5G Phones: ২০,০০০ টাকার কমে ৫জি স্মার্টফোন কিনতে চান? রইল ৫টি সেরা বিকল্পের হদিশ

Top 5 5G Smartphone under rs 20000
Top 5 5G Smartphone

পঞ্চম প্রজন্মের ব্রডব্যান্ড সেলুলার নেটওয়ার্ক বা 5G (৫জি)-কে অক্টোবর থেকে ভারতে রোলআউট করা শুরু করে দেওয়া হবে বলে ইতিমধ্যেই নিশ্চিত করেছে ভারতের টেলিকমিউনিকেশন বিভাগ ওরফে DoT (ডিওটি)। আর এই ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে, এখন বহু মানুষ ‘হাই-স্পিড’ নেট সার্ফিংয়ের অভিজ্ঞতা লাভের জন্য তাদের 4G (৪জি) মোবাইলকে আপগ্রেড করে নতুন 5G হ্যান্ডসেট কিনছেন। এই পরিস্থিতিতে আপনিও যদি দীর্ঘদিন ধরে এই একই ইচ্ছা পোষণ করে থাকেন, তবে আজ আমরা আপনাকে ভারতের বাজারে ২০,০০০ টাকার নিচে বিদ্যমান পাঁচটি সেরা 5G স্মার্টফোনের হদিস দেব। এক্ষেত্রে প্রতিবেদনে উল্লিখিত প্রত্যেকটি মডেলের হার্ডওয়্যার তথা সফ্টওয়্যার পারফরম্যান্স যেমন ভালো পাবেন, তেমনি ফ্রন্ট ক্যামেরা, ব্যাটারি ক্যাপাসিটি এবং চার্জিং টেকনোলজিও যথেষ্ট উন্নত। পাশাপাশি কিছু ফোন আবার এক্সটেন্ডেড র‌্যাম ফিচার এবং দুর্দান্ত গেমিং অভিজ্ঞতাও অফার করে। তাহলে চলুন, হাই-বাজেট রেঞ্জের অধীনে আসা ‘বেস্ট সেলিং’ 5G স্মার্টফোনের তালিকাটি এবার দেখে নেওয়া যাক।

২০,০০০ টাকার নিচে উপলব্ধ এই 5G স্মার্টফোনগুলি সেরা

১. OnePlus Nord CE 2 Lite 5G: ডুয়াল-সিমের (ন্যানো) ওয়ানপ্লাস নর্ড সিই ২ লাইট ৫জি স্মার্টফোনের দাম ১৯,৯৯৯ টাকা। ফিচার বলতে, এই ফোনে কর্নিং গরিলা গ্লাস ভিক্টাস প্রোটেকশনসহ ৬.৫৯ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (১,০৮০×২,৪১২ পিক্সেল) ডিসপ্লে রয়েছে যার অ্যাসপেক্ট রেশিও ২০:৯, পিক্সেল ডেন্সিটি ২০২ পিপিআই, টাচ রেসপন্স রেট ২৪০ হার্টজ এবং রিফ্রেশ রেট (ডায়নামিক) ১২০ হার্টজ। তদুপরি, পারফরম্যান্সের জন্য উক্ত হ্যান্ডসেটটিতে আছে অ্যাড্রেনো ৬১৯ জিপিইউ এবং অক্টা-কোর স্ন্যাপড্রাগন ৬৯৫ প্রসেসর। সফ্টওয়্যার ফ্রন্টে এটি অ্যান্ড্রয়েড ১২ ভিত্তিক অক্সিজেনওএস ১২.১ কাস্টম স্কিনে চলে। আর ফটোগ্রাফির জন্য এতে ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ দেওয়া হয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ২ মেগাপিক্সেল শ্যুটার এবং ২ মেগাপিক্সেল ডেপ্থ সেন্সর। ডিভাইসের সামনে একটি ১৬ মেগাপিক্সেলের Sony IMX471 সেলফি ক্যামেরাও দেখা যাবে। এছাড়া এতে ইন-ডিসপ্লে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর পাওয়া যাবে। আবার, পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য নর্ড সিই ২ লাইট ৫জি মডেল ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি অফার করবে, যার সাথে ৩৩ওয়াট সুপারভোক (SuperVOOC) ওয়্যারড চার্জিং সাপোর্ট উপলব্ধ। বলে রাখি, এই চার্জিং টেকনোলজি ডিভাইসকে মাত্র ৩০ মিনিটে ৫০% পর্যন্ত চার্জ করার ক্ষমতা রাখে – এমনটাই দাবি করা হয়েছে।

২. Moto G62 5G: ১৭,৯৯৯ টাকা দামের মোটো জি৬২ ৫জি ফোনে ১২০ হার্টজ রিফ্রেশ রেটের একটি ৬.৫ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস আইপিএস এলসিডি ডিসপ্লে দেখা যাবে। এই ডিসপ্লের ডিজাইন পাঞ্চ হোল স্টাইল, যার কাট আউটের মধ্যে ১৬ মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা উপস্থিত। আবার ফোনের পিছনে ৫০ মেগাপিক্সেল কোয়াড পিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ১১৮ ডিগ্রি ফিল্ড-অফ-ভিউ সহ ৮ মেগাপিক্সেল আল্ট্রা-ওয়াইড লেন্স + ডেপ্থ সেন্সর ও ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো সেন্সর সম্বলিত ট্রিপল ক্যামেরা সেটআপ বর্তমান। এছাড়া ১২ টি ৫জি ব্যান্ড সাপোর্ট সহ আসা মোটো জি৬২ ৫জি ফোনে পারফরম্যান্সের জন্য কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৪৮০ প্লাস প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে এতে অ্যান্ড্রয়েড ১২ ভিত্তিক মাইইউএক্স কাস্টম স্কিন পাওয়া যাবে। পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য উক্ত ফোনে ৫,০০০ এমএএইচ ব্যাটারি আছে, যা ২০ ওয়াট টার্বো পাওয়ার ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট করবে। তদুপরি, সিকিউরিটির জন্য এতে সাইড মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর ও ফেস আনলক ফিচার উপলব্ধ।

৩. iQOO Z6 5G: এই ফোনটি কিনতে ১৬,৯৯৯ টাকা খরচ হবে। বদলে আইকো জেড৬ ৫জি ফোনে একটি ৬.৫৮ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (১০৮০ x ২৪০৮ পিক্সেল) ডিসপ্লে পাবেন, যা ১২০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট ও ২৪০ হার্টজ টাচ স্যাম্পলিং রেট সাপোর্ট করে। পারফরম্যান্সের জন্য এই ফোনটি কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৬৯৫ প্রসেসর সহ এসেছে। ক্যামেরা ফ্রন্টের কথা বললে, আলোচ্য মডেলের ৫০ মেগাপিক্সেল Samsung ISOCELL JN1 প্রাইমারি ক্যামেরাযুক্ত ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ দেখা যাবে। এর মধ্যে সেলফি ও ভিডিও কলিংয়ের জন্য ফোনটিতে উপস্থিত থাকবে এফ/২.০ লেন্স সহ ১৬ মেগাপিক্সেল Samsung 3P9 ফ্রন্ট ক্যামেরা সেন্সর। এছাড়া পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য আইকো জেড৬ ৫জি ফোনে ১৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং টেকনোলজি সমর্থিত ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে। যেখানে সিকিউরিটির জন্য এতে সাইড মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর মিলবে।

৪. Redmi Note 11T 5G: ডুয়েল সিমের রেডমি নোট ১১টি ৫জি ফোনে রয়েছে একটি ৬.৬ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (১,০৮০x২,৪০০ পিক্সেল) IPS LCD ডিসপ্লে। এই ডিসপ্লে কর্নিং গরিলা গ্লাস ৩ প্রোটেকশনসহ এসেছে এবং এটি ৯০ হার্টজ অ্যাডাপ্টিভ রিফ্রেশ রেট ও ২০:৯ অ্যাসপেক্ট রেশিও সাপোর্ট করে। মাল্টিটাস্কিং ও ফাস্ট পারফরম্যান্সের জন্য ডিভাইসে, মালি জি৫৭ এমসি২ জিপিইউসহ অক্টা কোর মিডিয়াটেক ডাইমেনসিটি ৮১০ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। আবার এটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক এমআইইউআই ১২.৫ কাস্টম স্কিন দ্বারা চালিত। উল্লেখ্য, ফোনটি ৩ জিবি পর্যন্ত এক্সটেন্ডেড র‌্যাম সাপোর্ট করে। অন্যদিকে ফটোগ্রাফির জন্য রেডমি আনীত এই ফোনে ডুয়াল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ ৫০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর ও ৮ মেগাপিক্সেল আল্ট্রা ওয়াইড শুটার বর্তমান। একইভাবে ফোনটির ডিসপ্লেতে থাকা পাঞ্চ-হোল কাটআউটের মধ্যে অবস্থিত ১৬ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা। এক্ষেত্রে পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য এই ৫জি ফোনে ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে, যার সাথে ৩৩ ওয়াট প্রো ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট করে। তাছাড়া সিকিউরিটি ফিচার হিসাবে উক্ত ফোনে সাইড মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর রয়েছে। এর দাম ১৫,৯৯৯ টাকা।

৫. Realme 9 5G : এই ফোনটির দামও ১৫,৯৯৯ টাকা। তবে অ্যান্ড্রয়েড ১১ ভিত্তিক রিয়েলমি ইউআই ২.০ (Realme UI 2.0) কাস্টম স্কিন দ্বারা চালিত রিয়েলমি ৯ ৫জি ফোনে একটি ৬.৫ ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (১,০৮০x২,৪০০ পিক্সেল) ডিসপ্লে আছে, যা ৯০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট এবং ৬০০ নিট পিক ব্রাইটনেস সাপোর্ট করে। এটি মিডিয়াটেক ডাইমেনসিটি ৮১০ চিপসেটসহ এসেছে। আর এই ডিভাইসে ৫ জিবি ভার্চুয়াল র‌্যামের সাপোর্ট পাওয়া যাবে। ফটোগ্রাফির জন্য, কথিত হ্যান্ডসেটে ৪৮ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, একটি অনির্দিষ্ট মনোক্রোম পোর্ট্রেট সেন্সর এবং এফ/২.৪ অ্যাপারচার বিশিষ্ট ম্যাক্রো লেন্সযুক্ত ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ দেওয়া হয়েছে। একই সাথে, ফোনের সামনে একটি ১৬ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা দেখা যাবে। পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য রিয়েলমি ৯ ৫জি ফোনে, ১৮ ওয়াট কুইক চার্জ সাপোর্টসহ ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে। এতে একটি সাইড-মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর বর্তমান।