মোবাইল

দুর্দান্ত ক্যামেরার সাথে অসাধারণ ফিচার, Vivo-র সেরা এই পাঁচটি ফোন আপনার জন্য উপযুক্ত

স্টাইলিশ ডিজাইনের পাশাপাশি যারা নিজেদের মোবাইলেই দুর্দান্ত ফটোগ্রাফি অভিজ্ঞতা উপভোগ করতে চান, তাদের জন্য Vivo সংস্থার স্মার্টফোনগুলি আদর্শ। কেননা এই সংস্থাটি তাদের বাজেট থেকে প্রিমিয়াম প্রত্যেকটি রেঞ্জের হ্যান্ডসেটে দুর্দান্ত ক্যামেরা অফার করে। এছাড়া ফিচারের দিক থেকেও ডিভাইসগুলি যথেষ্ট অ্যাডভান্স হয়। তাই আপনি যদি নিজের জন্য একটি Vivo স্মার্টফোন কিনতে ইচ্ছুক থাকেন, তবে আজ আমরা এই প্রতিবেদনে এমন ৫টি মডেলের খোঁজ দেব যেগুলিকে ই-কমার্স সাইট Amazon -এ ৩৮% পর্যন্ত ডিসকাউন্ট সহ অতিশয় সস্তায় বিক্রি করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে এই তালিকায় – Vivo Y01, Vivo Y15s, Vivo Y16, Vivo Y22 এবং Vivo Y35 স্মার্টফোন সামিল থাকছে। উল্লেখিত প্রতিটি মডেলকে ২০,০০০ টাকার কমে পাওয়া যাবে।

Amazon -এ ২০,০০০ টাকার কমে উপলব্ধ ৫টি সেরা Vivo স্মার্টফোনের তালিকা

Vivo Y01 (Sapphire Blue, 2GB RAM, 32GB ROM) : ৭,৯৯৯ টাকা (৩৮% বা ৫,০০০ টাকা ডিসকাউন্ট)

ডুয়েল-সিমের (ন্যানো) ভিভো ওয়াই০১ ফোনে ৬.৫১-ইঞ্চির এইচডি প্লাস (৭২০x১,৬০০ পিক্সেল) হ্যালো ফুল ভিউ ডিসপ্লে আছে। এই ডিসপ্লে ভিভোর নেটিভ আই প্রোটেকশন মোড এবং ২০:৯ এসপেক্ট রেশিও সাপোর্ট করে। পারফরম্যান্সের জন্য ডিভাইসটি মিডিয়াটেক হেলিও পি৩৫ প্রসেসর সহ এসেছে। এটি অ্যান্ড্রয়েড ভিত্তিক ফানটাচ ওএস ১১.১ (Funtouch OS 11.1) কাস্টম স্কিনে রান করে। ফটোগ্রাফির জন্য, ভিভোর এই হ্যান্ডসেটে LED ফ্ল্যাশ সহ ৮ মেগাপিক্সেলের রিয়ার ক্যামেরা এবং ৫ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা উপস্থিত। পাওয়ার ব্যাকআপের ক্ষেত্রে, ভিভো ওয়াই০১ -এ শক্তিশালী ৫,০০০ এমএএইচ ব্যাটারি রয়েছে। আর নিরাপত্তার জন্য এই ৪জি ফোনে ‘ফেস ওয়েক’ ফিচার মিলবে।

Vivo Y01 বিশেষত্ব –

• এইচডি প্লাস ফুল ভিউ ডিসপ্লে প্যানেল
• মিডিয়াটেক হেলিও পি৩৫ প্রসেসর
• স্মুথ পারফরম্যান্স সরবরাহকারী ফানটাচ অপারেটিং সিস্টেম

Vivo Y15s Mystic Blue (3GB RAM & 32GB ROM) : ৯,৪৯৯ টাকা (৩২% বা ৪,৪৯১ টাকা ডিসকাউন্ট)

ভিভো ওয়াই১৫এস স্মার্টফোনে আছে ৬.৫১-ইঞ্চির এইচডি প্লাস (৭২০ x ১৬০০ পিক্সেল) ওয়াটার ড্রপ নচ ডিসপ্লে, যার এসপেক্ট রেশিও ২০:৯। এতে মিডিয়াটেক হেলিও পি৩৫ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ (গো এডিশন) ভিত্তিক ফানটাচ ওএস ১১.১ কাস্টম স্কিনে রান করে। ছবি তোলার জন্য এই হ্যান্ডসেটে ১৩ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর এবং ২ মেগাপিক্সেল ওয়াইড অ্যাঙ্গেল সেন্সর সহ ডুয়াল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ আছে। আর ডিভাইসের সামনে ৮ মেগাপিক্সেলের সেলফি শ্যুটার অবস্থান করছে। পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য ভিভো ওয়াই১৫এস ফোনে ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে, যা ১০ ওয়াট চার্জিং সাপোর্ট করে। আর সিকিউরিটির জন্য মিলবে সাইড মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর।

Vivo Y15s বিশেষত্ব –

• হাই কোয়ালিটি ডিসপ্লে প্যানেল,
• ডুয়েল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ,
• সাইড মাউন্টেড ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর।

Vivo Y16 (Drizzling Gold, 4GB RAM, 64GB Storage) : ১২,৪৯৯ টাকা (২২% বা ৩,৫০০ টাকা ডিসকাউন্ট)

ডুয়েল সিমের ভিভো ওয়াই১৬ ফোনে ৬.৫১-ইঞ্চি এইচডি প্লাস (১,৬০০x৭২০ পিক্সেল) IPS LCD ডিসপ্লে আছে, যা ৬০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট সাপোর্ট করে। এই ডিভাইস মিডিয়াটেক হেলিও পি৩৫ প্রসেসর সহ এসেছে। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১২ ভিত্তিক ফানটাচ ওএস ১২ (Funtouch OS 12) কাস্টম ইউজার ইন্টারফেসে চলে। আর এই হ্যান্ডসেটে ১ জিবি ভার্চুয়াল র‌্যাম সাপোর্ট করে। তদুপরি, ছবি তোলার জন্য ভিভো ওয়াই১৬ ফোনের পিছনে ডুয়েল ক্যামেরা ইউনিট বর্তমান। এগুলি হল – ১৩ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর ও ২ মেগাপিক্সেল সেকেন্ডারি সেন্সর। অন্যদিকে সেলফি ও ভিডিও কলিংয়ের জন্য এতে ৫ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট-ফেসিং ক্যামেরা পাওয়া যাবে। আর পাওয়ার ব্যাকআপের ক্ষেত্রে, ভিভো ওয়াই-সিরিজের এই ফোনে ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি দেওয়া হয়েছে, যা ১০ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট করে। ডিভাইসটির পাওয়ার বাটনে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর এম্বেডেড রয়েছে।

Vivo Y16 বিশেষত্ব –

• ১ জিবি ভার্চুয়াল র‌্যাম,
• অ্যান্ড্রয়েড ১২ ভিত্তিক কাস্টম ওএস,
• ৫,০০০ এমএএইচ ব্যাটারি।

Vivo Y22 (Metaverse Green, 6GB RAM, 128GB Storage) : ১৬,৪৯৯ টাকা (১৭% বা ৩,৪৯১ টাকা ডিসকাউন্ট)

ভিভো ওয়াই২২ স্মার্টফোনে দেখা যাবে ৬.৫৫-ইঞ্চির এইচডি প্লাস (৭২০ x ১৬১২ পিক্সেল) IPS LCD ডিসপ্লে, যা ৮৯.৬৭% স্ক্রিন-টু-বডি রেশিও, ৯০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট এবং ৫৩০ নিট পিক ব্রাইটনেস অফার করবে। আবার ডিসপ্লেটির ডিভাইস ওয়াটার-ড্রপ নচ স্টাইলের, যার কাটআউটের মধ্যে ৮ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা অবস্থিত। আবার ফোনের ব্যাক প্যানেলে ডুয়েল ক্যামেরা সেটআপ বর্তমান। এগুলি হল – ৫০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর ও ২ মেগাপিক্সেল বোকেহ সেন্সর। উন্নত পারফরম্যান্সের জন্য ভিভো ওয়াই২২ ফোনে মিডিয়াটেক হেলিও জি৮৫ প্রসেসর সমন্বিত। ফোনটি অ্যান্ড্রয়েড ১১ বেসড ফানটাচওএস ১২ কাস্টম স্কিন দ্বারা চালিত। এই ডিভাইস ২ জিবি পর্যন্ত ভার্চুয়াল র‌্যাম সাপোর্ট করে। আর পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে, যা ১৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট করে।

Vivo Y22 বিশেষত্ব –

• ২ জিবি ভার্চুয়াল র‌্যাম,
• ৫০ মেগাপিক্সেল মুখ্য সেন্সর যুক্ত ডুয়েল রিয়ার ক্যামেরা ইউনিট,
• ১৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং।

Vivo Y35 (Dawn Gold, 8GB RAM, 128GB Storage) : ১৮,৪৯৯ টাকা (২০% বা ৪,৫০০ টাকা ডিসকাউন্ট)

ভিভো ওয়াই৩৫ ক্লাসি ডিজাইন এবং ২.৫ডি (2.5D) প্লাস্টিক বডি মেটেরিয়াল সহ এসেছে। এতে ৬.৫৮-ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস (২৪০৮×১০৮০ পিক্সেল) LCD মাল্টি-টাচ ডিসপ্লে প্যানেল রয়েছে, যা ৯০ হার্টজ রিফ্রেশ রেট সাপোর্ট করে। উক্ত ডিভাইসে কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৬৮০ (SDM680) প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। অপারেটিং সিস্টেম হিসাবে এতে অ্যান্ড্রয়েড ১২ ভিত্তিক ফানটাচ ওএস ১২ কাস্টম ইউজার ইন্টারফেস পাওয়া যাবে। ফোনটি ৮ জিবি পর্যন্ত এক্সটেন্ডেড র‌্যাম ফিচার সাপোর্ট করে। ক্যামেরার ক্ষেত্রে, আলোচ্য হ্যান্ডসেটে LED ফ্ল্যাশ লাইট সহ ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা সেটআপ বর্তমান। এগুলি হল – EIS সমর্থিত ৫০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি সেন্সর, ২ মেগাপিক্সেল বোকেহ লেন্স এবং ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো শুটার। আবার ডিভাইসের সামনে ১৬ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা উপস্থিত থাকছে। আর পাওয়ার ব্যাকআপের জন্য ভিভো ওয়াই৩৫ স্মার্টফোনে ৪৪ ওয়াট ফ্ল্যাশচার্জ ফাস্ট চার্জিং সাপোর্ট সহ ৫,০০০ এমএএইচ ক্যাপাসিটির ব্যাটারি আছে।

Vivo Y35 বিশেষত্ব –

• ৮ জিবি পর্যন্ত র‌্যাম,
• EIS সমর্থিত ৫০ মেগাপিক্সেল প্রাইমারি রিয়ার সেন্সর,
• একাধিক ক্যামেরা মোড এবং অটো সেটিংস

Back to top button