মাত্র ১০ মিনিটেই বিক্রি শেষ OnePlus 8 এবং OnePlus 8 Pro এর

চীনা ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন নির্মাতা ওয়ানপ্লাস কয়েকদিন আগে তাদের ওয়ানপ্লাস ৮ সিরিজ লঞ্চ করেছে। এই সিরিজে দুটি ফোন আছে, OnePlus 8 এবং OnePlus 8 Pro। লঞ্চের পরপরই আমেরিকায় এই সিরিজের লিমিটেড সেল আয়োজন করা হয়েছিল। রিপোর্ট অনুযায়ী সেই সেলে কয়েক মিনিটের মধ্যে রেডমি ৮ সিরিজ সোল্ড আউট হয়ে যায়। কোম্পানি শীঘ্রই অনেক ইউনিটের সাথে এর বড় সেল আয়োজন করবে বলে জানিয়েছে।

9to5google এর রিপোর্ট অনুযায়ী, আমেরিকায় যখনই OnePlus 8 এবং OnePlus 8 Pro এর সেল অনুষ্ঠিত হয়, এর ১০ মিনিটের মধ্যে সমস্ত ইউনিট বিক্রি হয়ে যায়। যদিও এই সেলে কোম্পানির স্টক সীমিত ছিল। এদিকে এই সেলে ওয়ানপ্লাস ৮ সিরিজের সমস্ত কালার ভ্যারিয়েন্ট উপলব্ধ ছিল বলে জানা গেছে।

OnePlus 8 এবং OnePlus 8 Pro দাম :

ভারতে ওয়ানপ্লাস ৮ ও ওয়ানপ্লাস ৮ প্রো দুটি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্টের সাথে লঞ্চ হয়েছে। এরমধ্যে OnePlus 8 এর দাম শুরু হয়েছে ৬৯৯ ডলার থেকে, যা প্রায় ৫৩,০০০ টাকার কাছাকাছি। এই দাম ফোনটির ৮ জিবি র‌্যাম + ১২৮ জিবি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্টের। এছাড়াও এর ১২ জিবি র‌্যাম + ২৫৬ জিবি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্টের দাম ৭৯৯ ডলার ( প্রায় ৬০,০০০ টাকা)।

এদিকে OnePlus 8 Pro এর ৮ জিবি র‌্যাম + ১২৮ জিবি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্টের দাম ৮৯৯ ডলার, যা প্রায় ৬৮,০০০ টাকার সমান। এবং ৯৯৯ ডলার বা প্রায় ৭৬,০০০ টাকায় পাওয়া যাবে এর ১২ জিবি র‌্যাম + ২৫৬ জিবি স্টোরেজ ভ্যারিয়েন্ট। ভারতে এই ফোন Amazon থেকে বিক্রি হবে। আগামী ১৯ এপ্রিল থেকে এই সিরিজের সেল শুরু হবে। এদিকে কোম্পানি ভারতে এই সিরিজের কি দাম হবে তা জানায়নি।

OnePlus 8 এবং OnePlus 8 Pro স্পেসিফিকেশন :

ওয়ানপ্লাস ৮ ফোনটি ৬.৫৫ ইঞ্চি ফ্লুইড AMOLED ডিসপ্লে সহ এসেছে। এর আসপেক্ট রেশিও ২০:৯ এবং এতে এইচডিআর ১০ প্লাস ও থ্রিডি কর্নিং গরিলা গ্লাস সাপোর্ট দেওয়া হয়েছে। এই ডিসপ্লের রিফ্রেশ রেট ৯০ হার্জ এবং এতে sRGB সাপোর্ট করবে। অন্যদিকে ওয়ানপ্লাস ৮ প্রো ফোনে পাবেন ১৯.৮:৯ আসপেক্ট রেশিও, এইচডিআর ১০ প্লাস, QHD+ রেজুলেশন এবং ১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেট যুক্ত ৬.৭৮ ইঞ্চি ফ্লুইড AMOLED ডিসপ্লে।

ওয়ানপ্লাসের এই দুই ফোনেই কোয়ালকম স্ন্যাপড্রাগন ৮৬৫ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। সাথে দেওয়া হয়েছে এড্রেন ৬৫০ জিপিইউ। ওয়ানপ্লাস ৮ ফোনে রয়েছে ৪,৩০০ এমএএইচ ব্যাটারি এবং ৪,৫০০ এমএএইচ ব্যাটারি রয়েছে ওয়ানপ্লাস ৮ প্রো ফোনে। দুটো ফোনেই Warp charge 30T ( ৩০ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং) সাপোর্ট করবে। যদিও প্রো ভার্সনে ৩০ ওয়াট ওয়্যারলেস চার্জিং এবং হ্যাপিটিক ২.০ ভাইব্রেশন অতিরিক্ত দেওয়া হয়েছে। সিকিউরিটির জন্য দুটি ফোনেই পাবেন ইন ডিসপ্লে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর। ফোন দুটো অ্যান্ড্রয়েড ১০ ভিত্তিক OxygenOS অপারেটিং সিস্টেমে চলবে। এতে ডলবি অ্যাটমোস এর সাথে ডুয়াল স্টেরিও স্পিকার দেওয়া হয়েছে।

ক্যামেরার কথা বললে ওয়ানপ্লাস ৮ ফোনের পিছনে ট্রিপল রিয়ার ক্যামেরা উপলব্ধ। যার প্রধান ক্যামেরা ৪৮ মেগাপিক্সেল সনি আইএমএক্স ৫৮৬ সেন্সর। যার অ্যাপারচার এফ / ১.৭৫ এবং ০.৮ মিমি পিক্সেল সাইজ। এই সেন্সর অপটিকাল ইমেজ স্টেবিলাইজেশ (OIS) এবং ইলেকট্রনিক ইমেজ স্টেবিলাইজেশন (EIS) উভয় সাপোর্ট করে। পিছনের দ্বিতীয় ক্যামেরাটি ১৬ মেগাপিক্সেল আলট্রা ওয়াইড এঙ্গেল লেন্স, যার অ্যাপারচার এফ / ২.২ এবং ১১৬ ডিগ্রী ফিল্ড অফ ভিউ। আবার তৃতীয় ক্যামেরাটি ২ মেগাপিক্সেল ম্যাক্রো ক্যামেরা। এর অ্যাপারচার এফ/২.৪। এই সেটআপ পিডিএএফ এবং কনট্রাস্ট- বেসড অটোফোকাসকে সমর্থিত। এরসাথে ডুয়েল এলইডি ফ্ল্যাশ দেওয়া হয়েছে। আবার ফোনের সামনে এফ/২.৪৫ অ্যাপারচার, EIS সহ ১৬ মেগাপিক্সেল সনি আইএমএক্স ৪৭১ সেন্সর আছে।

অন্যদিকে ওয়ানপ্লাস ৮ প্রো ফোনের পিছনে আছে কোয়াড রিয়ার ক্যামেরা। যার প্রধান ক্যামেরা ৪৮ মেগাপিক্সেল সনি আইএমএক্স ৬৮৯ সেন্সর। যার অ্যাপারচার এফ / ১.৭৮ এবং ১.১২ মাইক্রন পিক্সেল সাইজ। এই সেন্সর অপটিকাল ইমেজ স্টেবিলাইজেশ (OIS) এবং ইলেকট্রনিক ইমেজ স্টেবিলাইজেশন (EIS) উভয় সাপোর্ট করে। এছাড়াও দ্বিতীয় ক্যামেরা হিসাবে অ্যাপারচার এফ / ২.২ এবং ১১৯.৭ ডিগ্রী ফিল্ড অফ ভিউ সহ ৪৮ মেগাপিক্সেল আলট্রা ওয়াইড এঙ্গেল লেন্স আছে। আবার ৮ মেগাপিক্সেল টেলিফোটো লেন্স দেওয়া হয়েছে, যার অ্যাপারচার এফ/২.৪। এছাড়াও চতুর্থ ক্যামেরা ৫ মেগাপিক্সেল কালার ফিল্টার সেন্সর, যার অ্যাপারচার এফ/২.৪। ক্যামেরা সেটআপে পিডিএএফ, লেজার অটো-ফোকাস, সিএএফ, ৩ এক্স অপটিকাল জুম এবং ডুয়েল-এলইডি ফ্ল্যাশ সাপোর্ট করবে। আবার ফোনের সামনে এফ/২.৪৫ অ্যাপারচার, EIS সহ ১৬ মেগাপিক্সেল সনি আইএমএক্স ৪৭১ সেন্সর আছে।