iQOO 7 ফোনে থাকবে প্রেসার সেন্সিটিভ স্ক্রিন ও স্ন্যাপড্রাগন ৮৮৮ প্রসেসর

iqoo-7-to-features-pressure-sensitive-screen-120hz-refresh-rate

ভিভোর সাব ব্রান্ড iQOO জানুয়ারির ১১ তারিখে স্ন্যাপড্রাগন ৮৮৮ প্রসেসরের দ্বিতীয় ফোন (প্রথম ফোন Xiaomi Mi 11) হিসেবে চীনে iQOO 7 লঞ্চ করতে চলেছে। লঞ্চ ডেট একদম নিকটে চলে আসায়, সংস্থাটি ফোনের মূল ফিচারগুলি এবার সামনে আনা করা শুরু করেছে। যেমন জানা গেছে যে, iQOO-এর আপকামিং এই ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইসে প্রেসার-সেন্সিটিভ বা চাপ সংবেদনশীল স্ক্রিন, ডুয়াল-লিনিয়ার মোটর, হাই-রেজ সার্টিফিকিশনের ডুয়াল স্টিরিও স্পিকার, ১২০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট, হাই টাচ স্যাম্পলিং রেট থাকবে।

iQOO 7-এর প্রেসার-সেন্সিটিভ স্ক্রিনের কথা বলতে গেলে, এই বৈশিষ্ট্যকে বলা হবে মনস্টার টাচ৷ ল্যান্ডস্কেপ মোডে গেম খেলার সময় এর ডুয়াল-লিনিয়ার মোটর ফোন ব্যবহারকারীকে পাওয়ারফুল ভাইব্রেশন (ডানদিকে ও বামদিকে) অনুভূত করাবে। কোম্পানি পোস্টার শেয়ার করে  বলেছে, ফোনটি কেবলমাত্র থ্রি-ডাইমেনশানাল সারাউন্ড ভাইব্রেশন সরবরাহ করবে এমনটা নয়, সেইসঙ্গে এতে হাই-রেজ সার্টিফিকিশনযুক্ত ডুয়াল স্পিকার আছে। আসলে, এটিতে একটি হাইফাই DAC চিপ থাকবে যার ডায়নামিক রেঞ্জ (DNR=১২০dB) ও THD<০.০৩ শতাংশ।

টিপস্টার ডিজিটাল চ্যাট স্টেশন iQOO 7-এর অফিসিয়াল প্যারামিটারের সারাংশ উইবোতে পোস্ট করেছেন। তিনি বলেছেন যে, এই ফোন ১০৮০x২৪০০ রেজোলিউশনের ৬.৬ ইঞ্চি পাঞ্চ হোল ডিসপ্লের সাথে আসবে৷ যার কাটআউট সেন্টারে থাকবে। এটি স্ন্যাপড্রাগন ৮৮৮ প্রসেসর দ্বারা পরিচালিত হবে। ফটোগ্রাফির জন্য ফোনের পিছনে থাকবে ট্রিপল ক্যামেরা। প্রাইমারি ক্যামেরাতে আছে ৪৮ মেগাপিক্সেলের Sony IMX598 সেন্সর, যা OIS (Optical Image Stablilization) অ্যান্টি-শেক সাপোর্ট করবে।

পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য ফোনে থাকবে ৪০০০ এমএএইচের ব্যাটারি। সাথে ১২০ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট দেওয়া হয়েছে। যার দরুণ iQOO 7 সবচেয়ে দ্রুত চার্জিং স্মার্টফোন হতে চলেছে। মাত্র ১৫ মিনিটেই ফোনটি ফুল চার্জ করা যাবে। রিপোর্ট অনুযায়ী, ফোনটি ১২ জিবি র‌্যামের (LPPDR5) সাথে আসবে। এতে থাকবে ২৫৬ জিবি পর্যন্ত ইন্টারনাল স্টোরেজ (UFS 3.1)। ফোনে অ্যান্ড্রয়েড ১১ বেসড ওরিজিন ওএস ইন্টারফেস থাকবে।