সাবধান! টাওয়ার বসানোর নামে চলছে জালিয়াতি, ভুলেও কোনো অর্থ লেনদেন করবেন না

গত কয়েক বছরে গ্রাহকদের উন্নত পরিষেবা দিতে টেলিকম কোম্পানিগুলি দ্রুত মোবাইল নেটওয়ার্ক বসানোর কাজ করছে। এই পরিসংখ্যান দ্বারা আপনি সহজেই উপরের লাইনের সত্যতা প্রমান পাবেন যে, গত এক বছরে ৬৬,৬৯০ টি নতুন টাওয়ার বসানো হয়েছে। এরফলে টাওয়ারের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫,৯০,০০০ এরও বেশি। তবে এই টাওয়ার বসানো নিয়ে শুরু হয়েছে জালিয়াতি। মোবাইল টাওয়ার বসানোর নামে কিছু অসাধু মানুষ খবরের কাগজ বা ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে বড় বড় বিজ্ঞাপন দিচ্ছে এবং মানুষের কাছ থেকে টাকা নিচ্ছে। তারা নিজেদের ট্রাই বা কোনো টেলিকম অপারেটরের প্রতিনিধি হিসাবে পরিচয় দিয়ে অর্থ আদায় করছে। আপনাকে জানিয়ে রাখি টাওয়ার বসানোর জন্য কোনো অর্থ লাগেনা।

অর্থের লোভ দেখিয়ে জালিয়াতি :

জালিয়াতরা সাধারণ মানুষকে টাওয়ার বসিয়ে হাজার হাজার টাকা ইনকামের লোভ দেখায় (টাওয়ার বসানোর টাকা, জায়গা ভাড়া এবং রক্ষণাবেক্ষণের চাকরি ইত্যাদি)। বিনিময়ে তারা বলে যে নিজের জায়গায় টাওয়ার বসানোর জন্য কোম্পানিকে কিছু টাকা দিতে হবে। এই টাকা লাইসেন্সের জন্য নেওয়া হবে। কখনও বলা হয় পরে টাকা ফেরত দেওয়া হবে। এবার সাধারণ মানুষ ইনকামের লোভে সেই টাকা দিলে তাদের কোম্পানির জাল সই ও স্ট্যাম্প সহ একটি ভুয়ো কাগজ দেওয়া হয়। এরপর কোনো অছিলায় ফের তার কাছে টাকা দাবি করা হয়। প্রথমে একবার টাকা দিয়ে ফেলায় সেই ব্যক্তি বাধ্য হয়ে ফের টাকা দিয়ে ফেলে। এইভাবে লক্ষ লক্ষ টাকা জালিয়াতির শিকার হয়।

দক্ষিণ ২৪ পরগনা সহ বিভিন্ন জায়গায় চলছে জালিয়াতি :

পশ্চমবঙ্গ সহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় এই জালিয়াতির জাল বিছিয়েছে প্রতারকরা। দক্ষিণ ২৪ পরগনার সনাতন নস্কর একইভাবে প্রতারিত হয়েছেন। জালিয়াতরা টাওয়ার বসানোর নামে তার থেকে প্রথমে ৩৫ হাজার টাকা নেয়। এরপর কিছু ভুয়ো কাগজ পাঠায়। পরে ফের টাকা দাবি করে। সনাতন বাবু টাকা না দিতে চাইলে তাকে ভয় দেখানো হয়। এইভাবে তার থেকে লক্ষাধিক টাকা জালিয়াতি করা হয়।

এইখানে অভিযোগ জানান :

ট্রাই এর তরফে জানানো হয়েছে প্রতিদিন প্রায় ১৫ টি এই ধরণের জালিয়াতির কথা তারা জানতে পারে।আপনাকে জানিয়ে রাখি কোনো টেলিকম কোম্পানি নিজেদের থেকে টাওয়ার বসানোর কাজ করেনা। এরজন্য অন্য সংস্থা আছে। টাওয়ার বসানোর জন্য কোনো অর্থ নেওয়া হয় না। তাই কেউ যদি টাওয়ার বসানোর নামে টাকা চায় তবে সে একজন ঠগ। আপনার এলাকায় যদি এমন ধরণের কোনো ঘটনা ঘটে তাহলে হেল্পলাইন লাইন ১৪৪০৪ বা ১৮০০১১৪০০ নম্বরে কল করে বিস্তারিত জানান। এছাড়াও www.consumerhelpline.gov.in ওয়েবসাইট গিয়েও অভিযোগ করতে পারেন।

টেকগাপের মেম্বাররা ও সদ্য যোগ দেওয়া লেখকরা এই প্রোফাইলের মাধ্যমে টেকনোলজির সমস্ত রকম খুঁটিনাটি আপনাদের সামনে আনে।