ডেভেলপারদের থেকে কর চাওয়া হচ্ছে।

তবে যাইহোক, ভারতীয় সংস্থাগুলি আশা করছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী খুব শিগগিরই এই বিষয়েও কোনো “আত্মনির্ভর” পদক্ষেপ নেবেন, যার ফলে ভারতের ডিজিটাল বাস্তুতন্ত্র স্বাধীনভাবে বৃদ্ধি পাবে। কোনো বিকল্প দেশীয় অ্যাপ স্টোর তৈরি হয়ে গেলে অ্যাপ্লিকেশনগুলির ব্যবসায় যে বেশ উন্নতি হবে সেব্যাপারে আশাবাদী স্থানীয় অ্যাপ ডেভেলপাররা।