এবার সাহায্যের হাত বাড়ালো OnePlus, দুর্দিনে ভারতের পাশে সমস্ত চীনা স্মার্টফোন কোম্পানিগুলি

oneplus-pledges-donate-400-oxygenators-india-to fight against covid second wave

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের প্রবাহমানতায় ক্রমশ জটিল হচ্ছে ভারতের মহামারী পরিস্থিতি! গত ২৪ ঘন্টায় প্রায় ৩.৯ লক্ষ মানুষ নতুন করে এই ভয়ংকর ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয়েছেন, আবার মারা গিয়েছেন ৩,৪৯৮ জন। কার্যত গোটা দেশ জুড়েই প্রয়োজনীয় ওষুধ, খালি বেড, অক্সিজেন সিলিন্ডার ইত্যাদি চিকিৎসা সরঞ্জামের আকাল সৃষ্টি হয়েছে। যদিও দেশের এই দুর্দিনে সবাই একসাথে লড়াই করে করোনাকে পরাস্ত করার চেষ্টা করছেন। বিভিন্ন ভারতীয় সংস্থার পাশাপাশি, Apple, Google -র মতো প্রচুর বৈদেশিক সংস্থাই নিজেদের সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। এই লড়াইয়ে সহায়তার জন্য প্রয়োজনীয় অনুদান দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে Xiaomi, Vivo, Oppo-র মত বাজারের নামি-দামী স্মার্টফোন ব্র্যান্ডগুলিও। সেক্ষেত্রে এবার, ভারতের পাশে থাকার জন্য এগিয়ে এল জনপ্রিয় ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোন নির্মাতা OnePlus-ও। এই চীনা কোম্পানিটি দেশে অক্সিজেনের তাৎক্ষণিক প্রয়োজনীয়তা হ্রাস করার জন্য ৪০০টি অক্সিজেনেটর অনুদান দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

আজ, OnePlus-এর কমিউনিটি ফোরাম এবং টুইটার হ্যান্ডেলের মাধ্যমে সংস্থার সিইও পিট লাউ (Pete Lau) জানিয়েছেন যে ভারতের বর্তমান পরিস্থিতি অত্যন্ত হৃদয় বিদারক এবং যথেষ্ঠ কল্পনাতীত। অন্যদিকে এই পরিস্থিতির প্রভাব পড়েছে সংস্থার এই দেশের কর্মচারীবৃন্দ এবং কমিউনিটির ওপরেও। তাই অতিমারী সমস্যার মোকাবিলায় ভারতকে যথাসম্ভব সাহায্য করার জন্য সংস্থাটি আগ্রহী হয়েছে। লাউয়ের মতে, এদেশে অক্সিজেন কন্সেন্ট্রেশন ডিভাইস এবং ত্রাণ তহবিলের বেশ ঘাটতি রয়েছে। তাই আপাতত তারা ভারতে কয়েকশো অক্সিজেনেটর পাঠাবে এবং ভারতের পাশে থাকার সম্পূর্ণ চেষ্টা করবে। এছাড়া OnePlus-এর গ্লোবাল কমিউনিটিও এই ব্যাপারে কিছু অবদান রাখার আগ্রহ প্রকাশ করেছে বলে তিনি উল্লেখ করেছেন।

ব্র্যান্ডটির কর্মকর্তা আরো বলেছেন যে, সংস্থাটি তার সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিকে সংকটকালীন অবস্থায় সহায়তার জন্য ব্যবহারযোগ্য করে তোলার চেষ্টা করছে, যেখানে #COVIDEmergency হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করে কোভিড আক্রান্তের জরুরি অবস্থায় সাহায্য প্রার্থনা করা যাবে। পাশাপাশি সংস্থাটি, জরুরী অনুরোধের কথা সোশ্যাল মিডিয়ায় জানানোর সময় সবাইকে @OnePlus_IN ট্যাগ ব্যবহার করার পরামর্শ দিয়েছে। এতে জরুরি মেসেজগুলি সহজে সংস্থার চোখে পড়বে বলে তাঁদের অভিমত।

জানিয়ে রাখি, OnePlus ইতিমধ্যেই ক্ষতিগ্রস্থ ও ফ্রন্টলাইন কর্মীদের জন্য তহবিল বাড়াতে গিভ ইন্ডিয়ার (GiveIndia) সাথে কাজ করেছে। এমনকি তারা এক কোটি টাকার ফান্ড নির্মাণের উদ্দেশ্যে একটি অনলাইন ওয়েবসাইট চালু করেছে, যেখানে সাধারণ মানুষরাও সাধ্যমত অনুদান দিতে পারেন। ওই টাকা ভারতের চিকিৎসা ব্যবস্থার উন্নতিতে ব্যবহার করা হবে।

প্রসঙ্গত, গতবছর সীমান্তে সংঘর্ষের জেরে ভারতের একাংশই এই চীন ভিত্তিক সংস্থাগুলির ওপর ব্যাপক ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন। সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটগুলি ছেয়ে গিয়েছিল ‘বয়কট চায়না’ স্লোগানে। যদিও সময়ের নিয়মে পরে এই বিরক্তি থিতিয়ে আসে। সেক্ষেত্রে পুরনো সমস্ত কথা মনে না রেখে সংস্থাগুলিও এখন যেভাবে ভারতের পাশে থাকার অঙ্গীকার নিয়েছে – তার প্রশংসা না করে পারা যায় না!

হোয়াটসঅ্যাপে খবর পেতে এখানে ক্লিক করুন