Vivo Y02 vs Infinix Hot 20 Play: ইনফিনিক্সের ফোনের কাছে পাত্তা পাবে না নতুন লঞ্চ হওয়া ভিভো ওয়াই০২

Vivo Y02 vs Infinix Hot 20 Play এর মধ্যে কে সেরা, দেখে নিন তুলনামূলক আলোচনা

Vivo Y02 vs Infinix Hot 20 Play comparison

গত ২৯শে নভেম্বর একপ্রকার চুপিসারে ইন্দোনেশিয়ার বাজারে Vivo Y02 লঞ্চ হয়েছিল। আর আজ (৫ই ডিসেম্বর) কয়েক ঘন্টা আগেই ভারতেও ফোনটি পা রেখেছে, যার দাম রাখা হয়েছে ৮,৯৯৯ টাকা। এদিকে গত ১লা ডিসেম্বর একই মূল্যে ভারতে লঞ্চ হয় Infinix Hot 20 Play। তবে দাম একসমান হলেও, ফিচারের দিক থেকে দুটি ডিভাইসের মধ্যে একাধিক পার্থক্য বিদ্যমান। বিশেষত স্টোরেজ, ক্যামেরা এবং ব্যাটারি ক্যাপাসিটির নিরিখে Infinix -এর ফোনটি কিন্তু অনেকটাই এগিয়ে আছে। ফলে এখন দেখার বিষয়, মাত্র ৪ দিনের ব্যবধানে ভারতে লঞ্চ হওয়া Vivo Y02 এবং Infinix Hot 20 Play স্মার্টফোন দুটির মধ্যে ক্রেতারা কোনটিকে অধিক পছন্দ করবে! এক্ষেত্রে এই ফলাফলের একটি আগাম আভাস আপনাদের দিতে আজ আমরা আলোচ্য স্মার্টফোন-দ্বয়ের মধ্যে ফিচারগত তুলনামূলক আলোচনা করবো।

Vivo Y02 vs Infinix Hot 20 Play : ডিসপ্লে, সেন্সর

লেটেস্ট ভিভো ওয়াই০২ স্মার্টফোন ৬.৫১ ইঞ্চির এইচডি প্লাস (১,৬০০x৭২০ পিক্সেল) LCD ডিসপ্লে সহ এসেছে। এই ডিসপ্লের ডিজাইন ডিউ ড্রপ নচ স্টাইলের এবং এটি ইউজারের চোখকে ব্লু লাইট থেকে সুরক্ষিত রাখবে। এটি ফেস অ্যাওয়েক ফিচার সহ এসেছে।

ইনফিনিক্স হট ২০ প্লে স্মার্টফোনে ৬.৮২-ইঞ্চির এইচডি প্লাস (১৬৪০x৭২০ পিক্সেল) LCD ডিসপ্লে রয়েছে, যা ৯০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট এবং ১২০ হার্টজ টাচ স্যাম্পলিং রেট সমর্থন করে। আর নিরাপত্তার জন্য এই হ্যান্ডসেটে রিয়ার ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার পাওয়া যাবে।

Vivo Y02 vs Infinix Hot 20 Play : প্রসেসর, অপারেটিং সিস্টেম, র‍্যাম, স্টোরেজ

পারফরম্যান্সের জন্য সদ্য আগত ভিভো ওয়াই০২ স্মার্টফোনে ব্যবহার করা হয়েছে মিডিয়াটেকের একটি নামবিহীন অক্টা-কোর প্রসেসর। মনে করা হচ্ছে এই চিপসেট হেলিও পি২২ হতে পারে। আর অপারেটিং সিস্টেম হিসাবে এতে অ্যান্ড্রয়েড ১২ গো এডিশন ভিত্তিক ফানটাচ ওএস ১২ (Funtouch OS 12) কাস্টম স্কিন পাওয়া যাবে। ডিভাইসটি ৩ জিবি র‍্যাম ও ৩২ জিবি স্টোরেজ সহ এসেছে।

অভ্যন্তরীণ স্পেসিফিকেশনের কথা বললে, ইনফিনিক্স হট ২০ প্লে স্মার্টফোনে মিডিয়াটেক হেলিও জি৩৭ প্রসেসর আছে। এটি অ্যান্ড্রয়েড ১২ ভিত্তিক এক্সওএস ১০ ৬.০ (XOS 10 6.0) কাস্টম স্কিন দ্বারা চালিত। আর স্টোরেজ হিসাবে এই ফোনে ৪ জিবি LPDDR4x র‌্যাম এবং ৬৪ জিবি মেমরি বর্তমান। যদিও ডিভাইসটিতে অতিরিক্ত ৩ জিবি পর্যন্ত ভার্চুয়াল র‌্যামের সাপোর্ট করে।

Vivo Y02 vs Infinix Hot 20 Play : ক্যামেরা সেটআপ

ফটোগ্রাফির জন্য ভিভো ওয়াই০২ স্মার্টফোনে ৮ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা পাওয়া যাবে। এই রিয়ার সেন্সরটি বিল্ড-ইন বোকেহ অ্যালগরিদম সহ এসেছে, যা ছবির গুণমানকে আরো উন্নত করে। আর সেলফি বা ভিডিও চ্যাটিংয়ের সুবিধার্থে ডিভাইসের সামনে দেওয়া হয়েছে একটি ৫ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট-ফেসিং ক্যামেরা।

ফটো তোলার জন্য ইনফিনিক্স হট ২০ প্লে স্মার্টফোনের রিয়ার প্যানেলে কোয়াড-LED ফ্ল্যাশ সহ ডুয়াল ক্যামেরা সেটআপ দেখা যাবে, যার প্রাইমারি সেন্সরটি ১৩-মেগাপিক্সেলের। আর সেলফি ও ভিডিও কলিংয়ের জন্য ডিভাইসের ডিসপ্লেতে থাকা পাঞ্চ-হোল কাটআউটের মধ্যে উপস্থিত রয়েছে LED ফ্ল্যাশ লাইট সহ একটি ৮-মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট-ফেসিং ক্যামেরা।

Vivo Y02 vs Infinix Hot 20 Play : ব্যাটারি, চার্জিং টেকনোলজি, কানেক্টিভিটি অপশন

ভিভো ওয়াই০২ স্মার্টফোনের কানেক্টিভিটি অপশনের মধ্যে সামিল রয়েছে – ৪জি, ডুয়েল-ব্যান্ড ওয়াইফাই, ব্লুটুথ ৫.০, জিএনএসএস, মাইক্রো ইউএসবি পোর্ট, ডুয়েল সিম স্লট, মাইক্রোএসডি কার্ড স্লট এবং ৩.৫ মিমি হেডফোন জ্যাক। আর পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য উক্ত হ্যান্ডসেটে ১০ ওয়াট চার্জিং টেকনোলজির সাপোর্ট সহ ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি রয়েছে। সংস্থার দাবি অনুসারে, এই ব্যাটারি একক চার্জে ১৮ ঘন্টা অনলাইন ভিডিও স্ট্রিমিংয়ে সমর্থ।

কানেক্টিভিটির জন্য ইনফিনিক্স হট ২০ প্লে স্মার্টফোনে – মাইক্রোএসডি কার্ড স্লট, ইউএসবি টাইপ-সি পোর্ট এবং ৩.৫ মিমি অডিও জ্যাক অন্তর্ভুক্ত থাকছে। আর পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য আলোচ্য মডেলে ব্যবহার করা হয়েছে ৬,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি, যা ১৮ ওয়াট চার্জিং সাপোর্ট করে।

Vivo Y02 vs Infinix Hot 20 Play : পরিমাপ

ভিভো ওয়াই০২ স্মার্টফোনের পুরুত্ব ৮.৪৯ মিমি এবং ওজন ১৮৬ গ্রাম।

ইনফিনিক্স হট ২০ প্লে স্মার্টফোনের পরিমাপ ১৭১x৭৮x৮.৯ মিমি এবং ওজন ২০৯.৬ গ্রাম।

Vivo Y02 vs Infinix Hot 20 Play : দাম

ভারতের বাজারে ভিভো ওয়াই০২ ফোনের ৩ জিবি র‍্যাম + ৩২ জিবি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্টের দাম ৮,৯৯৯ টাকা ধার্য করা হয়েছে। ডিভাইসটিকে – অর্কিড ব্লু ও কসমিক গ্রে কালার অপশনে বেছে নেওয়া যাবে।

ভারতে ইনফিনিক্স হট ২০ প্লে স্মার্টফোনকে ৪ জিবি র‌্যাম + ৬৪ জিবি স্টোরেজ যুক্ত একক ভ্যারিয়েন্টে লঞ্চ করা হয়েছে। এর বিক্রয় মূল্যও ৮,৯৯৯ টাকা রাখা হয়েছে। এটি – রেসিং ব্ল্যাক, অরোরা গ্রিন, ফ্যান্টাসি পার্পল এবং লুনা ব্লু কালার বিকল্পে এসেছে।