গুগল প্লে স্টোর কে টেক্কা দিতে নিজস্ব অ্যাপ স্টোর আনছে মোদী সরকার

modi-govt-plans-launch-of-own-app-store-as-alternative-to-google-apple

দীর্ঘ সময় ধরে অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম এবং অ্যাপ ম্যানেজমেন্ট করে আসছে জনপ্রিয় প্রযুক্তি সংস্থা Google। কিন্তু, এবার এই মার্কিনি সংস্থাটি, ভারতীয় অ্যাপ ডেভেলপার বা এন্টারপ্রিনিউয়ারদের বিরাগভাজনের শিকার হতে চলেছে। সম্প্রতি সামনে আস রিপোর্ট অনুযায়ী, ভারতীয় অ্যাপ মেকাররা Google Play সার্ভিসের কোনো দেশীয় বিকল্প খোঁজ করছেন। গুগলের সাম্প্রতিক কিছু পদক্ষেপের জন্যই এমন ভাবনা চিন্তা করছে দেশীয় অ্যাপ নির্মাতা সংস্থাগুলি।

ঘটনার সূত্রপাত হয়, ভারতের জনপ্রিয় ওয়ালেট অ্যাপ Paytm-কে গুগল প্লে স্টোর থেকে সরিয়ে দেওয়ার পর থেকে। কিছু সময় পরে ই-মার্চেন্ট অ্যাপ্লিকেশনটি পুনরায় প্লে স্টোরে উপলব্ধ হয়েছে বটে, কিন্তু অ্যাপটির ওপর গুচ্ছের বিধি-নিষেধ চাপিয়েছে গুগল।

এই পর্যন্ত তাও ঠিক ছিল। কিন্তু গতকাল, অনলাইন ফুড ডেলিভারি অ্যাপ্লিকেশন Zomato এবং Swiggy-কেও ঠিক একই রকম ভাবে চাপে ফেলেছে গুগল। অ্যান্ড্রয়েড সিস্টেম নির্মাতা ওই দুই অনলাইন রেস্তোরাঁকে নতুন গুগল প্লে পলিসি সংক্রান্ত একটি নোটিশ পাঠিয়েছে, যেখানে বলা হয়েছে- Zomato এবং Swiggy, গুগল প্লে গাইডলাইনস ভায়োলেট করছে। এই বিষয়ে, Zomato-র কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গুগলের এই ধরণের অভিযোগ সম্পূর্ণ অনৈতিক এবং ভিত্তিহীন। পূর্বে একই অভিযোগ করেছিল Paytm-ও। সংস্থাগুলির দাবি তারা কোনো নিয়ম উলঙ্ঘন করেনি, তাদের ওপর অযথা চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে।

তবে এখানেই শেষ নয়। সম্প্রতি, গুগল প্লে স্টোরে নতুন বিলিং সিস্টেম চালু করা হয়েছে। গুগল ঘোষণা করেছে, তার প্লে স্টোর প্ল্যাটফর্মে উপলব্ধ থাকার জন্য অ্যাপ্লিকেশনগুলিকে ৩০% ফি বা খরচ দিতে হবে।

এই সমস্ত ঘটনা দেখে নড়ে-চড়ে বসেছে দেশীয় অ্যাপ নির্মাতা বা উদ্যোক্তা সংস্থাগুলি। তাঁদের মতে, কোনো বৈদেশিক সংস্থা বিনা কারণে ৩০% কর নেবে এমনটা সহজে মেনে নেওয়া যাবেনা। তাছাড়া, গুগল, বিধি-নিষেধের নামে বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশনগুলির ওপর অযথা চাপ সৃষ্টি করবে – এটাও চলতে পারেনা। ফলে, তাঁরা একটি দেশীয় অ্যাপ স্টোরের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছেন।

এই সংস্থাগুলির ভাবনা-চিন্তাকে উৎসাহিত করছেন Paytm-এর কো-ফাউন্ডার তথা সিইও বিজয় শেখর শর্মা। তাঁরা, সমবেতভাবে গুগল প্লে স্টোরের দেশীয় বিকল্পের খোঁজ করছেন বা স্থানীয় অ্যাপ্লিকেশনগুলির সাপোর্টের জন্য একটি স্বাধীন অ্যাপ স্টোর বানানোর কথা ভাবছেন। কিন্তু, গুগল প্লে স্টোরের রিপ্লেসমেন্ট করা এতটাও সহজ নয়। গুগল বা অ্যাপলের মত সংস্থাগুলির নিজস্ব শক্তিশালী এন্টারপ্রাইজ ইকোসিস্টেম রয়েছে। এমনকি গুগলের সার্ভিস নেটওয়ার্ক সারা বিশ্বে ছড়িয়ে রয়েছে। ফলে গুগলের সমতুল্য অ্যাপ স্টোর তৈরি করতে গেলে উন্নত প্রযুক্তির প্রয়োজন তো আছেই, পাশাপাশি বিশাল অঙ্কের খরচার সম্ভাবনাও রয়েছে। তবে একবার এমন কোনো দেশীয় অ্যাপ স্টোর তৈরি হয়ে গেলে অ্যাপ্লিকেশনগুলির ব্যবসায় বেশ উন্নতি হবে – এই বিষয়ে বেশ আশাবাদী স্থানীয় অ্যাপ ডেভেলপাররা।

বিশেষজ্ঞরা, Indus OS নামে নয়ডা-বেস একটি সংস্থার অ্যাপ স্টোর ব্যবহার করার কথা ভাবছেন। এই অ্যাপ স্টোরটি ভারতীয় অ্যাপ্লিকেশনগুলি পরিচালনা করে, এবং একাধিক স্থানীয় ভাষা সমর্থন করে। সুতরাং, এটি গুগল প্লে স্টোরের একটি ভালো বিকল্প হিসেবে বিবেচিত হতে পারে।

এর পাশাপাশি ইকোনমিক টাইমস এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মোদী সরকার নিজস্ব অ্যাপ স্টোর নিয়ে আসার কথা ভাবছে। যেটি গুগল প্লে স্টোর ও অ্যাপল অ্যাপ স্টোরের বিকল্প হবে। এটি ডেভেলপ করছে C-DAC।

প্রসঙ্গত, Xiaomi, Samsung বা Vivo-র মতো বড় স্মার্টফোন ব্র্যান্ডগুলি ইতিমধ্যে তাদের ডিভাইসে নিজস্ব অ্যাপ স্টোর দিয়ে থাকে। এগুলিতে প্রচুর অ্যাপ্লিকেশন উপলব্ধ, এবং সময়ে সময়ে অ্যাপগুলির আপডেটও পাওয়া যায়। তবে এই অ্যাপ স্টোরগুলি অন্য কোনো ডিভাইসে ব্যবহার করা যায়না।