Paytm KYC এর নামে চলছে প্রতারণা, লিঙ্কে ক্লিক করলেই অ্যাকাউন্ট ফাঁকা

ইউপিআই, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট, এটিএম-র পর এবার জালিয়াতদের নতুন মাধ্যম হয়ে উঠেছে পেটিএম কেওয়াইসি। আপনারা যারা Paytm ব্যবহারকারী তারা সবাই হয়তো জানেন যে, পেটিএম ব্যবহার করতে গেলে Paytm KYC পূরণ করতে হয়। পেটিএম অ্যাপেও কেওয়াইসি ফর্ম পূরণ করার জন্য নোটিফিকেশন দেখা যায়। তবে এই পেটিএম কেওয়াইসি নোটিফিকেশনই হয়ে উঠেছে জালিয়াতদের নতুন অস্ত্র। রাঁচির বাসিন্দা সতীশ কুমার হয়েছেন এই ধরনের জালিয়াতির প্রথম শিকার।

একটি লিংকে ক্লিক করাও এখন আপনার জন্য বিপদজনক-

রবিবার সতীশের কাছে একটি কল আসে যাতে জানানো হয় পেটিএম কাস্টমার কেয়ারের তরফ থেকে ফোন করা হয়েছে এবং আপনার কেওয়াইসি পেন্ডিং আছে। এখনই আপনাকে আপনার কেওয়াইসি আপডেট করতে হবে, তা না হলে আপনি আপনার পেটিএম ওয়ালেট আর ব্যবহার করতে পারবেন না।

সতীশকে একটি টেক্সট মেসেজও পাঠানো হয় যাতে একটি লিঙ্ক ছিল। ওই লিংকে ক্লিক করার সঙ্গে সঙ্গেই পেটিএম খুলে যায়। ফোনে থাকা কাস্টমার কেয়ারের ব্যক্তিটি পেটিএমের সঙ্গে সংযুক্ত কার্ডের পিন নম্বর নিজে না চেয়ে সতীশকেই নিজের পেটিএমে বসাতে বলে। এই পিন নম্বরটি বসানোর সঙ্গে সঙ্গেই সতীশের অ্যাকাউন্ট থেকে ২৬,০০০ টাকা অন্য একটি অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার হয়ে যায়।

এই ঘটনার পরে সতীশ পেটিএম কাস্টমার কেয়ারে ঘটনাটির অভিযোগ জানান এবং পেটিএমের তরফ থেকে ঘটনাটির এফআইআরের কপি চেয়ে পাঠানো হয়। সবচেয়ে অদ্ভুত ব্যাপার এই যে, এখনো সেই জালিয়াতের কাছে ফোন করলে সে দাবি জানাচ্ছে যে সে পেটিএমেরই কাস্টমার কেয়ারের লোক এবং কোম্পানির তরফ থেকে ভুলবশত এই টাকা কেটে নেওয়া হয়েছে যেটি ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে রিফান্ড হয়ে যাবে।

Paytm অ্যাপটি খুললেও এখন অনেকের কাছে মেসেজ পৌঁছেছে যে কেওয়াইসি পূরণ না করলে আপনার ওয়ালেট আপনি আর ব্যবহার করতে পারবেন না। কিন্তু পেটিএমের কেওয়াইসি পূরণ করার পদ্ধতি আলাদা। এখানে পেটিএমের তরফ থেকে একজন ব্যক্তিকে পাঠানো হয় যে আপনার কেওয়াইসি ফর্ম পূরণ করে দেবে।

এই ঘটনাটি ছাড়াও আরো কয়েকটি পেটিএমের সঙ্গে জড়িত জালিয়াতি আমাদের সামনে উঠে এসেছে। টুইটারে অভয় নামের এক ব্যক্তি একটি টুইট করেছেন,” আমার কাছে কিছুক্ষণ আগেই ‘৯৮৭৫৬১২০৪১’ নম্বর থেকে একটি ফোন আসে যাতে জানানো হয় যে ফোনটি পেটিএমের তরফ থেকে করা হয়েছে এবং আপনাকে আপনার কেওয়াইসি পূরণ করতে হবে। তারা আমাকে গুগল প্লে স্টোর থেকে কুইক সাপোর্ট অ্যাপটি ডাউনলোড করতে বলে। এই অ্যাপটি একটি রিমোট অ্যাক্সেস অ্যাপ যেটির সাহায্যে জালিয়াতরা পেটিএম হ্যাক করে টাকা তুলে নেওয়ার জন্য ব্যবহার করে।”

কিভাবে রেহাই পাবেন এরকম জালিয়াতি থেকে-

এই ধরনের অনলাইন জালিয়াতি মূলত ডেবিট কার্ড অথবা ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমেই করা হয়। তাই কখনোই নিজের কার্ডের তথ্য অন্য কাউকে দিয়ে দেবেন না। ম্যাসেজের মধ্যে কোনো সন্দেহজনক লিংক থাকলে কখনোই সেটিতে ক্লিক করবেন না। এই ধরনের লিঙ্ক আপনাকে পেটিএমে রিডাইরেক্ট করে আপনার কার্ডের তথ্য হ্যাক করে জালিয়াতের কাছে পৌঁছে দেয়। আপনার Paytm অ্যাকাউন্টে টাকা আছে কি নেই তার সঙ্গে এর কোনো সম্পর্ক নেই। আপনার পেটিএম অ্যাকাউন্টের সঙ্গে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট লিঙ্ক করা থাকলে সেখান থেকেও টাকা খুব সহজেই তুলে নেওয়া সম্ভব।

Amazon প্রোডাক্ট কিনতে এখানে ক্লিক করুন

পড়ুন : জিতুন ১০০০ টাকা পর্যন্ত Paytm ক্যাশব্যাক, জেনে নিন পদ্ধতি

সব খবর পড়তে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন – এখানে ক্লিক করুন

সমস্ত খবরের আপডেট পেতে এখানে লাইক দিন!