প্রবল সমস্যায় BSNL, বকেয়া না মেটালে পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়ার হুমকি নোকিয়ার

nokia-threatens-to-shut-down-services-if-bsnl-not-pay-due

এতদিন ভারতে টেলিকম অপারেটরগুলিকে নেটওয়ার্ক সংক্রান্ত সরঞ্জাম সরবরাহ করতো চারটি সংস্থা Huawei, ZTE, Nokia ও Ericsson। তবে মাস দুয়েক আগে ভারত সরকার নেটওয়ার্ক বিকাশের কাজে Huawei এবং ZTE-এর মত চীনা কোম্পানির সরঞ্জাম ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছিল। যার পরে ভারতীয় টেলিকম কোম্পানিগুলির জন্য কেবল নোকিয়া ও এরিকসন ছাড়া আর কোনো বিকল্প খোলা নেই। আর এই কারণেই এবার চাপের মুখে পড়তে চলেছে ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিকম সংস্থা BSNL। কারণ তাদের সাথে আর ব্যবসা না করার ইঙ্গিত দিয়েছে Nokia। ফলে ৪জি নেটওয়ার্ক ও অন্যান্য কাজে BSNL এর একমাত্র বিকল্প হয়ে উঠবে সুইডিশ সংস্থা Ericsson। যা BSNL কে আরও বিপদে ফেলতে পারে।

আসলে জানা গিয়েছে, স্টেট টেলিকম সংস্থা বিএসএনএলের কাছ থেকে প্রায় ১২১ মিলিয়ন ডলার বকেয়া রয়েছে নোকিয়ার। বিএসএনএল এই বকেয়া টাকা না মেটালে তার সাথে আর কাজ করবেনা, এমনটাই হুমকি দিচ্ছে ফিনিশ টেলিকম জায়ান্ট নোকিয়া।

Nokia জানিয়েছে, টাকা না পেলে তারা BSNL এর সমস্ত পরিষেবা বন্ধ করে দেবে। এখন অবধি, নোকিয়া বিএসএনএলের প্রায় ৪০% নেটওয়ার্ক নিয়ন্ত্রণ করে। ফলে নোকিয়া যদি বিএসএনএলের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে, তবে প্রচুর মানুষ তাদের চাকরি হারাবে। কারণ টেলিকম অপারেটর বেশ কিছু কর্মচারীকে বরখাস্ত করতে বাধ্য হবে। শুধু তাই নয়, সংস্থার নেটওয়ার্ক সিস্টেমও ভেঙে পড়বে।

প্রসঙ্গত BSNL, Nokia কে চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসের আগে মাসিক কিস্তিতে বকেয়া পরিশোধ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। কিন্তু, ভারতীয় টেলিকম অপারেটরটি মার্চ থেকে নোকিয়াকে কোনো টাকা দেয়নি। এর আগে নোকিয়া, বিএসএনএলের চেয়ারম্যান তথা জেনারেল ম্যানেজারকে একটি চিঠি দিয়ে, এই মহামারীর পরিস্থিতিতে আর্থিক সঙ্কটের কথা জানিয়েছিল। নোকিয়া আরো জানিয়েছিল, তাদের পক্ষে নতুন ফান্ড ইনজেকশন করা কিংবা পরিষেবা অব্যাহত রাখা অসম্ভব।

এখনো অবধি, বিএসএনএল এবিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি। সংস্থাটি বর্তমানে 4G নেটওয়ার্কে বিকাশের জন্য কাজ করছে। এই অবস্থায় হয়তো সংস্থাটি এরিকসনের সাথে জোট বাঁধতে পারে। কিন্তু বিএসএনএল যদি খুব তাড়াতাড়ি নোকিয়ার সাথে সমস্যা না মেটায়, তবে সংস্থাটি খারাপ পরিষেবার কারণে গ্রাহক হারাতে শুরু করবে।