Sunday, November 17, 2019

Motorola One Vision রিভিউ: জেনে নিন কেমন হলো এই ফোন, আপনার কি নেওয়া উচিত?

Motorola One Vision এ রয়েছে 21:9 এর 6.3 ইঞ্চির ফুল এইচডি প্লাস ডিসপ্লে। 48 মেগাপিক্সেল ও 5 মেগাপিক্সেল রেয়ার ক্যামেরা, সামনে ক্যামেরাটি 25 মেগাপিক্সেল এর। 3500mAh ব্যাটারি সমন্বিত এই ফোনটিতে রয়েছে ইউএসবি টাইপ সি পোর্ট, 3.5 এমএম হেডফোন জ্যাক এবং ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার। ফোনটির দাম মাত্র 19,999 টাকা।

মটোরোলার এই ফোনটিতে রয়েছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন । মটোরোলা G সিরিজের চিরাচরিত ডিজাইন থেকে সরে এসে সম্পূর্ণ নতুন রূপে এনেছে One Vision, রয়েছে রঙিন ব্যাক প্যানেল, 21:9 এসপেক্ট রেশীয়। প্রসেসরের দিক থেকেও মটোরোলা এনেছে পরিবর্তন, ফোনটিতে রয়েছে স্যামসাং এর এক্সিনকস 9609 প্রসেসর ও 4জিবি র‍্যাম।

19,999 টাকার মধ্যে এই ফোনটি Galaxy M40, Galaxy A50 ও Poco F1 এর সাথে প্রতিযোগিতা করবে। তবে আশা করা যাচ্ছে শাওমীর অন্য একটি মিড রেঞ্জ ফোন Redmi K20 Pro 17 জুলাই লঞ্চ হতে চলেছে, এই ফোনটিও One Vision এর অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী হবে।

ডিসপ্লে ও ডিজাইন:

Motoroal one vision এর সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ ফিচার হলো এর 21:9 এর এসপেক্ট রেশীয়।ফোনটির স্ক্রিনের বাদিকে রয়েছে পাঞ্চ হোল ক্যামেরা। মটোরোলা দাবি করছে এই এসপেক্ট রেশীয়র জন্য স্ক্রিনটিকে বড় লাগলেও ভিডিও দেখার ক্ষেত্রে কোনরকম সমস্যা হবে না। অনেক নতুন ভিডিও এই ফরম্যাটে শুট হলেও এখনো অনেক ভিডিও পুরনো ফরম্যাটে রয়েছে, তাই সেই সব ভিডিওর ক্ষেত্রে কোন সমস্যা হবে কিনা তা এখনই বলা যাচ্ছে না। ফোনটির 21:9 এসপেক্ট রেশীয়র জন্য খুব কম ভিডিও ওই রেশীয়তে দেখা যাবে, তবে বড় পাঞ্চ হোল ক্যামেরার থাকলেও ভিডিও স্ট্রিমিং এর ক্ষেত্রে কোন অসুবিধা হবে না। মটোরোলা তাদের নতুন এসপেক্ট রেশীয় আরো উন্নত করা নিয়ে অনেক চিন্তা ভাবনা করছে।

ডিজাইনের দিক থেকে এই ফোনটি এই দামের মধ্যে অন্যসব ফোনগুলির থেকে আলাদা, ফোনটি লম্বা হওয়ায় একহাতে ব্যবহার করা খুবই সহজ।

ক্যামেরা:

ফোনটির 48 মেগাপিক্সেল সেন্সর ও 5 মেগাপিক্সেল সেন্সরে দিনের আলোতে চমৎকার ছবি তোলা গেলেও, এর নাইট মোড এই দামের অন্যসব ফোনের তুলনায় খুবই উন্নত। যদি আপনি ম্যাক্রো শট নিতে ভালোবাসেন তাহলে এই ফোনর ক্যমেরা আপনাকে হতাশ করবেনা। তবে ডেপথ মোডের ক্ষেত্রে এখনো কিছু উন্নতি দরকার।

পারফরম্যান্স:

মটোরোলা এই ফোনটিতে এক্সিনকস 9609 প্রসেসর রয়েছে, সাধারণত বাকি ফোনগুলিতে মিডিয়াটেক বা স্নাপড্রাগন এর প্রসেসর থাকে। দৈনন্দিন কাজে ব্যবহারের ক্ষেত্রে ফোনটির পারফরম্যান্স ভালো হলেও, হাই গ্রাফিক্স এর কোন কাজের জন্য এখনই বেশকিছু আপডেট দরকার।তাছাড়া 3500mAh ব্যাটারির হয়তো যথেষ্ট নয় এই ফোনটির জন্য। পারফরম্যান্স অপটিমাইজেশন এর দিক থেকে ফোনটি এখনো অনেক উন্নতি করা দরকার। তবে যাদের স্টক অ্যান্ড্রয়েড পছন্দ তাদের জন্য ফোনটি নিশ্চয়ই আকর্ষণীয় হবে।

পড়ুন : Redmi Y3 রিভিউ : বাজেট রেঞ্জে ‘পারফেক্ট সেলফি’ ফোন

প্রযুক্তির সাম্প্রতিক খবর আর রিভিউস জানতে লাইক করুন আমাদের Facebook পেজ অথবা Whatsapp গ্রুপে যুক্ত হোন আর সাবস্ক্রাইব করুন YouTube.

- Advertisment -