ইন্ডিয়ান অয়েলের পাম্পে এবার পাবেন ফুল চার্জ ব্যাটারি, বৈদ্যুতিক গাড়ি চালকদের জন্য সুখবর

ভারতে ইলেকট্রিক যানের প্রচলন বাড়ানোর জন্য সরকার এবং কোম্পানিদের মধ্যে ক্রমাগত একের পর এক গুরুত্বপূর্ন পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। গতবছর ভারত সরকার দেশে ইলেকট্রিক গাড়ি ও বাইকের প্রস্তুতি বৃদ্ধির জন্য, ইবাইক ও ই গাড়ির ব্যাটারির ওপর থেকে জিএসটি ১২% থেকে কমিয়ে ৫% করে দিয়েছে। যার ফলে দাম কমে গিয়েছে ইলেকট্রিক যানবাহন গুলির। এবার দেশের সবচেয়ে বড়ো মার্কেটিং কোম্পানি Indian Oil ও ইলেকট্রিক যানবাহন গুলিকে নিয়ে একটি বড়ো ঘোষণা করেছে। আজ আমরা এই প্রতিবেদনে সেই ঘোষণা সম্পর্কে আলোচনা করতে চলেছি, যা ইলেকট্রিক যান ব্যবহারকারীদের জানা প্রয়োজন।

পেট্রোল পাম্পেই পাওয়া যাবে ফুল চার্জড ব্যাটারি :

Indian Oil এর ঘোষণা অনুসারে গ্রাহকরা এবার কোম্পানির পেট্রোল পাম্পে ফুল চার্জ ব্যাটারির সুবিধা ও পাবেন। সাধারন ভাষায় বলতে হলে, এতদিন যেমন গ্রাহকেরা নিজেদের গাড়িতে পেট্রোল ভরাতেন সেরকমই ইন্ডিয়ান অয়েল স্টেশনে এখন ই-যান ব্যাবহারকারীরা নিজেদের যানে ফুল চার্জ ব্যাটারি লাগাতে পারবেন। এই সিদ্ধান্ত Instant Baterry Recharge নামে পরিচিত।

কি করতে হবে কুইক ইন্টার চেঞ্জ ষ্টেশনে :

গ্রাহকদের নিজের ইলেকট্রিক যান নিয়ে কুইক ইন্টারচেঞ্জ ষ্টেশনে যেতে হবে। সেখানে গ্রাহক নিজের ডিসচার্জড ব্যাটারির পরিবর্তে ফুল চার্জ ব্যাটারি নিতে পারবেন। এই কুইক ইন্টার চেঞ্জ স্টেশন ৩-৪ টি ব্যাটারি চেঞ্জ করতে সক্ষম হবে বলে জানা গিয়েছে। যখনই গ্রাহক ফুল চার্জ ব্যাটারি নেবেন, সঙ্গে সঙ্গে বিল প্রস্তুত করা হবে স্টেশনেই।


সান মোবিলিটির সহযোগিতা :

কুইক ইন্টরচেঞ্জ স্টেশন প্রস্তুতির জন্য ইন্ডিয়ান অয়েলকে সহযোগিতা করতে চলেছে সান মোবিলিট কোম্পানি। কোম্পানির চেয়ারম্যান সঞ্জিব সিং এর কথা অনুসারে এই কুইক ইন্টারচেঞ্জ স্টেশন সর্বপ্রথম চালু করা হবে চণ্ডীগড়ে। তিনি আরও বলেছেন যে তারপরে সাড়া দেশজুড়ে ২০ টি স্টেশন তৈরির কথা চলছে।

শুরু হবে এই শহরগুলি থেকে :

কোম্পানির প্ল্যান অনুসারে, এই স্টেশন সর্বপ্রথম নতুন দিল্লী, গুরুগ্রাম, চন্ডীগড়, অমৃতসর এবং ব্যঙ্গালুরু তে স্থাপন করা হবে। তারপর এই ব্যবস্থা ধীরে ধীরে ছড়িয়ে দেওয়া হবে সারা দেশে।

এরম এক সিদ্ধান্ত নেওয়ার কারন :

ইন্ডিয়ান অয়েল জানিয়েছে যে ইলেকট্রিক যান ব্যবহারকারী গ্রাহকদের সুবিধার্থে এই প্ল্যানের কথা ভাবে হয়েছে। ব্যাটারি শেষ হলে অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় গ্রাহকদের। যার ফলে বেশিদূর ই-যান নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়না। কোম্পানি আরও জানিয়েছে যে, তাঁরা মনে করেন এতে দেশে ইলেকট্রিক যানবাহনের চাহিদা অনেকাংশে বেড়ে যাবে, যা দেশের অর্থনৈতিক অবস্থাকে সচল করতে সহায়তা করবে।

টেকগাপের মেম্বাররা ও সদ্য যোগ দেওয়া লেখকরা এই প্রোফাইলের মাধ্যমে টেকনোলজির সমস্ত রকম খুঁটিনাটি আপনাদের সামনে আনে।