মাসে দিতে হবে ২,৯৯৯ টাকা, আজ Ola ইলেকট্রিক স্কুটার কেনার সুবর্ণ সুযোগ

ola-electric-scooter-purchase-window-live-today-emi-starting-rs-2999-delivery-date-incentive

গত ১৫ জুলাই থেকে শুরু হয়েছিল Ola ইলেকট্রিক স্কুটারের প্রি-বুকিং। এর পরেই সংস্থার তরফে দাবি করা হয়, ২৪ ঘন্টার কম সময়ে এক লাখ স্কুটার বুক করা হয়েছে। যা রেকর্ড! ইতিহাসে এর আগে এত কম সময়ে এতটা পরিমাণে কোনও স্কুটারের প্রি-বুকিং হয়নি। আত্মপ্রকাশের আগেই এ ভাবে নজির গড়ে ফেলেছিল ওলা। তেমনি ১৫ অগাস্ট অফিসিয়াল লঞ্চের পরই হৈচৈ ফেলে দেয় Ola S1 ও S1 Pro। আর আজ, ৮ সেপ্টেম্বর থেকে খুলে যাচ্ছে ই-স্কুটারগুলির পারচেজ উইন্ডো। এতএব, রিজার্ভেশন করা ব্যক্তিদের সামনে আজ Ola স্কুটার কেনার সুবর্ণ সুযোগ। কেনার প্রক্রিয়া, লোন, ইন্সুরেন্স, টেস্ট রাইড, ডেলিভারি, – Ola S1 ও S1 Pro-র সম্পর্কে এই বিষয়গুলি নিয়ে আমরা এবার বিস্তারিত আলোচনা করবো।

১ – আজ সন্ধ্যা ৬ টার থেকে ওলা ক্যাবসের মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনে S1 ও S1 Pro স্কুটার কেনা যাবে। শো-রুমে পা রাখার কোনও প্রয়োজন নেই। নিজের ঘরে শুয়ে-বসে বৈদ্যুতিন মাধ্যমেই নেওয়া যাবে স্কুটারের মালিকানা। যারা আগে কিনবেন, ডেলিভারির ক্ষেত্রে তারা অগ্রাধিকার পাবেন। স্টক শেষ না হওয়া পর্যন্ত পারচেজ উইন্ডো খোলা থাকবে বলে জানিয়েছে ওলা। তবে প্রথম সেলে ঠিক কতগুলি ইউনিট ছাড়বে ওলা, তা এখনও স্পষ্ট নয়।

২ – দু’রকম ফিনিশিং ও মোট ১০টি রঙের মধ্যে থেকে বেছে নেওয়া যাবে Ola S1 ও Ola S1 Pro ইলেকট্রিক স্কুটারকে।

৩ – Ola S1-এর দাম পড়বে ৯৯,৯৯৯ টাকা ও আরও অ্যাডভান্সড ভার্সন, Ola S1 Pro কিনতে গেলে খরচ হবে ১,২৯,৯৯৯ টাকা৷ রাজ্য ভিত্তিক সাবসিডি ছাড়াই এই দাম। সাবসিডির জন্য আলাদা ভাবে আবেদন করতে হবে ক্রেতাকে।

৪ – ওলা ফিনান্সিয়াল সার্ভিসের তরফে নিয়ে আসা হয়েছে সহজ ও বেস্ট-ইন-ক্লাস ফিনান্সিং স্কিম। ক্রেতাদের সহজ কিস্তিতে ঋণ নেওয়ার সুযোগ করে দেওয়ার উদ্দেশ্যে, অ্যাক্সিস ব্যাঙ্ক, এইচডিএফসি ব্যাঙ্ক, ব্যাঙ্ক অব বরোদা, আইসিআইসিআই ব্যাঙ্ক, ইন্ডাসল্যান্ড ব্যাঙ্ক, ইয়েস ব্যাঙ্ক, আইডিএফসি ফার্স্ট ব্যাঙ্ক, জন স্মল ফিনান্স ব্যাঙ্ক, এইউ স্মল ফিনান্স ব্যাঙ্ক, কোটাক মাহিন্দ্রা প্রাইম, ও টাটা ক্যাপিটাল-এর সাথে হাত মিলিয়েছে ওলা।

৫ – ওলা এস১ ও ওলা এস১ প্রো-র ক্ষেত্রে ইএমআই স্কিম শুরু হচ্ছে যথাক্রমে ২,৯৯৯ টাকা ও ৩,১৯৯ টাকা থেকে। ফিন্যান্স অপশন না নিতে চাইলে কেবলমাত্র অগ্রিম দিয়েই কিনে ফেলা যাবে স্কুটারগুলি। সেক্ষেত্রে ওলা এস১-এর জন্য ২০,০০০ টাকা ও ওলা এস১ প্রো-র জন্য ২৫,০০০ টাকা অগ্রিম পেমেন্ট করতে হবে। বাকি টাকাটা স্কুটার শিপিং করার আগে পরিশোধ করতে হবে। বুকিং বাতিল করতে চাইলে ডাউন-পেমেন্ট ও অগ্রিম উভয়ই রিফান্ড করা হবে। তবে ওলা ফিউচারফ্যাক্টরি থেকে স্কুটার না পাঠানো পর্যন্ত কেবল বাতিল করার অপশন পাওয়া যাবে৷ তারপরে আর নয়।

৬ – ওলা অথবা ওলা ইলেকট্রিকের মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে স্কুটারগুলির বীমা করা যাবে৷ এ ক্ষেত্রে ICICI Lombard-এর সঙ্গে হাত মিলিয়েছে ওলা। রেজিস্ট্রেশনের জন্য ১ বছরের ‘Own Damage’ ও ৫ বছরের থার্ড পার্টির একটি বেস পলিসি বাধ্যতামূলক। এছাড়া পার্সোনাল অ্যাক্সিডেন্ট কভার ও রোড সাইড অ্যাসিট্যান্স-এর বিমাও ক্রয় করা যাবে।

৭ – ওলা ইলেকট্রিক স্কুটারের টেস্ট রাইড শুরু হবে সামনের মাস থেকে।

৮ – অক্টোবর থেকেই শুরু হবে ওলা স্কুটারের ডেলিভারি৷ অনলাইন শপিংয়ের মতোই বাড়ির দোরগোড়ায় নতুন স্কুটার পৌঁছে দেলে ওলা ইলেকট্রিক। যদি শিপিংয়ের আগে পুরো টাকা পরিশোধ না করা হয়। তাহলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির জন্য বরাদ্দকৃত স্কুটারটি অন্য কারোর জন্য বরাদ্দ করা হবে। ব্যাচ ধরে স্কুটার ডেলিভারি করা হবে। আজ কেনার পর ক্রেতারা ডেলিভারির একটি সম্ভাব্য তারিখ পাবেন।

৯ – Ola S1 ও S1 Pro আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স নির্মিত৷ ফলে অন্যান্য পেট্রোল চালিত বাইক বা স্কুটারের মতো এগুলির প্রতি ৩-৬ মাস অন্তর অন্তর সার্ভিসিং করাতে হবে না। কিছু রিপ্লেসমেন্ট বা সার্ভিসিংয়ের প্রয়োজন হলে তা নিজে থেকেই স্কুটার জানাবে গ্রাহককে। ডোরস্টোপ সার্ভিস বুক করা যাবে ওলা ইলেকট্রিকের অ্যাপে।

১০ – কেন্দ্রের পাশাপাশি ভারতের বিভিন্ন রাজ্য বৈদ্যুতিক গাড়ির জন্য পৃথক ভাবে নীতি প্রণয়ন করেছে। উদাহরণ হিসেবে বলা যায় গুজরাতের কথা৷ গুজরাতে ওলা ইলেকট্রিক স্কুটারের দাম সবচেয়ে কম। ভর্তুকি ধরে সেই রাজ্যে ওলা এস১-এর দাম ৭৯,৯৯৯ টাকা ও ওলা এস১ প্রো-র দাম ১,০৯,৯৯৯ টাকা। এছাড়া দিল্লি, মহারাষ্ট্র, রাজস্থান, ওড়িশাবাসীরা ভর্তুকি-সহ স্কুটারগুলি কিনতে পারবেন।

১১ – একবার চার্জ দিলে ওলা এস১ ইলেকট্রিক স্কুটার চলবে ১২১ কিমি পথ। ০-৪০ কিমি/ঘন্টা গতিবেগ তুলতে সময় নেবে ৩.৬ সেকেন্ড। সর্বোচ্চ গতিবেগ ৯০ কিমি/ঘন্টা। অন্যদিকে, একবার চার্জ দিলে ওলা এস১ প্রো পার করতে পারবে প্রায় ১৮১ কিলোমিটার। এটি মাত্র ৩ সেকেন্ডে ০-৪০ কিমি/ঘন্টা স্পিড তুলতে সক্ষম। চালকের স্কুটার চালানোর ধরনের উপর ভিত্তি করে এতে রয়েছে নর্মাল, স্পোর্ট, এবং হাইপার রাইডিং মোড।

১২ – লঞ্চ হওয়ার পর ওলার ইলেকট্রিক স্কুটার যাতে নিশ্চিন্তে চালানো যায়, তার আগাম প্রস্তুতিও ওলা সেরে রাখছে। বৈদ্যুতিন যানবাহনের চার্জ দেওয়ার পরিকাঠামোর উন্নয়নে ওলা দেশজুড়ে হাইপারচার্জার নেটওয়ার্ক তৈরি করবে। হাইপারচার্জার নেটওয়ার্কে আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে ভারতে চারশোটি শহরে এক লাখের বেশি চার্জিং পয়েন্ট গড়ে তোলা হবে।

ওলার চার্জিং স্টেশন বা হাইপারচার্জার নেটওয়ার্ক দু’ধরণের ফরম্যাটে আসবে; একটি হবে ভার্টিকাল টাওয়ার ভিত্তিক চার্জার‌, এবং অপরটি বিভিন্ন মল, আইটি পার্ক, অফিস কমপ্লেক্স, ক্যাফে-রেস্তোরাঁর মতো জনপ্রিয় এবং লোক সমাগমের জায়গায় স্টান্ড এলোন চার্জার হিসেবে বসানো হবে।

ওলা ই-স্কুটার আরোহীকে হাইপারচার্জার নেটওয়ার্ক পয়েন্টে এসে চার্জিং পয়েন্টের প্লাগটি স্কুটারের সাথে সংযুক্ত করতে হবে। ব্যাটারি কতটা চার্জ হল বা ফুল চার্জ হতে কতটা বাকি, একটি ডেডিকেটেড মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনে তা নিরীক্ষণ করা যাবে। চার্জিং স্টেশনে ওলা স্কুটারের ব্যাটারিকে ১৮ মিনিটের মধ্যেই ৫০ শতাংশ চার্জ করা যাবে। স্মার্টফোনের মাধ্যমেই পেমেন্ট করার সুবিধা থাকবে।

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন

টেকগাপে শুভ্রর প্রথম প্রযুক্তি বিষয়ক লেখায় হাতেখরি৷ স্নাতক স্তরের পড়াশোনার পাশাপাশি এখানেই চলতে থাকে শুভ্রর লেখালেখি৷ কলেজের অধ্যায় শেষ হওয়ার পর শুভ্র এখন টেকগাপের কনটেন্ট টিমের একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য৷