ভারতে Xiaomi এর ফোন বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করতে আদালতে দ্বারস্থ Phillips

ভারতীয় বাজারে Xiaomi-র চাহিদা বা জনপ্রিয়তা কেমন, তা নিশ্চয় আপনাদের নতুন করে বলে দিতে হবেনা! কিন্তু এই ফোন বিক্রির কারণেই এবার সংস্থাটি কাঠগড়ায় দাঁড়াতে চলেছে। সূত্রের খবর, ভারতে Xiaomi-র ফোন বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করার অনুরোধ নিয়ে দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে আর একটি জনপ্রিয় ইলেকট্রনিক্স ব্র্যান্ড Phillips। এই মামলার ফলশ্রুতি হিসেবে, আগামী এক মাসের মধ্যে Xiaomi-কে আদালতের সাথে যোগাযোগ করার আদেশ দিয়েছে দিল্লি হাইকোর্ট।

ঠিক কী নিয়ে বেঁধেছে লড়াই? 

এমনিতে বাজারে প্রোডাক্ট বিক্রি নিয়ে বিভিন্ন কোম্পানির মধ্যে প্রতিযোগিতা কোনো নতুন বিষয় নয়। কিন্তু Phillips-এর অভিযোগ, চীনা টেক জায়ান্ট সংস্থাটি ফোন বিক্রির পেটেন্ট লিমিট অতিক্রম করে ভারতীয় বাজারে ব্যবসা চালাচ্ছে। আর তাই, ভারতে শাওমির প্রোডাক্ট উৎপাদন, অ্যাসেম্বল, বিজ্ঞাপনী প্রচার এবং প্রোডাক্ট বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞার জারি করার দাবি নিয়ে মামলা করেছে ফিলিপ্স।

রিপোর্ট অনুযায়ী, নেদারল্যান্ড ভিত্তিক কোম্পানিটি মামলায় নির্দিষ্ট কিছু শাওমি ফোনের উল্লেখ করেছে যেগুলি নির্দিষ্ট পেটেন্ট লিমিট লঙ্ঘন করেছে বলে দাবি করা হয়েছে। ফোনগুলির নাম বা মডেল সম্পর্কে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি, তবে এই ফোনগুলিতে UMTS বা ইউনিভার্সাল মোবাইল টেলিকমিউনিকেশন সিস্টেম এনহ্যান্সমেন্ট (HSPA, HSPA+) এবং LTE (লং টার্ম ইভোলিউশনের মত প্রযুক্তি রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

এদিকে, যাতে শাওমি আর কোনোভাবেই ভারতীয় বন্দরগুলির মাধ্যমে ফোন আমদানি করতে না পারে, সেই জন্য ফিলিপ্স তার আবেদনে আদালতের কাছে কেন্দ্রীয় আবগারি ও শুল্ক দফতর এবং দেশের কাস্টম অথরিটিকে বিশেষ আদেশ দেওয়ার অনুরোধ করেছে।

আপাতত, দিল্লি হাইকোর্ট, শাওমি এবং অন্যান্য আসামীদের সংস্থার ভারতীয় ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ন্যূনতম ১,০০০ কোটি টাকা ব্যালেন্স রাখার এবং আসামীপক্ষকে নিজেদের বক্তব্য পেশ করার আদেশ দিয়েছে। আগামী বছর অর্থাৎ ২০২১ সালের ১৮ জানুয়ারি এই মামলার শুনানি হবে বলে জানা গিয়েছে।