কবে আসছে Micromax এর 5G ফোন? জানিয়ে দিলেন সিইও রাহুল শর্মা

micromax-to-launch-5g-smartphone-in-q2-2021-in-india

চীনা স্মার্টফোন ব্র্যান্ডগুলি একের পর এক 5G ফোন লঞ্চ করলেও ভারতীয় সংস্থা Micromax, 5G ফোন আনার দৌড়ে যে কোনোভাবেই পিছিয়ে থাকতে ইচ্ছুক নয়, তা সম্প্রতি সংস্থার সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও রাহুল শর্মার কথাতেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল। মাইক্রোম্যাক্সের এ বছরের পরিকল্পনার কথা জানাতে রাহুল শর্মা ফের একবার 5G-র প্রসঙ্গেই আলোকপাত করেছেন। তাঁর কথায়, “চলতি বছরের দ্বিতীয়ার্ধে Micromax অ্যাগ্রেসিভ প্রাইস পয়েন্টে 5G ডিভাইস লঞ্চ করবে।” আসলে সুলভে 5G ফোন এনে Micromax আবার ভারতে স্মার্টফোনের হাড্ডাহাড্ডি প্রতিযোগিতার বাজারে নিজের হারানো শীর্ষস্থানটি দখল করতে চাইছে।

মূলত চীনা কোম্পানিদের টেক্কা দিতেই মাইক্রোম্যাক্স in Note 1 এবং in 1b স্মার্টফোনের হাত ধরে ভারতের স্মার্টফোন মার্কেটে প্রত্যাবর্তন করেছিল। পুরোনা ব্যর্থতা ঝেড়ে ফেলা আবার ফিরে আসার তাগিদ মাইক্রোম্যাক্সের এক নতুন পরিচিতির জন্ম দিয়েছে। দেশীয় প্রযুক্তিতে নির্মিত কোম্পানির ফোনদুটি যথেষ্ট সমাদৃতও হয়েছে। ম্যানুফ্যাকচারিং এবং রিসার্চ এন্ড ডেভলপমেন্টে বিনিয়োগ করার জন্য মাইক্রোম্যাক্সের কাছে ওয়ার চেস্ট রয়েছে প্রায় ৫০০ কোটি টাকা। এছাড়াও, কোম্পানির প্রোডাক্টের বিপুল চাহিদা জোগান দেওয়ার জন্য মাইক্রোম্যাক্স ভারতে তাদের স্মার্টফোন উৎপাদন ক্ষমতা বৃদ্ধি করছে বলে জানা গেছে।

রাহুল শর্মা বলছেন, “আমাদের কাছে এই মুহূর্তে মাত্র দুটি পণ্য আছে, কিন্তু আমি অবশ্যই বলতে চাই যে এটা একটা ‘স্বপ্নময় প্রত্যাবর্তন’। মার্চ-শেষে, বাজারে আমাদের আরেকটি পণ্য থাকা উচিত এবং এপ্রিল মাস থেকে প্রতি ত্রৈমাসিকে ৪-৫টি পণ্য আনা এবং প্রতি ৬-৮ মাস অন্তর পোর্টফোলিও রিফ্রেশ করার পরিকল্পনা আমাদের রয়েছে।”

উল্লেখ্য, লেটস টক ইন্ডিয়া কে লিয়ে’ (Let’s Talk India Ke Liye)-র দ্বিতীয় এপিসোডে কখন ৫জি স্মার্টফোন লঞ্চ করবে? এই প্রশ্নের জবাবে শর্মা বলেছিলেন, মাইক্রোম্যাক্সের বেঙ্গালুরু R&D (Research & Development) সেন্টারে ইঞ্জিনিয়াররা 5G স্মার্টফোনের ওপর দিনরাত কাজ করে চলেছেন। ব্যক্তিগতভাবে তিনিও যে ফাইভ-জি প্রোডাক্টটি নিয়ে উচ্ছাসিত তা শর্মার কন্ঠে ধরা পড়েছিল। সম্ভাব্য সময় প্রকাশ না করে তিনি তখন শুধু জানিয়েছিলেন, মাইক্রোম্যাক্স খুব শীঘ্রই দেশবাসীর সামনে ৫জি সক্ষম স্মার্টফোন নিয়ে হাজির হবে। তবে মাইক্রোম্যাক্সের প্রথম 5G ফোন যে চলতি বছরের দ্বিতীয়ার্ধে লঞ্চ হবে তা শর্মা এখন কনফার্ম করেই বলছেন।

তিনি আরও যোগ করেছেন, ” মাইক্রোম্যাক্স এখন তাদের অফলাইন উপস্থিতি আরও বাড়িয়ে তুলবে এবং আগামী সপ্তাহের মধ্যেই কোম্পানির প্রোডাক্ট ১৫ টিরও বেশী রাজ্য ১৮,০০০ হাজার খুচরো দোকানে উপলব্ধ হবে।

এখন মাইক্রোম্যাক্সের স্মার্টফোন এবং ফিচার ফোন তৈরির দায়িত্বে আছে ভগবতী প্রাইভেট লিমিটেড। যার মালিকানা আবার মাইক্রোম্যাক্সের হাতেই৷ ভিওয়ান্ডি (রাজস্থান), রুদ্রপুর (উত্তরাখন্ড), এবং হায়দরাবাদ (তেলেঙ্গানা)- এই তিনটি জায়গায় কোম্পানির ম্যানুফ্যাকচারিং ফেসিলিটি বর্তমান। শর্মা বলেছেন, “বর্তমানে কারখানাগুলিতে মাসে সর্বাধিক ২ মিলিয়ন স্মার্টফোন তৈরি হয়ে থাকে এবং আমরা সেগুলি ধীরে ধীরে ৩ মিলিয়ন করার জন্য সম্প্রসারণের পথে হাঁটবো।”

প্রশ্ন হচ্ছে, দেশে 5G এখন কী অবস্থায় দাঁড়িয়ে। বলাবাহুল্য, 5G পরিষেবা একসময় দিবাস্বপ্ন হলেও বিগত কয়েক মাসে সেই পরিস্থিতি দ্রুত পরিবর্তন ঘটেছে। ভারতে ৫জি চালু করার দৌঁড়ে কে বাজিমাত করে তার জন্য এখন টেলিকম কোম্পানিগুলির মধ্যে জোরদার লড়াই চলছে। মুকেশ আম্বানি দেশে 5G বিপ্লব আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। আবার ভোডাফোনও যে দেশে 5G ওয়্যারলেস পরিষেবা চালু করার জন্য প্রস্তুত, এই মর্মে বার্তা দিয়েছেন সংস্থার ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং সিইও রবিন্দর টাক্কার। তবে এখনও পর্যন্ত ভারতের প্রথম টেলিকম পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থা হিসেবে এয়ারটেল হাতে-কলমে 5G-র সফল প্রদর্শন করে দেখিয়েছে।

হায়দরাবাদে কোম্পানির নিজস্ব এগজ়িস্টিং লিবারলাইজড স্পেক্ট্রামকে এনএসএ (নন-স্ট্যান্ডোলোন) প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে ১৮০০ মেগাহার্টজ ব্যান্ডে এয়ারটেল ৫জি নেটওয়ার্কের পরীক্ষা করেছে। ডায়নামিক স্পেক্ট্রাম শেয়ারিং ব্যবহার করে এয়ারটেলের দাবি, তারা একই স্পেক্ট্রাম ব্লক থেকে ৫জি ও ৪জি সংযোগ পরিচালনা করেছে। এয়ারটেলের তরফে জানানো হয়েছিল, কোম্পানি এগজ়িস্টিং ৪জি স্পেক্ট্রাম ব্যান্ডের সাহায্য নিয়ে মিড-ব্যান্ড ছাড়াই বাণিজ্যিকভাবে ৫জি পরিষেবা চালু করতে পারে। তবে বিশেষত মিড-ব্যান্ডে সরকার ৫জি স্পেক্ট্রাম মঞ্জুর করা পর্যন্ত তারা অপেক্ষা করবে।

আবার শুধুমাত্র ফ্ল্যাগশিপ বা হাই-ইন্ড চিপসেটে ৫জি কানেক্টিভিটি এখন সীমাবদ্ধ নেই। এখন মিডিয়াটেক এবং কোয়ালকমের মতো চিপনির্মাতা সংস্থা ৫জি মোডেম সহ মিড-রেঞ্জ চিপ বানানো শুরু করেছে। বাজেট ফোনের জন্য কোয়ালকম যেমন স্ন্যাপড্রাগন ৪৮০ ৫জি প্রসেসরের ঘোষণা করেছে। আবার মিডিয়াটেকের হাতে আছে ৫জি রেডি ডাইমেনসিটি ৮০০ ইউ এবং ডাইমেনসিটি ১০০০+ চিপসেট। নিজস্ব স্মার্টফোনে 5G আস্বাদন করার জন্য ভারতবাসীকে আর কতদিন অপেক্ষা করতে হবে, তা এখন সময়ই বলবে।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন