নতুন পদ্ধতিতে হ্যাক হচ্ছে হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট, ভুলেও এই কাজ করবেন না

ফের হ্যাকদের শিকার হতে পারে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীরা। একটি নতুন ধরণের সাইবার অপরাধ সামনে এসেছে। এখানে হ্যাকাররা হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীর কাছে একটি ওয়ান টাইম কোড পাঠাচ্ছে এবং তাদের শিকার বানিয়ে নিচ্ছে। এই কোড রেগুলার ডিভাইস ছাড়া অন্যকোনও ডিভাইসে হোয়াটসঅ্যাপ ইনস্টল করার সময় ব্যবহৃত হয়।

অ্যাকাউন্ট না লগইন করতে পারার বাহানা :

ব্যবহারকারীদের নিজেদের জালে ফাঁসানোর জন্য হ্যাকাররা আগে থেকেই হ্যাক হওয়া একটি অ্যাকাউন্ট থেকে ওয়ান টাইম কোড পাঠায়। এরপর সে বড় চালাকি করে ব্যবহারকারী কে বোঝানোর চেষ্টা করে যে সে তার পূর্বপরিচিত। এরপর হ্যাকার বলে যে সে তার হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্টে লগইন করতে পারছেনা এবং তার ফোনে ওয়ান টাইম কোড আসছে না। এইকারণে সে তার ফোনে একটি ৬ সংখ্যার কোড পাঠিয়েছে।

কোড পাওয়ার পরই খেলা শুরু :

সাধারণ কোনো ব্যবহারকারী হ্যাকারের চালাকি না ধরতে পেরে সাথে সাথে সেই কোড বলে দেয়। এরপরই শুরু হয় আসল খেলা। আসলে হ্যাকার যে কোড পাঠায় সেটি একটি হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট অন্য ডিভাইসে ব্যবহারের জন্য দেওয়া হয়। এই কোড হ্যাকার কে দেওয়ার অর্থ হ্যাকার আপনার হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট চালাতে পারবে।

ডেটা চুরি ও ব্ল্যাকমেলিংয়ের ভয় :

অ্যাকাউন্ট হ্যাক করার পরে, হ্যাকাররা ব্যবহারকারীদের ব্ল্যাকমেল করার পাশাপাশি তাদের হোয়াটসঅ্যাপে চ্যাট, ফটো-ভিডিও বা অন্যান্য মিডিয়া ফাইলগুলি চুরিকরে। এছাড়াও, তারা ফোনে প্রাপ্ত নতুন হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ পড়তে পারে।

এইভাবে বাঁচুন এই হ্যাক থেকে :

এটি এমন একটি বিপজ্জনক স্ক্যাম যা ব্যবহারকারীর গোপনীয়তা নষ্ট করে। এই সমস্ত স্ক্যাম থেকে নিজেকে রক্ষা করার জন্য কিছু পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। এখানে আমরা আপনাকে কয়েকটি টিপস দিচ্ছি যা আপনাকে হোয়াটসঅ্যাপ হ্যাকিং এড়াতে সহায়তা করবে –

  • কোনো কোড আসলে কখনো তা কারোর সাথে শেয়ার করবেন না।
  • সিকিউরিটি মজবুত করতে হোয়াটসঅ্যাপ টু-স্টেপ ভেরিফিকেশন ফিচার ব্যবহার করুন।

টেকগাপের মেম্বাররা ও সদ্য যোগ দেওয়া লেখকরা এই প্রোফাইলের মাধ্যমে টেকনোলজির সমস্ত রকম খুঁটিনাটি আপনাদের সামনে আনে।