অত্যাধিক ডেটা ব্যবহারের কারণে কমছে ইন্টারনেটের গতি, গ্রাহকদের কাছে আর্জি অ্যাসোসিয়েশনের

mobile-and-brodband-users-experiencing-slow-internet-speed-here-why

করোনা ভাইরাসের কারণে সারা দেশে লকডাউন কার্যকর রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে ঘরবন্দি লোকেরা সময় কাটাচ্ছে মোবাইল এবং হোম ব্রডব্যান্ড সার্ভিস ব্যবহার করে। আর এই কারণেই ইন্টারনেট স্পিড উল্লেখযোগ্য ভাবে কমেছে। একটি সমীক্ষা অনুসারে, মানুষ এখন ৩০ শতাংশ বেশি অনলাইন ভিডিও দেখতে ব্যস্ত। আর সেকারণেই ইন্টারনেটের গতি প্রায় ২০ শতাংশ কমেছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন যেহেতু লকডাউন আরও বেশ কয়েকদিন চলবে, ইন্টারনেটের গতি ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ আরও কমে যেতে পারে।

ডেটা ব্যবহার বেড়েছে ৩০ শতাংশ :

ইন্টারনেট সার্ভিসেস প্রোভাইডার্স অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়ার (ISPAI) সভাপতি রাজেশ ছারিয়া বলেছেন, “আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ডেটা ব্যবহার আরও বাড়তে পারে।” লকডাউন শেষ না হওয়া পর্যন্ত এই বৃদ্ধি থাকবে। তিনি আরও বলেন লকডাউন হওয়ার পর থেকে বেঙ্গালুরু এবং হায়দ্রাবাদের মতো শহরগুলিতে ইন্টারনেট ডেটা ব্যবহারের পরিমাণ প্রায় ৭০% বৃদ্ধি পেয়েছে। সেলুলার অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়া (COAI) এর অনুমান লকডাউনের পরে ইন্টারনেট ডেটা ব্যবহার প্রায় ৩০% বেড়েছে।

বুঝেশুনে ডেটা ব্যবহারের অনুরোধ :

অ্যাসোসিয়েশন থেকে গ্রাহকদের বুঝেশুনে ডেটা ব্যবহার করতে বলা হয়েছে, যাতে এই কঠিন সময়ে সবাই ইন্টারনেট পরিষেবা পায়। বিশেষত সকাল ৯ টা থেকে ১১ টা এবং বিকাল ৪ টা থেকে রাত ৯ টা অবধি ডেটা ব্যবহার ব্যাপকহারে বেড়ে যায়। আর সেকারণেই স্পিড কম পাওয়া যায়।

আরও ৩০ শতাংশ কমতে পারে ইন্টারনেট স্পিড :

টেলিকম মার্কেট বিশ্লেষক রাজীব শর্মা বলেছেন, ‘গত দুই সপ্তাহের মধ্যে রেসিডেন্সিয়াল এলাকায় কর্মরত ব্যবহারকারীদের সংখ্যা বেড়েছে তিনগুণ, যার ফলে ডাউনলোডের গড় গতি প্রায় ২০ শতাংশ কমেছে। বর্তমানে ইন্টারনেটের গতি ৯ থেকে ১০ এমবিপিএসের মধ্যে আছে তবে পরিস্থিতি যদি একই রকম থাকে তবে এই গতি ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ কমে যেতে পারে।’